ঢাকা ১১:১০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২৩, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
দুই বিভাগের পুলিশ কমিশনারসহ ৫ এসপিকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দুর্নীতিবিরোধী সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের আমন্ত্রণ, যোগ দিচ্ছে বাংলাদেশ পেঁয়াজের বাজার অস্তির, রাতে ৮০ সকালে ১৬০ টাকা জাপা মহাসচিবের প্রার্থিতা বাতিল চেয়ে নৌকার প্রার্থীর আবেদন ‘আগামীতে রক্তপাত, গৃহযুদ্ধ হলে দায় আওয়ামী লীগের’ ১০ ডিসেম্বর কোথায় মানববন্ধন করবে, জানাল বিএনপি অযৌক্তিক রাজনৈতিক চাপের অভিযোগ তুলে জাতিসংঘকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠি আপিলকারীরা শতভাগ ন্যায়বিচার পাবেন: ইসি ত্রিশালকে একটি মডেল এলাকা হিসাবে গড়ে তুলবো – স্বতন্ত্র প্রার্থী আনিছ যারা আগুন দিতে যাবে তাদের পুলিশে দিন: প্রধানমন্ত্রী

রাজশাহীতে কলেজছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট সময় : ০৩:৪৬:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২৩ ৪৫ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

রাজশাহী মহানগরীর তেরখাদিয়া এলাকা থেকে রোববার সকালে আয়েশা জান্নাত নদী (২১) নামে এক কলেজছাত্রীর ফাঁস দেওয়া লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় নদীর স্বামী রাকিবুল হাসিব সজিবকে আটক করা হয়েছে।

নিহত নদীর মা আঞ্জুয়ারা বেগমের দাবি, তার মেয়েকে বালিশচাপা দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেছেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

নদীর পরিবার জানায়, মাত্র দেড় বছর আগে নওগাঁর সান্তাহার এলাকার সারোয়ার হোসেনের ছেলে সজিবের সঙ্গে বিয়ে হয় নদীর। বিয়ের সময় নদীর শর্ত ছিল তিনি লেখাপড়া করবেন।

কিন্তু বিয়ের পর থেকেই তার স্বামী সজিব লেখাপড়ায় বাধা দেন। শুরু করে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। একপর্যায়ে ছয় মাস আগে রাগ করে মায়ের বাড়ি চলে যান নদী। এর পর আবারও বুঝিয়ে নদীকে শ্বশুরবাড়িতে পাঠানো হয়।

নদীর মা আঞ্জুয়ারা বেগম জানান, মাত্র সাত বছর বয়সে নদী বাবা হারান। এর পর গোলাম মোস্তফাকে আমি বিয়ে করি। নদী আমাদের সঙ্গেই থাকত। কিন্তু গরিবের সংসার। আমি সামান্য বেতনে আয়ার চাকরি করি। এ কারণে নদী টিউশনি করে নিজের লেখাপড়ার খরচ চালাত।

সে রাজশাহী মহিলা কলেজে বাংলায় অনার্স তৃতীয়বর্ষের ছাত্রী ছিল। স্বপ্ন ছিল লেখাপড়া শেষ করে শিক্ষক হবে। কিন্তু তার আগেই তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করল। তার গলাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

এ ব্যাপারে রাজশাহীর রাজপাড়া থানার ওসি সিদ্দিকুর রহমান জানান, কলেজছাত্রী নদীর মৃত্যুর ঘটনায় আত্মহত্যায় প্ররোচণার অভিযোগে তার সৎবাবা গোলাম মোস্তফা মামলা করেছেন।

আমরা প্রাথমিক তদন্তে সজিবের বিরুদ্ধে নদীর ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের প্রমাণ পেয়েছি। এ কারণে তাকে এ মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। নদীর লাশ ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পরেই তার মৃত্যুর প্রকৃত কারণ সম্পর্কে জানা যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রাজশাহীতে কলেজছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু

আপডেট সময় : ০৩:৪৬:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২৩

রাজশাহী মহানগরীর তেরখাদিয়া এলাকা থেকে রোববার সকালে আয়েশা জান্নাত নদী (২১) নামে এক কলেজছাত্রীর ফাঁস দেওয়া লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় নদীর স্বামী রাকিবুল হাসিব সজিবকে আটক করা হয়েছে।

নিহত নদীর মা আঞ্জুয়ারা বেগমের দাবি, তার মেয়েকে বালিশচাপা দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেছেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

নদীর পরিবার জানায়, মাত্র দেড় বছর আগে নওগাঁর সান্তাহার এলাকার সারোয়ার হোসেনের ছেলে সজিবের সঙ্গে বিয়ে হয় নদীর। বিয়ের সময় নদীর শর্ত ছিল তিনি লেখাপড়া করবেন।

কিন্তু বিয়ের পর থেকেই তার স্বামী সজিব লেখাপড়ায় বাধা দেন। শুরু করে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। একপর্যায়ে ছয় মাস আগে রাগ করে মায়ের বাড়ি চলে যান নদী। এর পর আবারও বুঝিয়ে নদীকে শ্বশুরবাড়িতে পাঠানো হয়।

নদীর মা আঞ্জুয়ারা বেগম জানান, মাত্র সাত বছর বয়সে নদী বাবা হারান। এর পর গোলাম মোস্তফাকে আমি বিয়ে করি। নদী আমাদের সঙ্গেই থাকত। কিন্তু গরিবের সংসার। আমি সামান্য বেতনে আয়ার চাকরি করি। এ কারণে নদী টিউশনি করে নিজের লেখাপড়ার খরচ চালাত।

সে রাজশাহী মহিলা কলেজে বাংলায় অনার্স তৃতীয়বর্ষের ছাত্রী ছিল। স্বপ্ন ছিল লেখাপড়া শেষ করে শিক্ষক হবে। কিন্তু তার আগেই তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করল। তার গলাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

এ ব্যাপারে রাজশাহীর রাজপাড়া থানার ওসি সিদ্দিকুর রহমান জানান, কলেজছাত্রী নদীর মৃত্যুর ঘটনায় আত্মহত্যায় প্ররোচণার অভিযোগে তার সৎবাবা গোলাম মোস্তফা মামলা করেছেন।

আমরা প্রাথমিক তদন্তে সজিবের বিরুদ্ধে নদীর ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের প্রমাণ পেয়েছি। এ কারণে তাকে এ মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। নদীর লাশ ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পরেই তার মৃত্যুর প্রকৃত কারণ সম্পর্কে জানা যাবে।