ঢাকা ০৫:০২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজনৈতিক কর্মসূচিতে বাধা নেই, জনদুর্ভোগ করলে প্রতিহত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৪:৪১:৪৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ জুলাই ২০২৩ ৮২ বার পড়া হয়েছে

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান দাবি করেছেন, বিএনপিসহ কয়েকটি রাজনৈতিক দল বেশ কয়েক দিন ধরে জনদুর্ভোগ সৃষ্টির জন্য বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচি দিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘সব সময় বলে আসছি, রাজনৈতিক দলগুলোর কর্মসূচিতে আমাদের কোনো বাধা নেই। কিন্তু যখনই তারা জনগণের দুর্ভোগ করবে, জানমালের ক্ষতি করবে, আহত করবে, হত্যার চেষ্টা করবে, গাড়ি ভাঙচুর করবে-সেটি পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনী প্রতিহত করবে। তাদের ওপর যে অর্পিত দায়িত্ব, সেটা তারা পালন করবে।’

শনিবার (২৯ জুলাই) বিএনপির অবস্থান কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত পুলিশ সদস্যদের দেখতে রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে এসে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তারা (বিএনপি) ঢাকাকে সারা বাংলাদেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করার একটা কর্মসূচি নিয়েছিল। কয়েকজন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাকে দেখেছি, তারা বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান করে রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছেন। রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে যানবাহন বন্ধ করেছেন। পুলিশ তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করেছে। সেই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে ৩১ জন পুলিশ সদস্য এই হাসপাতালেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। আরও কয়েকজন আহত হয়ে অন্য হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। কয়েকজন চিকিৎসাসেবা নিয়ে বাসায় ফিরেছেন।’

বিএনপির নেতা-কর্মীদের হামলায় পুলিশের একজন অতিরিক্ত ডিআইজি আহত হয়েছেন উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘মেহেদীর (ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার মেহেদী হাসান) ওপর বৃষ্টির মতো ঢিল ছুড়েছে। কিন্তু রিভেঞ্জ (বদলা) নেওয়া, গুলি ছোড়া, সেটি তিনি করেননি। নীরবে সহ্য করেছেন এবং তাদের পিছু হটতে বাধ্য করেছেন।’

বিএনপি ২০১৪-১৫ সালের মতো ‘অগ্নিসন্ত্রাস’ করার চেষ্টা করছে উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আজকের ঘটনার পর থেকে সেই ২০১৪-১৫ সালের অগ্নিসন্ত্রাসের দিনগুলো স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে। আবারও কি তারা সে ধরনের কর্মকাণ্ড করতে চাইছে কি না, আবারও ঢাকা অবরোধ করবে কি না। আবারও মানুষকে জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে মারবে কি না।’

বিএনপির একজন নেতার অগ্নিসংযোগ করার নির্দেশ দেওয়ার অডিও তার হাতে এসেছে বলেও দাবি করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘কিছুক্ষণ আগেই নিপুণ রায়ের (ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক) ফেসবুকে একটি অডিও শুনলাম। তিনি বলছেন, “তোমরা আগুন ধরাও, এগুলো আমাদের জায়গামতো দেখাতে হবে।”

জায়গাটা কোনটি, তিনি নিজেই জানেন। দাউ দাউ করে আগুন জ্বালানোর হুকুম তিনি দিচ্ছেন। সব জায়গা থেকে বিএনপির নেতারা এ ধরনের কাজের জন্য উৎসাহ দিচ্ছেন। আমরা এটার তীব্র নিন্দা প্রকাশ করছি। সবাইকে আহ্বান করব, এ ধরনের জ্বালাও-পোড়াওয়ের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না হয়। এ ধরনের ঘটনা ঘটালে পুলিশ, নিরাপত্তা বাহিনী, জনগণ কেউ এটা সহ্য করবে না।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের পর তাকে প্রশ্ন করা হয়, তার (নিপুণ রায়) শ্বশুরকে ডিবিতে এনে আপ্যায়ন করা হয়েছে। আরেকজন নেতাকে প্রধানমন্ত্রীর একান্ত ব্যক্তিগত সহকারী গিয়ে জুস খাইয়েছেন। তাহলে যারা পুলিশের ওপর ‘হামলার নেতৃত্ব দিলেন’, তাদের কী আপনারা তোষামোদ করছেন? এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের এটি ভুল ধারণা। আমানউল্লাহ আমানকে যখন আটক করা হয়, তখন তিনি রাস্তায় পড়ে গিয়েছিলেন। তাকে হৃদরোগ হাসপাতালে পুলিশ ভর্তি করেছে, চিকিৎসা দিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী যখন শুনেছেন একজন বিএনপি নেতা পড়ে গিয়ে আহত হয়েছেন, আরেকজন সামান্য ধাক্কাধাক্কিতে আহত হয়েছেন; প্রধানমন্ত্রী শুনেই তাদের যথাযোগ্য চিকিৎসা বা যা যা প্রয়োজন, সেই নির্দেশনা দিয়েছেন। এটাই মানবতার নেতার কাজ।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রাজনৈতিক কর্মসূচিতে বাধা নেই, জনদুর্ভোগ করলে প্রতিহত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আপডেট সময় : ০৪:৪১:৪৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ জুলাই ২০২৩

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান দাবি করেছেন, বিএনপিসহ কয়েকটি রাজনৈতিক দল বেশ কয়েক দিন ধরে জনদুর্ভোগ সৃষ্টির জন্য বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচি দিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘সব সময় বলে আসছি, রাজনৈতিক দলগুলোর কর্মসূচিতে আমাদের কোনো বাধা নেই। কিন্তু যখনই তারা জনগণের দুর্ভোগ করবে, জানমালের ক্ষতি করবে, আহত করবে, হত্যার চেষ্টা করবে, গাড়ি ভাঙচুর করবে-সেটি পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনী প্রতিহত করবে। তাদের ওপর যে অর্পিত দায়িত্ব, সেটা তারা পালন করবে।’

শনিবার (২৯ জুলাই) বিএনপির অবস্থান কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত পুলিশ সদস্যদের দেখতে রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে এসে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তারা (বিএনপি) ঢাকাকে সারা বাংলাদেশ থেকে বিচ্ছিন্ন করার একটা কর্মসূচি নিয়েছিল। কয়েকজন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাকে দেখেছি, তারা বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান করে রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছেন। রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে যানবাহন বন্ধ করেছেন। পুলিশ তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করেছে। সেই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে ৩১ জন পুলিশ সদস্য এই হাসপাতালেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। আরও কয়েকজন আহত হয়ে অন্য হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। কয়েকজন চিকিৎসাসেবা নিয়ে বাসায় ফিরেছেন।’

বিএনপির নেতা-কর্মীদের হামলায় পুলিশের একজন অতিরিক্ত ডিআইজি আহত হয়েছেন উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘মেহেদীর (ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার মেহেদী হাসান) ওপর বৃষ্টির মতো ঢিল ছুড়েছে। কিন্তু রিভেঞ্জ (বদলা) নেওয়া, গুলি ছোড়া, সেটি তিনি করেননি। নীরবে সহ্য করেছেন এবং তাদের পিছু হটতে বাধ্য করেছেন।’

বিএনপি ২০১৪-১৫ সালের মতো ‘অগ্নিসন্ত্রাস’ করার চেষ্টা করছে উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আজকের ঘটনার পর থেকে সেই ২০১৪-১৫ সালের অগ্নিসন্ত্রাসের দিনগুলো স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে। আবারও কি তারা সে ধরনের কর্মকাণ্ড করতে চাইছে কি না, আবারও ঢাকা অবরোধ করবে কি না। আবারও মানুষকে জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে মারবে কি না।’

বিএনপির একজন নেতার অগ্নিসংযোগ করার নির্দেশ দেওয়ার অডিও তার হাতে এসেছে বলেও দাবি করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘কিছুক্ষণ আগেই নিপুণ রায়ের (ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক) ফেসবুকে একটি অডিও শুনলাম। তিনি বলছেন, “তোমরা আগুন ধরাও, এগুলো আমাদের জায়গামতো দেখাতে হবে।”

জায়গাটা কোনটি, তিনি নিজেই জানেন। দাউ দাউ করে আগুন জ্বালানোর হুকুম তিনি দিচ্ছেন। সব জায়গা থেকে বিএনপির নেতারা এ ধরনের কাজের জন্য উৎসাহ দিচ্ছেন। আমরা এটার তীব্র নিন্দা প্রকাশ করছি। সবাইকে আহ্বান করব, এ ধরনের জ্বালাও-পোড়াওয়ের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না হয়। এ ধরনের ঘটনা ঘটালে পুলিশ, নিরাপত্তা বাহিনী, জনগণ কেউ এটা সহ্য করবে না।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের পর তাকে প্রশ্ন করা হয়, তার (নিপুণ রায়) শ্বশুরকে ডিবিতে এনে আপ্যায়ন করা হয়েছে। আরেকজন নেতাকে প্রধানমন্ত্রীর একান্ত ব্যক্তিগত সহকারী গিয়ে জুস খাইয়েছেন। তাহলে যারা পুলিশের ওপর ‘হামলার নেতৃত্ব দিলেন’, তাদের কী আপনারা তোষামোদ করছেন? এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের এটি ভুল ধারণা। আমানউল্লাহ আমানকে যখন আটক করা হয়, তখন তিনি রাস্তায় পড়ে গিয়েছিলেন। তাকে হৃদরোগ হাসপাতালে পুলিশ ভর্তি করেছে, চিকিৎসা দিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী যখন শুনেছেন একজন বিএনপি নেতা পড়ে গিয়ে আহত হয়েছেন, আরেকজন সামান্য ধাক্কাধাক্কিতে আহত হয়েছেন; প্রধানমন্ত্রী শুনেই তাদের যথাযোগ্য চিকিৎসা বা যা যা প্রয়োজন, সেই নির্দেশনা দিয়েছেন। এটাই মানবতার নেতার কাজ।’