ঢাকা ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রচণ্ড দাবদাহে কেন তরমুজ খাওয়া দরকার?

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৫:০০:০৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৪ ২৫ বার পড়া হয়েছে

প্রচণ্ড দাবদাহে সতেজ এবং হাইড্রেটেড থাকার জন্য রসালো তরমুজের জুড়ি নেই। তরমুজের প্রায় ৯২ শতাংশই পানি। হাইড্রেটেড রাখার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় পুষ্টিরও জোগান দেয় ফলটি।

লাইকোপেন, অ্যামাইনো অ্যাসিড, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, পটাসিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম পাওয়া যায় তরমুজ থেকে। জেনে নিন তরমুজ খাওয়ার কিছু উপকারিতা সম্পর্কে।

১। চমৎকার হাইড্রেশনের উৎস

তরমুজের উচ্চ পানির উপাদান ঘামের মাধ্যমে হারিয়ে যাওয়া তরল পূরণ করতে সাহায্য করে। গরমের দিনেও ঠান্ডা, সতেজ এবং হাইড্রেটেড থাকতে তরমুজ খাওয়ার বিকল্প নেই।

২। প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান সমৃদ্ধ

পানির পাশাপাশি তরমুজ প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানে ভরপুর। ভিটামিন এ এবং সি পাওয়া যায় ফলটি থেকে। সেই সাথে পটাসিয়ামের একটি ভালো উৎস তরমুজ, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ইলেক্ট্রোলাইট ভারসাম্য বজায় রাখতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে রসালো এই ফল।

৩। হার্টের স্বাস্থ্য ভালো রাখে

তরমুজে রয়েছে সিট্রুলাইন নামের একটি অ্যামিনো অ্যাসিড যা শরীরে আর্জিনাইনে রূপান্তরিত হয়। আর্জিনাইন হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী, কারণ এটি রক্তনালীগুলোকে শিথিল করতে, রক্ত প্রবাহ উন্নত করতে এবং রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। নিয়মিত তরমুজ খাওয়ার ফলে কার্ডিওভাসকুলার স্বাস্থ্য ভালো হয় এবং হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। প্রচণ্ড গরমে হৃদরোগীরা থাকেন অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকিতে। নিয়মিত তরমুজ খেলে এই ঝুঁকি কমে অনেকটাই।

৪। ত্বক ভালো রাখে

তরমুজে পাওয়া ভিটামিন এ এবং সি ত্বক স্বাস্থ্যোজ্জ্বল ও সতেজ রাখে। ভিটামিন এ ত্বকের কোষের পুনর্জন্ম এবং মেরামতকে সহায়তা করে, অন্যদিকে ভিটামিন সি ত্বককে সূর্যের ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে এবং কোলাজেন উৎপাদনকে উৎসাহিত করে। বলিরেখা এবং সূক্ষ্ম রেখার উপস্থিতিও হ্রাস করে তরমুজে থাকা উপকারী উপাদান। এই গরমে ত্বকের শুষ্ক হয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করতে তাই তরমুজ খান নিয়মিত।

৫। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

তরমুজে থাকা ভিটামিন সি সংক্রমণ এবং অসুস্থতা প্রতিরোধে সহায়তা করে। গ্রীষ্মকালে তরমুজের মতো ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ খাবার বেশি করে খান। এগুলো প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে এবং সাধারণ অসুস্থতা থেকে আমাদের দূরে রাখে।

৬। হজমের সমস্যা দূর করে

প্রচণ্ড গরমে হজমের সমস্যা ও কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা দিতে পারে। তরমুজ নিয়মিত খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করা সহজ হয়। পাশাপাশি হজমের অস্বস্তি দূর করতেও সাহায্য করে ফলটি।

৭। প্রাকৃতিক ডিটক্সিফায়ার

শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ এবং বর্জ্য পদার্থ দূর করতে সাহায্য করে তরমুজ। প্রাকৃতিক ডিটক্সিফায়ার হিসেবে আপনাকে সতেজ রাখবে গ্রীষ্মের উপকারী এই ফল। তথ্যসূত্র: বোল্ডস্কাই

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

প্রচণ্ড দাবদাহে কেন তরমুজ খাওয়া দরকার?

আপডেট সময় : ০৫:০০:০৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৪

প্রচণ্ড দাবদাহে সতেজ এবং হাইড্রেটেড থাকার জন্য রসালো তরমুজের জুড়ি নেই। তরমুজের প্রায় ৯২ শতাংশই পানি। হাইড্রেটেড রাখার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় পুষ্টিরও জোগান দেয় ফলটি।

লাইকোপেন, অ্যামাইনো অ্যাসিড, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, পটাসিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম পাওয়া যায় তরমুজ থেকে। জেনে নিন তরমুজ খাওয়ার কিছু উপকারিতা সম্পর্কে।

১। চমৎকার হাইড্রেশনের উৎস

তরমুজের উচ্চ পানির উপাদান ঘামের মাধ্যমে হারিয়ে যাওয়া তরল পূরণ করতে সাহায্য করে। গরমের দিনেও ঠান্ডা, সতেজ এবং হাইড্রেটেড থাকতে তরমুজ খাওয়ার বিকল্প নেই।

২। প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান সমৃদ্ধ

পানির পাশাপাশি তরমুজ প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানে ভরপুর। ভিটামিন এ এবং সি পাওয়া যায় ফলটি থেকে। সেই সাথে পটাসিয়ামের একটি ভালো উৎস তরমুজ, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ইলেক্ট্রোলাইট ভারসাম্য বজায় রাখতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে রসালো এই ফল।

৩। হার্টের স্বাস্থ্য ভালো রাখে

তরমুজে রয়েছে সিট্রুলাইন নামের একটি অ্যামিনো অ্যাসিড যা শরীরে আর্জিনাইনে রূপান্তরিত হয়। আর্জিনাইন হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী, কারণ এটি রক্তনালীগুলোকে শিথিল করতে, রক্ত প্রবাহ উন্নত করতে এবং রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। নিয়মিত তরমুজ খাওয়ার ফলে কার্ডিওভাসকুলার স্বাস্থ্য ভালো হয় এবং হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। প্রচণ্ড গরমে হৃদরোগীরা থাকেন অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকিতে। নিয়মিত তরমুজ খেলে এই ঝুঁকি কমে অনেকটাই।

৪। ত্বক ভালো রাখে

তরমুজে পাওয়া ভিটামিন এ এবং সি ত্বক স্বাস্থ্যোজ্জ্বল ও সতেজ রাখে। ভিটামিন এ ত্বকের কোষের পুনর্জন্ম এবং মেরামতকে সহায়তা করে, অন্যদিকে ভিটামিন সি ত্বককে সূর্যের ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে এবং কোলাজেন উৎপাদনকে উৎসাহিত করে। বলিরেখা এবং সূক্ষ্ম রেখার উপস্থিতিও হ্রাস করে তরমুজে থাকা উপকারী উপাদান। এই গরমে ত্বকের শুষ্ক হয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করতে তাই তরমুজ খান নিয়মিত।

৫। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

তরমুজে থাকা ভিটামিন সি সংক্রমণ এবং অসুস্থতা প্রতিরোধে সহায়তা করে। গ্রীষ্মকালে তরমুজের মতো ভিটামিন সি-সমৃদ্ধ খাবার বেশি করে খান। এগুলো প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে এবং সাধারণ অসুস্থতা থেকে আমাদের দূরে রাখে।

৬। হজমের সমস্যা দূর করে

প্রচণ্ড গরমে হজমের সমস্যা ও কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা দিতে পারে। তরমুজ নিয়মিত খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করা সহজ হয়। পাশাপাশি হজমের অস্বস্তি দূর করতেও সাহায্য করে ফলটি।

৭। প্রাকৃতিক ডিটক্সিফায়ার

শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ এবং বর্জ্য পদার্থ দূর করতে সাহায্য করে তরমুজ। প্রাকৃতিক ডিটক্সিফায়ার হিসেবে আপনাকে সতেজ রাখবে গ্রীষ্মের উপকারী এই ফল। তথ্যসূত্র: বোল্ডস্কাই