ঢাকা ০১:০৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের নবগঠিত কমিটির যাত্রা শুরু চালের বস্তায় দামসহ থাকতে হবে সব তথ্য, পরিপত্র জারি টি-টোয়েন্টিতে দ্রুততম ১০ হাজারে শীর্ষে বাবর অমর একুশে ময়মনসিংহে শহীদ বেদীতে বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের শ্রদ্ধা নিবেদন ১৯৩ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা অনুমোদন ইইউ’র স্মার্ট হতে ইংরেজিতে কথা বলতে হবে তা ঠিক নয়: প্রধানমন্ত্রী ভাষা শহীদদের স্মরণে দেশের প্রথম শহীদ মিনারে আরসিআরইউ’র শ্রদ্ধা স্মার্ট ত্রিশাল উপজেলা গড়তে জনগণের সেবক হতে চান’যুবনেতা জুয়েল সরকার পুঠিয়ায় শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত চুরির অপবাদ সইতে না পেরে পুঠিয়ায় নৈশ্য প্রহোরীর আত্মহত্যা

সেমিতে বার্সা-রিয়াল লড়াইয়ের সম্ভাবনা!

ক্রীড়া ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ১০:১০:১৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ৬৭ বার পড়া হয়েছে

সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে বৃহস্পতিবার রাতে কোয়ার্টার-ফাইনালের শেষ ম্যাচে ৩-১ গোলে জিতেছে রিয়াল মাদ্রিদ। আলভারো মোরাতার গোলে পিছিয়ে পড়া স্বাগতিকরা সমতায় ফেরে রদ্রিগোর নজরকাড়া গোলে। পরে বেনজেমা দলকে এগিয়ে নেওয়ার পর জয় নিশ্চিত করেন ভিনিসিউস জুনিয়র।

সেমি-ফাইনালে ওঠা অন্য তিন দল হলো- বার্সেলোনা, আথলেতিক বিলবাও ও ওসাসুনা। আগামী ৩০ জানুয়ারি ড্রয়ে নির্ধারিত হবে, ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে কে কার মুখোমুখি হবে। সেক্ষেত্রে বার্সা-রিয়াল দ্বৈরথকে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। ড্র শেষেই বুঝা যাবে আরো একটি এল ক্লাসিকো হচ্ছে কি না?

লক্ষ্যে প্রথম শট নিয়েই এগিয়ে যায় অ্যাথলেটিকো। ১৯তম মিনিটে বাঁ দিক থেকে উঁচু করে ডি-বক্সে ক্রস বাড়ান কোকে, অপ্রস্তুত রিয়াল রক্ষণকে ফাঁকি দিয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নাহুয়েল মোলিনা পাস দেন ছয় গজ বক্সে। তার দিকে গোলরক্ষক আগেই এগিয়ে যাওয়ায় ফাঁকা জালে বল পাঠান মোরাতা।

৬৯তম মিনিটে ভালভেরদের বদলি নেমে ১০ মিনিট পর দারুণ গোলটি করেন রদ্রিগো। মদ্রিচের পাস ধরে অসাধারণ ড্রিবলে দুজনকে কাটিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে প্রতিপক্ষের আরও দুজনের চ্যালেঞ্জ এড়িয়ে পোস্ট ঘেঁষে গোলটি করেন তিনি।

অতিরিক্ত সময়ের নবম মিনিটে বড় ধাক্কাটা খায় অ্যাথলেটিকো। কামাভিঙ্গাকে ফাউল করে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখেন মন্টেনেগ্রোর ডিফেন্ডার স্তেফান সাভিচ।

একজন কমে যাওয়ায় রক্ষণাত্মক হয়ে পড়ে অ্যাথলেটিকোর। কিন্তু পাঁচ মিনিট পর গোল খেয়ে বসে তারা। ডান দিক থেকে মার্কো আসেনসিওর পাস বক্সের মাঝামাঝি পেয়ে শট নিতে পারেননি ভিনিসিউস, তার পায়ে লেগে বল চলে যায় বেনজেমার কাছে। অরক্ষিত ফরাসি ফরোয়ার্ড কোনাকুনি শটে খুঁজে নেন ঠিকানা।

যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে আরেকটি একক নৈপুণ্যের গোলের দেখা মেলে। দানি সেবাইয়োসের পাস পেয়ে ডি-বক্সের লাইন ধরে আড়াআড়ি ছুটে এক ডিফেন্ডারের পায়ের ফাঁক দিয়ে নিচু শটে জয় নিশ্চিত করেন ভিনিসিউস।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

সেমিতে বার্সা-রিয়াল লড়াইয়ের সম্ভাবনা!

আপডেট সময় : ১০:১০:১৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩

সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে বৃহস্পতিবার রাতে কোয়ার্টার-ফাইনালের শেষ ম্যাচে ৩-১ গোলে জিতেছে রিয়াল মাদ্রিদ। আলভারো মোরাতার গোলে পিছিয়ে পড়া স্বাগতিকরা সমতায় ফেরে রদ্রিগোর নজরকাড়া গোলে। পরে বেনজেমা দলকে এগিয়ে নেওয়ার পর জয় নিশ্চিত করেন ভিনিসিউস জুনিয়র।

সেমি-ফাইনালে ওঠা অন্য তিন দল হলো- বার্সেলোনা, আথলেতিক বিলবাও ও ওসাসুনা। আগামী ৩০ জানুয়ারি ড্রয়ে নির্ধারিত হবে, ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে কে কার মুখোমুখি হবে। সেক্ষেত্রে বার্সা-রিয়াল দ্বৈরথকে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। ড্র শেষেই বুঝা যাবে আরো একটি এল ক্লাসিকো হচ্ছে কি না?

লক্ষ্যে প্রথম শট নিয়েই এগিয়ে যায় অ্যাথলেটিকো। ১৯তম মিনিটে বাঁ দিক থেকে উঁচু করে ডি-বক্সে ক্রস বাড়ান কোকে, অপ্রস্তুত রিয়াল রক্ষণকে ফাঁকি দিয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নাহুয়েল মোলিনা পাস দেন ছয় গজ বক্সে। তার দিকে গোলরক্ষক আগেই এগিয়ে যাওয়ায় ফাঁকা জালে বল পাঠান মোরাতা।

৬৯তম মিনিটে ভালভেরদের বদলি নেমে ১০ মিনিট পর দারুণ গোলটি করেন রদ্রিগো। মদ্রিচের পাস ধরে অসাধারণ ড্রিবলে দুজনকে কাটিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে প্রতিপক্ষের আরও দুজনের চ্যালেঞ্জ এড়িয়ে পোস্ট ঘেঁষে গোলটি করেন তিনি।

অতিরিক্ত সময়ের নবম মিনিটে বড় ধাক্কাটা খায় অ্যাথলেটিকো। কামাভিঙ্গাকে ফাউল করে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখেন মন্টেনেগ্রোর ডিফেন্ডার স্তেফান সাভিচ।

একজন কমে যাওয়ায় রক্ষণাত্মক হয়ে পড়ে অ্যাথলেটিকোর। কিন্তু পাঁচ মিনিট পর গোল খেয়ে বসে তারা। ডান দিক থেকে মার্কো আসেনসিওর পাস বক্সের মাঝামাঝি পেয়ে শট নিতে পারেননি ভিনিসিউস, তার পায়ে লেগে বল চলে যায় বেনজেমার কাছে। অরক্ষিত ফরাসি ফরোয়ার্ড কোনাকুনি শটে খুঁজে নেন ঠিকানা।

যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে আরেকটি একক নৈপুণ্যের গোলের দেখা মেলে। দানি সেবাইয়োসের পাস পেয়ে ডি-বক্সের লাইন ধরে আড়াআড়ি ছুটে এক ডিফেন্ডারের পায়ের ফাঁক দিয়ে নিচু শটে জয় নিশ্চিত করেন ভিনিসিউস।