ঢাকা ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাত পোহালেই ভোটঃ নজর গাজীপুরে, সব কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৬:২২:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ মে ২০২৩ ৬৩ বার পড়া হয়েছে

দেশের সবচেয়ে বড় এবং আলোচিত গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে বৃহস্পতিবার (২৫ মে)। এদিন সকাল ৮টা থেকে একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন নগরীর ভোটাররা। এরই মধ্যে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে সকল প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করেছে নির্বাচন কমিশন।

গত ৯ মে থেকে ২৩ মে মঙ্গলবার রাত ১২টা পর্যন্ত টানা ১৫ দিন ধরে চলে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা। নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা দিনরাত প্রচার-প্রচারণা চালিয়েছেন। নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা শেষ হলেও এখন চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। নগরজুড়ে জল্পনা কে হচ্ছেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের তৃতীয় মেয়র।

গাজীপুর সিটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মোট ৩৩৩ জন প্রার্থী। এর মধ্যে মেয়র পদে ৮ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৭৯ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৪৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

বুধবার (২৪ মে) রাতে নির্বাচন কাজে সংশ্লিষ্ট মহল এবং বিভিন্ন সূত্রের মাধ্যমে সোনালীনিউজ-এর কাছে আসা সর্বশেষ তথ্যে জানা গেছে, এবারই প্রথম গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট দেবেন ভোটাররা। এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এবং কোন ধরনের অনিয়ম ও অপ্রিয়কর ঘটনা পর্যবেক্ষণে সকল কেন্দ্র থাকছে সিসি টিভির আওতায়। মোট ৪ হাজার ৪৩৫ টি সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে কেন্দ্রগুলোতে। এর মাধ্যমে ঢাকা থেকে কেন্দ্রের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হবে।

অপর দিকে সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে প্রস্তত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। নগরজুড়ে র‍্যাবের ৩০টি টিম এবং ২০ প্লাটুন বিজিবিসহ মোট প্রায় ১৩ হাজার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

এছাড়া নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করবেন ৪৮০ জন প্রিজাইডিং অফিসার, ৩ হাজার ৪৯৭ সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, ৬ হাজার ৯৯৪ পোলিং অফিসারসহ ১০ হাজার ৯৭১ জন ভোট গ্রহণকারী কর্মকর্তা।

নির্বাচন অফিস সূত্রে আরও জানা গেছে, গাজীপুরসহ বিভিন্ন বিভাগের ৫ হাজার পুলিশ সদস্য, প্রতি কেন্দ্রে ২ জন করে মোট ৯৬০ জন আনসার ব্যাটালিয়ান, প্রতি কেন্দ্রে ১০ জন করে মোট ৪ হাজার ৮০০ জন গ্রাম পুলিশ, ৫৭ টি ওয়ার্ডে মাজিস্ট্রেটে ১৭১ জন আনসার বাহিনীর সদস্য কাজ করবেন।

জেলার নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, গাজীপুর সিটিতে মোট ভোটার ১১ লাখ ৭৯ হাজার ৪৭৬ জন। তাদের মধ্যে ৫ লাখ ৯২ হাজার ৭৬২ জন পুরুষ, ৫ লাখ ৮৬ হাজার ৬৯৬ জন নারী এবং ১৮ জন হিজড়া। এই সিটিতে ৫৭টি সাধারণ ও ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড আছে। মোট ভোটকেন্দ্র ৪৮০টি, মোট ভোটকক্ষ ৩ হাজার ৪৯৭টি।

রিটানিং কর্মকর্তার অফিস সূত্রে জানা যায়, নির্বাচনে মোট ৪৮০টি কেন্দ্রের মধ্যে ৩৫১টি কেন্দ্র অতি গুরুত্বপূর্ণ। নির্বাচনে ৫৭টি ওয়ার্ডে ৫৭ জন ম্যাজিস্ট্রেট এবং অতিরিক্ত ১৯ জনসহ সর্বমোট ৭৪ জন ম্যাজিস্ট্রেট এবং জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন।

এ নির্বাচনে কাশিমপুর থানায় ৪৭টি, কোনাবাড়ী থানায় ৪৩টি, বাসন থানায় ৪২টি, সদর থানায় ৪৬টি, গাছা থানায় ৫৭টি, পূবাইল থানায় ৩২টি, টঙ্গী পূর্ব থানায় ১১১টি এবং টঙ্গী পশ্চিম থানায় ৫২টি ভোটকেন্দ্র রয়েছে।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম বলেছেন, জেলা প্রশাসনসহ সকল বাহিনী সিটি নির্বাচনকে সফল করার জন্য কাজ করছে। নির্বাচন কমিশনসহ সকলের একটাই চাওয়া- সবাই যেন কমিশনকে সহযোগিতা করে। সকলের সহযোগিতার মাধ্যমে আমরা যেন গাজীপুরে মডেল নির্বাচন জাতিকে উপহার দিতে পারি। সিটি নির্বাচনে ৫ স্তরে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করে গাজীপুরকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম বলেছেন, নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার মাধ্যমে যেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নাগরিকদের সুষ্ঠু-সুন্দর নির্বাচন উপহার দিতে পারি সেটা নিশ্চিত করব। ভোটকেন্দ্রের আশপাশে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর মোবাইল ফোর্স, স্ট্রাইকিং ফোর্স, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট থাকবে। এটা একটা সমন্বিত প্রয়াস। আমরা সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করব।

৩২৯ দশমিক ৯০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের গাজীপুর সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৩ সালের ৬ জুলাই। দ্বিতীয় সিটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৮ সালের ২৬ জুন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রাত পোহালেই ভোটঃ নজর গাজীপুরে, সব কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা

আপডেট সময় : ০৬:২২:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ মে ২০২৩

দেশের সবচেয়ে বড় এবং আলোচিত গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে বৃহস্পতিবার (২৫ মে)। এদিন সকাল ৮টা থেকে একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন নগরীর ভোটাররা। এরই মধ্যে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে সকল প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করেছে নির্বাচন কমিশন।

গত ৯ মে থেকে ২৩ মে মঙ্গলবার রাত ১২টা পর্যন্ত টানা ১৫ দিন ধরে চলে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা। নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা দিনরাত প্রচার-প্রচারণা চালিয়েছেন। নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা শেষ হলেও এখন চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। নগরজুড়ে জল্পনা কে হচ্ছেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের তৃতীয় মেয়র।

গাজীপুর সিটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন মোট ৩৩৩ জন প্রার্থী। এর মধ্যে মেয়র পদে ৮ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৭৯ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৪৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

বুধবার (২৪ মে) রাতে নির্বাচন কাজে সংশ্লিষ্ট মহল এবং বিভিন্ন সূত্রের মাধ্যমে সোনালীনিউজ-এর কাছে আসা সর্বশেষ তথ্যে জানা গেছে, এবারই প্রথম গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট দেবেন ভোটাররা। এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এবং কোন ধরনের অনিয়ম ও অপ্রিয়কর ঘটনা পর্যবেক্ষণে সকল কেন্দ্র থাকছে সিসি টিভির আওতায়। মোট ৪ হাজার ৪৩৫ টি সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে কেন্দ্রগুলোতে। এর মাধ্যমে ঢাকা থেকে কেন্দ্রের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হবে।

অপর দিকে সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে প্রস্তত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। নগরজুড়ে র‍্যাবের ৩০টি টিম এবং ২০ প্লাটুন বিজিবিসহ মোট প্রায় ১৩ হাজার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

এছাড়া নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করবেন ৪৮০ জন প্রিজাইডিং অফিসার, ৩ হাজার ৪৯৭ সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, ৬ হাজার ৯৯৪ পোলিং অফিসারসহ ১০ হাজার ৯৭১ জন ভোট গ্রহণকারী কর্মকর্তা।

নির্বাচন অফিস সূত্রে আরও জানা গেছে, গাজীপুরসহ বিভিন্ন বিভাগের ৫ হাজার পুলিশ সদস্য, প্রতি কেন্দ্রে ২ জন করে মোট ৯৬০ জন আনসার ব্যাটালিয়ান, প্রতি কেন্দ্রে ১০ জন করে মোট ৪ হাজার ৮০০ জন গ্রাম পুলিশ, ৫৭ টি ওয়ার্ডে মাজিস্ট্রেটে ১৭১ জন আনসার বাহিনীর সদস্য কাজ করবেন।

জেলার নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, গাজীপুর সিটিতে মোট ভোটার ১১ লাখ ৭৯ হাজার ৪৭৬ জন। তাদের মধ্যে ৫ লাখ ৯২ হাজার ৭৬২ জন পুরুষ, ৫ লাখ ৮৬ হাজার ৬৯৬ জন নারী এবং ১৮ জন হিজড়া। এই সিটিতে ৫৭টি সাধারণ ও ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড আছে। মোট ভোটকেন্দ্র ৪৮০টি, মোট ভোটকক্ষ ৩ হাজার ৪৯৭টি।

রিটানিং কর্মকর্তার অফিস সূত্রে জানা যায়, নির্বাচনে মোট ৪৮০টি কেন্দ্রের মধ্যে ৩৫১টি কেন্দ্র অতি গুরুত্বপূর্ণ। নির্বাচনে ৫৭টি ওয়ার্ডে ৫৭ জন ম্যাজিস্ট্রেট এবং অতিরিক্ত ১৯ জনসহ সর্বমোট ৭৪ জন ম্যাজিস্ট্রেট এবং জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন।

এ নির্বাচনে কাশিমপুর থানায় ৪৭টি, কোনাবাড়ী থানায় ৪৩টি, বাসন থানায় ৪২টি, সদর থানায় ৪৬টি, গাছা থানায় ৫৭টি, পূবাইল থানায় ৩২টি, টঙ্গী পূর্ব থানায় ১১১টি এবং টঙ্গী পশ্চিম থানায় ৫২টি ভোটকেন্দ্র রয়েছে।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ফরিদুল ইসলাম বলেছেন, জেলা প্রশাসনসহ সকল বাহিনী সিটি নির্বাচনকে সফল করার জন্য কাজ করছে। নির্বাচন কমিশনসহ সকলের একটাই চাওয়া- সবাই যেন কমিশনকে সহযোগিতা করে। সকলের সহযোগিতার মাধ্যমে আমরা যেন গাজীপুরে মডেল নির্বাচন জাতিকে উপহার দিতে পারি। সিটি নির্বাচনে ৫ স্তরে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করে গাজীপুরকে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম বলেছেন, নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার মাধ্যমে যেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নাগরিকদের সুষ্ঠু-সুন্দর নির্বাচন উপহার দিতে পারি সেটা নিশ্চিত করব। ভোটকেন্দ্রের আশপাশে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর মোবাইল ফোর্স, স্ট্রাইকিং ফোর্স, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট থাকবে। এটা একটা সমন্বিত প্রয়াস। আমরা সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করব।

৩২৯ দশমিক ৯০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের গাজীপুর সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৩ সালের ৬ জুলাই। দ্বিতীয় সিটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৮ সালের ২৬ জুন।