ঢাকা ০৫:১৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজশাহীতে ভোক্তা অধিকার অধিদফতরের অভিযান না থাকায় ক্রমেই বাড়ছে পেঁয়াজের দাম

নাজিম হাসান, নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • আপডেট সময় : ০৬:১৭:০৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ৪৫ বার পড়া হয়েছে

রাজশাহীর হাট-বাজার গুলোতে দেশীও পেঁয়াজের সরবরাহ কম থাকায় দাম চড়া। নয় উপজেলার কৃষিবিভাগের তথ্য মতে জেলার বিভিন্ন কৃষকের ঘরে ঘরে শতশত মেট্রিকটন পেঁয়াজ মওজুত রয়েছে। চাষীরা বেশি দামের আশায় অল্প অল্প করে হাট-বাজারে ছাড়ছেন পেঁয়াজ। অপরদিকে, ব্যবসায়ীরাও আরো বেশি দাম পাওয়ার আশায় পেঁয়াজ গুলো তাদের নিজস্ব গুদামে মওজুত রাখা শুরু করেছে। ফলে রাজশাহীতে পর্যাপ্ত উৎপাদন হলেও পেঁয়াজের দাম কমছেনা। পেঁয়াজ ব্যবসায়ীদের মতে, সেচের পেঁয়াজ না ওঠা পর্যন্ত সহসা কমছেনা দাম। তবে ভোক্তারা বলছেন, এখনই পেঁয়াজের দাম এতো বেড়ে গেলে আর কিছু দিন পর রমজান মাসে আরো বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এদিকে, এলসি বন্ধ থাকার কারণে বাজার ক্রমেই অস্থিতিশীল হয়ে উঠছে বলছেন ব্যবসায়ীরা। পেঁয়াজ আমদানি না করা পর্যন্ত দাম কমার সম্ভাবনা নেই বলেও জানাচ্ছেন তারা। ক্রেতারা বলছেন, পেঁয়াজের দাম যে ভাবে বাড়ছে এতে ক্রমেই পণ্যটি সাধারণ ভোক্তার ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। দাম বাড়ার পেছনের স্থানীয় সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের দায়ী করছেন ক্রেতারা। এ বিষয়ে সরকারের হস্তক্ষেপ চান তারা। শুক্রবার জেলার তাহেরপুর পৌরসভাহাটে দেশি জাতের পেঁয়াজ প্রতি মণ ৪ হাজার টাকা ছাড়িয়ে যায় প্রতিমণ পেঁয়াজের দাম। এখন খুরচা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম ১০০ থেকে ১১০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। হাটে আসা ভোক্তারা বলছেন, এখনই পেঁয়াজের দাম যে হারে বাড়ছে তাতে রমজান মাসে প্রতি কেজি পেঁয়াজের ১৫০ টাকা ছাড়িয়ে যাবে। তারা দাবী করে বলেন, রমজান উপলক্ষে এখনই ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজ কিনে মওজুদ করে রাখছেন । এসব সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের উপর প্রশাসনের নজর দারী বাড়ানো দরকার বলে জানান বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোকজন। জেলা বাজার নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তাবলছেন, পেঁয়াজের দাম ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিভিন্ন উপজেলা থেকে এসব পেঁয়াজ হাট-বাজারে আসছে। এখন চাষির ঘরে ৩০ শতাংশ ও ব্যবসায়ীদের কাছে ৭০ শতাংশ পেঁয়াজ মজুদ আছে। তিনি আরোও বলেন,বেশি দামের কারণে চাষিরা বেশি পেঁয়াজ হাট-বাজারে না ছেড়ে অল্প অল্প করে বিক্রি করছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রাজশাহীতে ভোক্তা অধিকার অধিদফতরের অভিযান না থাকায় ক্রমেই বাড়ছে পেঁয়াজের দাম

আপডেট সময় : ০৬:১৭:০৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪

রাজশাহীর হাট-বাজার গুলোতে দেশীও পেঁয়াজের সরবরাহ কম থাকায় দাম চড়া। নয় উপজেলার কৃষিবিভাগের তথ্য মতে জেলার বিভিন্ন কৃষকের ঘরে ঘরে শতশত মেট্রিকটন পেঁয়াজ মওজুত রয়েছে। চাষীরা বেশি দামের আশায় অল্প অল্প করে হাট-বাজারে ছাড়ছেন পেঁয়াজ। অপরদিকে, ব্যবসায়ীরাও আরো বেশি দাম পাওয়ার আশায় পেঁয়াজ গুলো তাদের নিজস্ব গুদামে মওজুত রাখা শুরু করেছে। ফলে রাজশাহীতে পর্যাপ্ত উৎপাদন হলেও পেঁয়াজের দাম কমছেনা। পেঁয়াজ ব্যবসায়ীদের মতে, সেচের পেঁয়াজ না ওঠা পর্যন্ত সহসা কমছেনা দাম। তবে ভোক্তারা বলছেন, এখনই পেঁয়াজের দাম এতো বেড়ে গেলে আর কিছু দিন পর রমজান মাসে আরো বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এদিকে, এলসি বন্ধ থাকার কারণে বাজার ক্রমেই অস্থিতিশীল হয়ে উঠছে বলছেন ব্যবসায়ীরা। পেঁয়াজ আমদানি না করা পর্যন্ত দাম কমার সম্ভাবনা নেই বলেও জানাচ্ছেন তারা। ক্রেতারা বলছেন, পেঁয়াজের দাম যে ভাবে বাড়ছে এতে ক্রমেই পণ্যটি সাধারণ ভোক্তার ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। দাম বাড়ার পেছনের স্থানীয় সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের দায়ী করছেন ক্রেতারা। এ বিষয়ে সরকারের হস্তক্ষেপ চান তারা। শুক্রবার জেলার তাহেরপুর পৌরসভাহাটে দেশি জাতের পেঁয়াজ প্রতি মণ ৪ হাজার টাকা ছাড়িয়ে যায় প্রতিমণ পেঁয়াজের দাম। এখন খুরচা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম ১০০ থেকে ১১০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। হাটে আসা ভোক্তারা বলছেন, এখনই পেঁয়াজের দাম যে হারে বাড়ছে তাতে রমজান মাসে প্রতি কেজি পেঁয়াজের ১৫০ টাকা ছাড়িয়ে যাবে। তারা দাবী করে বলেন, রমজান উপলক্ষে এখনই ব্যবসায়ীরা পেঁয়াজ কিনে মওজুদ করে রাখছেন । এসব সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের উপর প্রশাসনের নজর দারী বাড়ানো দরকার বলে জানান বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোকজন। জেলা বাজার নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তাবলছেন, পেঁয়াজের দাম ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিভিন্ন উপজেলা থেকে এসব পেঁয়াজ হাট-বাজারে আসছে। এখন চাষির ঘরে ৩০ শতাংশ ও ব্যবসায়ীদের কাছে ৭০ শতাংশ পেঁয়াজ মজুদ আছে। তিনি আরোও বলেন,বেশি দামের কারণে চাষিরা বেশি পেঁয়াজ হাট-বাজারে না ছেড়ে অল্প অল্প করে বিক্রি করছেন।