ঢাকা ০৭:৫৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজশাহীতে নবজাতক চুরির দায়ে স্বামী-স্ত্রীর কারাদন্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট সময় : ০৩:২৮:৫৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৫ এপ্রিল ২০২৩ ১০৬ বার পড়া হয়েছে

রাজশাহীতে নবজাতক চুরির দায়ে মৌসুমী বেগম ও সবুজ আহমেদ দম্পতিকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। বুধবার বেলা ১২ টার দিকে রাজশাহীর মানব পাচার অপরাধ ট্রাইবুনালের বিচারক আয়েজ উদ্দিন এই রায় ঘোষণা করেছেন।রায়ে মামলার প্রধান আসামি মৌসুমি বেগমকে ১০ বছর ও তার স্বামী সজীব আহম্মেদকে ৫ বছরের কারাদন্ড দেয় আদালত। একই সাথে প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। অনাদায়ে আরো ৬ মাসে কারাদন্ড প্রদান করে আদালত। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

মানব পাচার অপরাধ ট্রাইবুনাল রাজশাহীর পিপি শফিকুল ইসলাম জানান, ২০২১ সালের ২০ জানুয়ারি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে সিজারিয়ানের কন্যা সন্তানের জন্ম দেন শ্রী মাসুম রবি দম্পতি। সন্তান জন্মের পরের দিন রাত দশটার দিকে একই ওয়ার্ড থেকে নবজাতককে চুরি করেন মৌসুমি বেগম। এই ঘটনার পরের দিন মাসুম রবি বাদি হয়ে নগরীর রাজপাড়া থানায় মামলা দায়ের কারেন। মামলার একদিন পরে শিশুটিকে রাজশাহী নগরীর ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে পানির ট্যাংকি এলাকা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। এই সময় সজীব ও মৌসুমিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মামলা হয় ২০২১ সালের ২৩ জানুয়ারি। চার্জশিট হয়েছে একই বছরের ৯ সেপ্টেম্বর। মামলার রায়ে আমরা সন্তুষ্ট।

আসামি পক্ষের আইনজীবী হাসানুল সোহাগ বলেন, রায়ে আমরা সন্তষ্ট নয়। আমরা উচ্চ আদালতে যাব।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রাজশাহীতে নবজাতক চুরির দায়ে স্বামী-স্ত্রীর কারাদন্ড

আপডেট সময় : ০৩:২৮:৫৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৫ এপ্রিল ২০২৩

রাজশাহীতে নবজাতক চুরির দায়ে মৌসুমী বেগম ও সবুজ আহমেদ দম্পতিকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। বুধবার বেলা ১২ টার দিকে রাজশাহীর মানব পাচার অপরাধ ট্রাইবুনালের বিচারক আয়েজ উদ্দিন এই রায় ঘোষণা করেছেন।রায়ে মামলার প্রধান আসামি মৌসুমি বেগমকে ১০ বছর ও তার স্বামী সজীব আহম্মেদকে ৫ বছরের কারাদন্ড দেয় আদালত। একই সাথে প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। অনাদায়ে আরো ৬ মাসে কারাদন্ড প্রদান করে আদালত। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

মানব পাচার অপরাধ ট্রাইবুনাল রাজশাহীর পিপি শফিকুল ইসলাম জানান, ২০২১ সালের ২০ জানুয়ারি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে সিজারিয়ানের কন্যা সন্তানের জন্ম দেন শ্রী মাসুম রবি দম্পতি। সন্তান জন্মের পরের দিন রাত দশটার দিকে একই ওয়ার্ড থেকে নবজাতককে চুরি করেন মৌসুমি বেগম। এই ঘটনার পরের দিন মাসুম রবি বাদি হয়ে নগরীর রাজপাড়া থানায় মামলা দায়ের কারেন। মামলার একদিন পরে শিশুটিকে রাজশাহী নগরীর ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে পানির ট্যাংকি এলাকা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। এই সময় সজীব ও মৌসুমিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মামলা হয় ২০২১ সালের ২৩ জানুয়ারি। চার্জশিট হয়েছে একই বছরের ৯ সেপ্টেম্বর। মামলার রায়ে আমরা সন্তুষ্ট।

আসামি পক্ষের আইনজীবী হাসানুল সোহাগ বলেন, রায়ে আমরা সন্তষ্ট নয়। আমরা উচ্চ আদালতে যাব।