ঢাকা ০৩:০৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ময়মনসিংহে কৃষক বাবুলের ধান কেটে দিলো যুবলীগ নেতাকর্মীরা

আরিফ রববানী , ময়মনসিংহ ||
  • আপডেট সময় : ০৪:৫৯:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৩ ৯১ বার পড়া হয়েছে

ময়মনসিংহ সদরে কৃষকের জমির বোরো ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিয়েছেন জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক এইচ এম ফারুক এর নেতৃত্বে জেলা ও সদর উপজেলা যুবলীগের নেতাকর্মীরা। শনিবার (২৯এপ্রিল) সকালে মধ্যবাড়েড়ার দুস্থ কৃষক বাবুল মুন্সির ৮ কাঠা জমির ধান কেটে তুলে দেয় নেতৃবৃন্দরা। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত একটানা কাজ করে দুই কৃষকের পাকা ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দেন তারা।

জানা গেছে, কালবৈশাখী ঝড় ও শিলাবৃষ্টির শঙ্কায় জমির পাকা ধান তোলা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন কৃষক বাবুল মিয়া। বিষয়টি জানতে পেরে তাদের জমির বোরো ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দেন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক এইচ এম ফারুকের নেতৃত্বে জেলা উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের নেতৃবৃন্দরা।

এসময় জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক এইচ এম ফারুক, যুবলীগ নেতা কাজল,একে আকাশ,রাজীবসহ নেতাকর্মীরা।

কৃষক বাবুল মিয়া বলেন, কয়েকদিন ধরে ধানগুলা কাটার জন্য মানুষ খুঁজতেছি। আগে দিন হাজিরা ৪০০ টাকা দিয়ে লোক পাওয়া যাইতো এখন সবাই ৭০০ করে টাকা দাবি করছে। আমি এতো টাকা দিয়ে লোক নিয়ে কীভাবে কাটবো সেই চিন্তায় ছিলাম। বিষয়টি যুবলীগ নেতা এইচ এম ফারুক শুনে তারা কয়েকজন আমার ধান কেটে বাড়িতে এনে দিয়েছেন। আল্লাহ তাদের ভালো করুক।

এদিকে দরিদ্র দুই কৃষকের পাশে এভাবে এগিয়ে আসায় প্রশংসায় ভাসছেন তারা। আগামীতেও দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশনা মোতাবেক এভাবে অসহায় মানুষের পাশে তারা এমন নির্ভরশীলতার প্রতীক হয়ে দাঁড়াবেন বলেই তারা প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন।

স্থানীয় কয়েকজন বলেন, সবসময় দেখি নেতারা বিভিন্ন ভাবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ায়। এবার সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম দেখছি, নেতারা অসহায় কৃষকের ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছেন। এভাবে আমাদের সবাইকে সবার পাশে দাঁড়ানো উচিত।

জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক এইচ এম ফারুক বলেন, বর্তমানে শ্রমিকের মজুরি অনেক বেশি আবার সার বীজ কীটনাশকেরও দাম সব মিলে কৃষক বিপদে আছে। বেশি মজুরিতে শ্রমিক নিয়ে ওই দুই কৃষক তাদের সোনালী স্বপ্ন ঘরে তুলতে পারছিলেন না। তাই কৃষকের কথা ভেবে আমাদের প্রিয় নেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা নির্দেশনা দিয়েছেন কৃষকের পাশে দাড়াতে। বঙ্গকন্যার নির্দেশনা মোতাবেক আমি আমার সহকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে এই উদ্যোগ গ্রহণ করি। ধান কাটার পর ওই কৃষক খুশি হয়েছেন তাতেই আমাদের আনন্দ। আমরা অতি অসহায় কৃষক খুঁজে খুঁজে আরো ধান কেটে বেব ইনশাআল্লাহ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

ময়মনসিংহে কৃষক বাবুলের ধান কেটে দিলো যুবলীগ নেতাকর্মীরা

আপডেট সময় : ০৪:৫৯:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২৩

ময়মনসিংহ সদরে কৃষকের জমির বোরো ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিয়েছেন জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক এইচ এম ফারুক এর নেতৃত্বে জেলা ও সদর উপজেলা যুবলীগের নেতাকর্মীরা। শনিবার (২৯এপ্রিল) সকালে মধ্যবাড়েড়ার দুস্থ কৃষক বাবুল মুন্সির ৮ কাঠা জমির ধান কেটে তুলে দেয় নেতৃবৃন্দরা। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত একটানা কাজ করে দুই কৃষকের পাকা ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দেন তারা।

জানা গেছে, কালবৈশাখী ঝড় ও শিলাবৃষ্টির শঙ্কায় জমির পাকা ধান তোলা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন কৃষক বাবুল মিয়া। বিষয়টি জানতে পেরে তাদের জমির বোরো ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দেন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক এইচ এম ফারুকের নেতৃত্বে জেলা উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের নেতৃবৃন্দরা।

এসময় জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক এইচ এম ফারুক, যুবলীগ নেতা কাজল,একে আকাশ,রাজীবসহ নেতাকর্মীরা।

কৃষক বাবুল মিয়া বলেন, কয়েকদিন ধরে ধানগুলা কাটার জন্য মানুষ খুঁজতেছি। আগে দিন হাজিরা ৪০০ টাকা দিয়ে লোক পাওয়া যাইতো এখন সবাই ৭০০ করে টাকা দাবি করছে। আমি এতো টাকা দিয়ে লোক নিয়ে কীভাবে কাটবো সেই চিন্তায় ছিলাম। বিষয়টি যুবলীগ নেতা এইচ এম ফারুক শুনে তারা কয়েকজন আমার ধান কেটে বাড়িতে এনে দিয়েছেন। আল্লাহ তাদের ভালো করুক।

এদিকে দরিদ্র দুই কৃষকের পাশে এভাবে এগিয়ে আসায় প্রশংসায় ভাসছেন তারা। আগামীতেও দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশনা মোতাবেক এভাবে অসহায় মানুষের পাশে তারা এমন নির্ভরশীলতার প্রতীক হয়ে দাঁড়াবেন বলেই তারা প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন।

স্থানীয় কয়েকজন বলেন, সবসময় দেখি নেতারা বিভিন্ন ভাবে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ায়। এবার সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম দেখছি, নেতারা অসহায় কৃষকের ধান কেটে বাড়িতে পৌঁছে দিয়েছেন। এভাবে আমাদের সবাইকে সবার পাশে দাঁড়ানো উচিত।

জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক এইচ এম ফারুক বলেন, বর্তমানে শ্রমিকের মজুরি অনেক বেশি আবার সার বীজ কীটনাশকেরও দাম সব মিলে কৃষক বিপদে আছে। বেশি মজুরিতে শ্রমিক নিয়ে ওই দুই কৃষক তাদের সোনালী স্বপ্ন ঘরে তুলতে পারছিলেন না। তাই কৃষকের কথা ভেবে আমাদের প্রিয় নেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা নির্দেশনা দিয়েছেন কৃষকের পাশে দাড়াতে। বঙ্গকন্যার নির্দেশনা মোতাবেক আমি আমার সহকর্মীদের সঙ্গে আলোচনা করে এই উদ্যোগ গ্রহণ করি। ধান কাটার পর ওই কৃষক খুশি হয়েছেন তাতেই আমাদের আনন্দ। আমরা অতি অসহায় কৃষক খুঁজে খুঁজে আরো ধান কেটে বেব ইনশাআল্লাহ।