ঢাকা ০৩:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মামলাজট নিরসনে নতুন বিচারক নিয়োগে কাজ চলছে : প্রধান বিচারপতি

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ১০:৫৭:২৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ এপ্রিল ২০২৩ ৪৭ বার পড়া হয়েছে

প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বলেছেন, দেশে মামলার তুলনায় বিচারকের সংখ্যা খুবই কম। ফলে বাড়ছে মামলার দীর্ঘসূত্রতা। তারপরও মামলাজট কমাতে বিচারকরা সাধ্যমতো চেষ্টা করছেন।

মঙ্গলবার (১১ এপ্রিল) সকাল ১০টার দিকে মেহেরপুর জেলা জজ আদালত প্রাঙ্গণে ‘ন্যায়কুঞ্জ’ নামে বিচারপ্রার্থীদের বিশ্রামাগারের নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের সময় সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, এই দেশে ৪০ লাখ মামলার জন্য বিচারকের সংখ্যা মাত্র দুই হাজার, যা একবারেই কম। ইতোমধ্যে ১০২ জন বিচারকের নিয়োগের কাজ চলছে। যা পুলিশি তদন্তের পর্যায়ে রয়েছে। এছাড়া আরও এক শ বিচারক নিয়োগের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ রাষ্ট্রের মালিক জনগণ। আদালতে আগত বিচারপ্রার্থীদের কষ্ট লাঘবের জন্য আমরা কাজ করছি। এজন্য প্রতি জেলায় নির্মাণ করা হচ্ছে ন্যায়কুঞ্জ। এ লক্ষ্যে সরকার ৩৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। প্রতি জেলায় ন্যায়কুঞ্জ নির্মাণে ৫০ লাখ টাকা করে দেওয়া হবে। আমরা ঠিকাদারদের বলব এটি নির্মাণে যাতে কোনোরকম অপব্যবহার না হয়।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার মো. সাইফুর রহমান, হাইকোর্ট বিচার বিভাগের রেজিস্ট্রার এস কে এম তোফায়েল হাসান, মেহেরপুর জেলা ও দায়রা জজ মো. শহিদুল্লাহ, জেলা প্রশাসক আজিজুল ইমলাম, পুলিশ সুপার রাফিউল আলম, জেলা জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট পল্লব ভট্টাচার্য, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খ.ম ইমতিয়াজ বিন হারুন জুয়েল প্রমুখ।

ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে প্রধান বিচারপতি মেহেরপুরের বিচারক ও আইনজীবীদের সঙ্গে পৃথকভাবে মত বিনিময় করেন। পরে তিনি মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

মামলাজট নিরসনে নতুন বিচারক নিয়োগে কাজ চলছে : প্রধান বিচারপতি

আপডেট সময় : ১০:৫৭:২৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ এপ্রিল ২০২৩

প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বলেছেন, দেশে মামলার তুলনায় বিচারকের সংখ্যা খুবই কম। ফলে বাড়ছে মামলার দীর্ঘসূত্রতা। তারপরও মামলাজট কমাতে বিচারকরা সাধ্যমতো চেষ্টা করছেন।

মঙ্গলবার (১১ এপ্রিল) সকাল ১০টার দিকে মেহেরপুর জেলা জজ আদালত প্রাঙ্গণে ‘ন্যায়কুঞ্জ’ নামে বিচারপ্রার্থীদের বিশ্রামাগারের নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের সময় সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, এই দেশে ৪০ লাখ মামলার জন্য বিচারকের সংখ্যা মাত্র দুই হাজার, যা একবারেই কম। ইতোমধ্যে ১০২ জন বিচারকের নিয়োগের কাজ চলছে। যা পুলিশি তদন্তের পর্যায়ে রয়েছে। এছাড়া আরও এক শ বিচারক নিয়োগের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ রাষ্ট্রের মালিক জনগণ। আদালতে আগত বিচারপ্রার্থীদের কষ্ট লাঘবের জন্য আমরা কাজ করছি। এজন্য প্রতি জেলায় নির্মাণ করা হচ্ছে ন্যায়কুঞ্জ। এ লক্ষ্যে সরকার ৩৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। প্রতি জেলায় ন্যায়কুঞ্জ নির্মাণে ৫০ লাখ টাকা করে দেওয়া হবে। আমরা ঠিকাদারদের বলব এটি নির্মাণে যাতে কোনোরকম অপব্যবহার না হয়।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার মো. সাইফুর রহমান, হাইকোর্ট বিচার বিভাগের রেজিস্ট্রার এস কে এম তোফায়েল হাসান, মেহেরপুর জেলা ও দায়রা জজ মো. শহিদুল্লাহ, জেলা প্রশাসক আজিজুল ইমলাম, পুলিশ সুপার রাফিউল আলম, জেলা জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট পল্লব ভট্টাচার্য, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খ.ম ইমতিয়াজ বিন হারুন জুয়েল প্রমুখ।

ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে প্রধান বিচারপতি মেহেরপুরের বিচারক ও আইনজীবীদের সঙ্গে পৃথকভাবে মত বিনিময় করেন। পরে তিনি মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।