ঢাকা ০৫:৩৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মাগুরা মার্কা নির্বাচন আগামীকাল হবে না : ওবায়দুল কাদের

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৭:০৯:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩ ৯০ বার পড়া হয়েছে

৫ আসনে উপ-নির্বাচনে প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মাগুরা মার্কা ফি স্টাইলে নির্বাচন আর হবে না। আগামীকাল নির্বাচন নির্বাচনের মতোই হবে। আওয়ামী লীগের লোকদের সমর্থন দেওয়ার সুযোগ আছে। আমরা সমর্থন দিয়েছি, তারে মানে এই নয় যে নির্বাচন অন্য রকম হবে। আগামীকালকের নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। মির্জা ফখরুল কালকের নির্বাচন দেখুন।

দেশব্যাপী বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্য ও অগ্নি সন্ত্রাসের প্রতিবাদে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের আয়োজিত শান্তি সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। মঙ্গলবার (৩১ জানুয়ারি) বিকেলে তিব্বত কলোনি বাজার সংলগ্ন রাস্তায় এ শান্তি সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির আন্দোলনের কী খবর? কী খবর? সবাই বলে ভুয়া। সরকার পতন, ১০ তারিখের লাল কার্ড, বিএনপির ৫৪ দল, বিএনপির ২৭ দফা, ১০ দফা, ১৪ দফা, অবশেষে পদযাত্রা, ভুয়া। ভুয়া। ভুয়া। মানুষের শক্তি যখন কমে আসে তার মুখের বিষ তখন উগরে ওঠে। বিএনপির নেতাদের শক্তি কমে আসছে, দম ফুরিয়ে আসছে, দম ফুরিয়ে গেছে বলে লাফালাফি বন্ধ করে এখন নীরব পদযাত্রা। কেউ মারা গেলে যেমন নীরব পদযাত্রা হয় বিএনপির পদযাত্রাটা অনেকটা একইরকম। এ দিয়ে সরকার পতনের স্বপ্ন ভুয়া।

মির্জা ফখরুল ভিশন খেপে গেছেন উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুল গোসসা হয়ে গেছেন। তিনি বলছেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নির্বাচন নাকি মাগুরার উপ-নির্বাচনের দাদা, নির্বাচন কিন্তু এখনো হয়নি। নির্বাচন হবে আগামীকাল। সকাল ১০টার মধ্যে ভোট শেষ, ১০টার পরে আর ভোট নেই, সেই নির্বাচন হবে না। মাগুরা মার্কা ফি স্টাইল নির্বাচন আগামীতে আর হবে না। ফখরুল সাহেব, মাগুরা স্টাইলের নির্বাচন হবে না। মাগুরার দাদাও হবে না, নানাও হবে না। সেখানে আমাদের কোনো প্রার্থী নেই তবে একজনকে সমর্থন দিয়েছি আমরা। তার অর্থ এই নয়, আমরা নির্বাচনের নিয়ম লঙ্ঘন করছি। ফখরুল সাহেব আগামীকাল সকাল থেকে সারাদিন নির্বাচন দেখেন। মাগুরার নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হবে, আমি আজই বলে দিচ্ছি। আওয়ামী লীগ সরকার কোনো প্রকার হস্তক্ষেপ করবে না।

তিনি আরও বলেন, খেলা তো হবে, রেডি আছেন? আসল খেলা আগামী জানুয়ারিতে, ফাইনাল খেলা আগামী নির্বাচন। খেলা হবে। নৌকা চলছে, চলবে নৌকা। তৈয়ার হয়ে যান, অন্ধকারে আর ফিরে যাব না। লন্ডনে বসে হুংকার দিচ্ছেন টেকব্যাক বাংলাদেশ। কোথায় টেকব্যাক? আলো থেকে অন্ধকারে? আলো থেকে অন্ধকারে বাংলাদেশ আর ফিরে যাবে না।

সেতুমন্ত্রী বলেন, যারা বাংলা ভাই, শায়েখ রহমান সৃষ্টি করেছে, যারা জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করেছে, যারা সাম্প্রদায়িকতার উত্থান ঘটিয়েছে আমার এই জন্মভূমিতে, সেই অন্ধকার যুগে বাংলাদেশ আর ফিরে যাবে না।

তারেক রহমানকে কাপুরুষের আখ্যা দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সৎ-সাহস থাকলে আসুন, লন্ডন থেকে হুংকার ছাড়ুন, দেশে আসুন। সৎ সাহস থাকলে এখানে এসে রাজনীতি করুন। আপনি তো কাপুরুষ। রাজনীতি আর করব না মুচলেখা দিয়ে জরুরি সরকারের কাছে লন্ডনে পাড়ি জমিয়েছেন। ২০০৭ থেকে ১৫-১৬ বছর। তিনি আর ফিরে আসেন না।

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমানের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান কামাল। সমাবেশ পরিচালনা করেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএম মান্নান কচি প্রমুখ।

উল্লেখ্য, বিএনপির এমপিদের পদত্যাগের ফলে শূন্য হওয়া জাতীয় সংসদের ৫টি আসনে উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ আগামীকাল (১ ফেব্রুয়ারি) অনুষ্ঠিত হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

মাগুরা মার্কা নির্বাচন আগামীকাল হবে না : ওবায়দুল কাদের

আপডেট সময় : ০৭:০৯:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩

৫ আসনে উপ-নির্বাচনে প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মাগুরা মার্কা ফি স্টাইলে নির্বাচন আর হবে না। আগামীকাল নির্বাচন নির্বাচনের মতোই হবে। আওয়ামী লীগের লোকদের সমর্থন দেওয়ার সুযোগ আছে। আমরা সমর্থন দিয়েছি, তারে মানে এই নয় যে নির্বাচন অন্য রকম হবে। আগামীকালকের নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। মির্জা ফখরুল কালকের নির্বাচন দেখুন।

দেশব্যাপী বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্য ও অগ্নি সন্ত্রাসের প্রতিবাদে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের আয়োজিত শান্তি সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। মঙ্গলবার (৩১ জানুয়ারি) বিকেলে তিব্বত কলোনি বাজার সংলগ্ন রাস্তায় এ শান্তি সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির আন্দোলনের কী খবর? কী খবর? সবাই বলে ভুয়া। সরকার পতন, ১০ তারিখের লাল কার্ড, বিএনপির ৫৪ দল, বিএনপির ২৭ দফা, ১০ দফা, ১৪ দফা, অবশেষে পদযাত্রা, ভুয়া। ভুয়া। ভুয়া। মানুষের শক্তি যখন কমে আসে তার মুখের বিষ তখন উগরে ওঠে। বিএনপির নেতাদের শক্তি কমে আসছে, দম ফুরিয়ে আসছে, দম ফুরিয়ে গেছে বলে লাফালাফি বন্ধ করে এখন নীরব পদযাত্রা। কেউ মারা গেলে যেমন নীরব পদযাত্রা হয় বিএনপির পদযাত্রাটা অনেকটা একইরকম। এ দিয়ে সরকার পতনের স্বপ্ন ভুয়া।

মির্জা ফখরুল ভিশন খেপে গেছেন উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুল গোসসা হয়ে গেছেন। তিনি বলছেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নির্বাচন নাকি মাগুরার উপ-নির্বাচনের দাদা, নির্বাচন কিন্তু এখনো হয়নি। নির্বাচন হবে আগামীকাল। সকাল ১০টার মধ্যে ভোট শেষ, ১০টার পরে আর ভোট নেই, সেই নির্বাচন হবে না। মাগুরা মার্কা ফি স্টাইল নির্বাচন আগামীতে আর হবে না। ফখরুল সাহেব, মাগুরা স্টাইলের নির্বাচন হবে না। মাগুরার দাদাও হবে না, নানাও হবে না। সেখানে আমাদের কোনো প্রার্থী নেই তবে একজনকে সমর্থন দিয়েছি আমরা। তার অর্থ এই নয়, আমরা নির্বাচনের নিয়ম লঙ্ঘন করছি। ফখরুল সাহেব আগামীকাল সকাল থেকে সারাদিন নির্বাচন দেখেন। মাগুরার নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হবে, আমি আজই বলে দিচ্ছি। আওয়ামী লীগ সরকার কোনো প্রকার হস্তক্ষেপ করবে না।

তিনি আরও বলেন, খেলা তো হবে, রেডি আছেন? আসল খেলা আগামী জানুয়ারিতে, ফাইনাল খেলা আগামী নির্বাচন। খেলা হবে। নৌকা চলছে, চলবে নৌকা। তৈয়ার হয়ে যান, অন্ধকারে আর ফিরে যাব না। লন্ডনে বসে হুংকার দিচ্ছেন টেকব্যাক বাংলাদেশ। কোথায় টেকব্যাক? আলো থেকে অন্ধকারে? আলো থেকে অন্ধকারে বাংলাদেশ আর ফিরে যাবে না।

সেতুমন্ত্রী বলেন, যারা বাংলা ভাই, শায়েখ রহমান সৃষ্টি করেছে, যারা জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করেছে, যারা সাম্প্রদায়িকতার উত্থান ঘটিয়েছে আমার এই জন্মভূমিতে, সেই অন্ধকার যুগে বাংলাদেশ আর ফিরে যাবে না।

তারেক রহমানকে কাপুরুষের আখ্যা দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সৎ-সাহস থাকলে আসুন, লন্ডন থেকে হুংকার ছাড়ুন, দেশে আসুন। সৎ সাহস থাকলে এখানে এসে রাজনীতি করুন। আপনি তো কাপুরুষ। রাজনীতি আর করব না মুচলেখা দিয়ে জরুরি সরকারের কাছে লন্ডনে পাড়ি জমিয়েছেন। ২০০৭ থেকে ১৫-১৬ বছর। তিনি আর ফিরে আসেন না।

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমানের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান কামাল। সমাবেশ পরিচালনা করেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএম মান্নান কচি প্রমুখ।

উল্লেখ্য, বিএনপির এমপিদের পদত্যাগের ফলে শূন্য হওয়া জাতীয় সংসদের ৫টি আসনে উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ আগামীকাল (১ ফেব্রুয়ারি) অনুষ্ঠিত হবে।