ঢাকা ০৪:৩৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারত সফর নিয়ে কাল সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ১০:০৪:১৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১১ বার পড়া হয়েছে

চলতি মাসে দুই বার প্রতিবেশী দেশ ভারতে সফর করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামীকাল মঙ্গলবার (২৫ জুন) এ বিষয়ে জানাতে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী।

সোমবার (২৪ জুন) বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে জানানো হয়েছে,মঙ্গলবার বেলা ১১টায় গণভবনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে গত ২১-২২ জুন নয় দিল্লিতে রাষ্ট্রীয় সফর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। টানা তৃতীয় মেয়াদে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) সরকার গঠনের পর নয়া দিল্লিতে এটিই কোনো সরকারপ্রধানের প্রথম দ্বিপক্ষীয় সফর।

এর আগে নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে গত ৯ জুন বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকারের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানেও যোগ দেন শেখ হাসিনা। ১৫ দিনের কম সময়ের মধ্যে এটি প্রধানমন্ত্রীর দ্বিতীয় সফর।

প্রধানমন্ত্রীর এবারের ভারত সফর বেশ গুরুত্ব পেয়েছে। প্রায় দুই বছর পর প্রতিবেশী দুই দেশের সরকারপ্রধান দ্বিপক্ষীয় বিষয় নিয়ে বৈঠকে বসেন। নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে একান্ত বৈঠকের পর ১০টি বিষয়ে সমাঝোতা স্মারক সই হয়েছে। এছাড়া ১৩টি সুনির্দিষ্ট ঘোষণা এসেছে। বাংলাদেশ ও ভারত উভয় সরকারই এই সফরকে ফলপ্রসূ বলে আখ্যায়িত করেছে। এই সফরের ফলে প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে বিদ্যমান বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আর গভীর হবে বলে মনে করছে দুই দেশই।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর নিয়ে বিরোধীদের সমালোচনাও রয়েছে। বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, এবারের সফর ব্যর্থ হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে থাকা তিস্তা চুক্তির কোনো অগ্রগতি হয়নি। উল্টো ভারতের ট্রেন বাংলাদেশের ওপর দিয়ে চলাচলের যে অনুমোদন দেওয়ার আলোচনা হচ্ছে তাতে দেশের সার্বভৌমত্ব হুমকির মুখে বলে অভিযোগ বিরোধী কারও কারও।

যদিও সরকারের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, এবারের সফর অত্যন্ত চমৎকার ও ফলপ্রসূ হয়েছে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এবারের সফরে বাংলাদেশের অর্জন অনেক। তিনি জানান, এই সফরে ১০টি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে এবং ১৩টি সুনির্দিষ্ট ঘোষণা এসেছে।

সোমবার (২৪ জুন) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সফল রাষ্ট্রনায়ক বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সর্বদা দেশ ও জনগণের মর্যাদা ও স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিয়ে সরকার পরিচালনা করেন। রাষ্ট্র পরিচালনায় অভ্যন্তরীণ ও পররাষ্ট্র যেকোনো নীতিতে তাঁর প্রধান বিবেচ্য দেশের জনগণের স্বার্থ ও নিরাপত্তা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক ভারত সফরও এর ব্যতিক্রম নয়।’

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর ছিল অত্যন্ত চমৎকার, ফলপ্রসূ ও আন্তরিকতাপূর্ণ। এই সফরে দুই দেশের সম্পর্কের অগ্রগতি ও অর্জনগুলো স্পষ্টভাবে উঠে এসেছে। যেখানে ১০টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে এবং ১৩টি সুনির্দিষ্ট ঘোষণা এসেছে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ভারত সফর নিয়ে কাল সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় : ১০:০৪:১৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪

চলতি মাসে দুই বার প্রতিবেশী দেশ ভারতে সফর করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামীকাল মঙ্গলবার (২৫ জুন) এ বিষয়ে জানাতে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী।

সোমবার (২৪ জুন) বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে জানানো হয়েছে,মঙ্গলবার বেলা ১১টায় গণভবনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে গত ২১-২২ জুন নয় দিল্লিতে রাষ্ট্রীয় সফর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। টানা তৃতীয় মেয়াদে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) সরকার গঠনের পর নয়া দিল্লিতে এটিই কোনো সরকারপ্রধানের প্রথম দ্বিপক্ষীয় সফর।

এর আগে নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে গত ৯ জুন বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকারের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানেও যোগ দেন শেখ হাসিনা। ১৫ দিনের কম সময়ের মধ্যে এটি প্রধানমন্ত্রীর দ্বিতীয় সফর।

প্রধানমন্ত্রীর এবারের ভারত সফর বেশ গুরুত্ব পেয়েছে। প্রায় দুই বছর পর প্রতিবেশী দুই দেশের সরকারপ্রধান দ্বিপক্ষীয় বিষয় নিয়ে বৈঠকে বসেন। নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে একান্ত বৈঠকের পর ১০টি বিষয়ে সমাঝোতা স্মারক সই হয়েছে। এছাড়া ১৩টি সুনির্দিষ্ট ঘোষণা এসেছে। বাংলাদেশ ও ভারত উভয় সরকারই এই সফরকে ফলপ্রসূ বলে আখ্যায়িত করেছে। এই সফরের ফলে প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে বিদ্যমান বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আর গভীর হবে বলে মনে করছে দুই দেশই।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর নিয়ে বিরোধীদের সমালোচনাও রয়েছে। বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, এবারের সফর ব্যর্থ হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে থাকা তিস্তা চুক্তির কোনো অগ্রগতি হয়নি। উল্টো ভারতের ট্রেন বাংলাদেশের ওপর দিয়ে চলাচলের যে অনুমোদন দেওয়ার আলোচনা হচ্ছে তাতে দেশের সার্বভৌমত্ব হুমকির মুখে বলে অভিযোগ বিরোধী কারও কারও।

যদিও সরকারের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, এবারের সফর অত্যন্ত চমৎকার ও ফলপ্রসূ হয়েছে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, এবারের সফরে বাংলাদেশের অর্জন অনেক। তিনি জানান, এই সফরে ১০টি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে এবং ১৩টি সুনির্দিষ্ট ঘোষণা এসেছে।

সোমবার (২৪ জুন) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সফল রাষ্ট্রনায়ক বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সর্বদা দেশ ও জনগণের মর্যাদা ও স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিয়ে সরকার পরিচালনা করেন। রাষ্ট্র পরিচালনায় অভ্যন্তরীণ ও পররাষ্ট্র যেকোনো নীতিতে তাঁর প্রধান বিবেচ্য দেশের জনগণের স্বার্থ ও নিরাপত্তা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক ভারত সফরও এর ব্যতিক্রম নয়।’

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর ছিল অত্যন্ত চমৎকার, ফলপ্রসূ ও আন্তরিকতাপূর্ণ। এই সফরে দুই দেশের সম্পর্কের অগ্রগতি ও অর্জনগুলো স্পষ্টভাবে উঠে এসেছে। যেখানে ১০টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে এবং ১৩টি সুনির্দিষ্ট ঘোষণা এসেছে।’