ঢাকা ০৮:৪৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বুরকিনা ফাসোতে এবার মসজিদে হামলা, বহু নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ১০:৫৭:৪৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ২২ বার পড়া হয়েছে

গির্জায় হামলার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই পশ্চিম আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোতে নামাজের সময় মসজিদে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে বহু মুসল্লি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অনেক। ফজরের নামাজের সময় এই হামলার ঘটনা ঘটে।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গির্জায় হামলা চালিয়ে হত্যাকাণ্ডের ঘটনার একইদিনে একটি মসজিদে কয়েক ডজন লোককে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে বলে বুরকিনা ফাসোর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। ভোরে নামাজের সময় বন্দুকধারীরা আফ্রিকার এই দেশটির নাতিয়াবোয়ানি শহরের ওই মসজিদটি ঘিরে ফেলে।

স্থানীয় এক বাসিন্দা বার্তাসংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ‘নিহতরা সবাই মুসলিম, তাদের বেশিরভাগই পুরুষ।’

বুরকিনা ফাসোর এক তৃতীয়াংশেরও বেশি এলাকা বর্তমানে ইসলামপন্থি বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। হামলাকারীরা ইসলামপন্থি যোদ্ধা বলে সন্দেহ করা হচ্ছে, তারা একই দিনে স্থানীয়ভাবে অবস্থানরত সৈন্য এবং মিলিশিয়াকেও লক্ষ্যবস্তু করে।

স্থানীয় মিডিয়া জানিয়েছে, মোটরবাইকে করে এবং মেশিনগান নিয়ে শত শত জঙ্গি মসজিদটিতে আক্রমণ চালায়। সোশ্যাল মিডিয়ায় অযাচাইকৃত বিভিন্ন প্রতিবেদনে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে, মসজিদে হামলায় নিহতের সংখ্যা কর্মকর্তাদের দেওয়া সংখ্যার চেয়ে অনেক বেশি হতে পারে।

এর আগে দেশটির একটি ক্যাথলিক গির্জায় হামলার ঘটনায় কমপক্ষে ১৫ জন নিহত হয়।

দুটি হামলার মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও কোনো যোগসূত্র পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে বুরকিনা ফাসোর ব্যক্তিগত মালিকানাধীন ল’অবজারভেটর পালগা সংবাদপত্র প্রশ্ন করেছে যে তারা একটি সমন্বিত চক্রান্তের অংশ ছিল কিনা।

বুরকিনা ফাসোতে ধর্মীয় ব্যক্তিত্বদের উপর হামলা অস্বাভাবিক নয়।পাঁচ বছর আগে উত্তরাঞ্চলীয় শহর জিবো থেকে অপহরণ করা একজন পুরোহিত এখনও নিখোঁজ। ২০২১ সালে একই শহরের জিবোর প্রধান ইমামকে সশস্ত্র লোকেরা অপহরণ করে এবং কয়েক দিন পরে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়।

মানবিক কর্মীরা বলছেন, বুর্কিনা ফাসোতে যে সংকট চলছে, তাকে অবহেলা করছে বিশ্ব।

বছরের পর বছর ধরে ব্যাপক নিরাপত্তাহীনতার কারণে দুই মিলিয়নেরও বেশি লোককে তাদের বাড়িঘর ছেড়ে দিতে বাধ্য করেছে, এবং জাতিসংঘ অনুমান করেছে যে পাঁচ বছরের কম বয়সী সব শিশুর এক চতুর্থাংশ ক্ষুধার কারণে ঠিকমতো বৃদ্ধি হচ্ছে না।

সামরিক বাহিনী দুই বছর আগে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়ী হওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতা দখল করে। তারপরও সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বুরকিনা ফাসোতে এবার মসজিদে হামলা, বহু নিহত

আপডেট সময় : ১০:৫৭:৪৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

গির্জায় হামলার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই পশ্চিম আফ্রিকার দেশ বুরকিনা ফাসোতে নামাজের সময় মসজিদে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে বহু মুসল্লি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অনেক। ফজরের নামাজের সময় এই হামলার ঘটনা ঘটে।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গির্জায় হামলা চালিয়ে হত্যাকাণ্ডের ঘটনার একইদিনে একটি মসজিদে কয়েক ডজন লোককে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে বলে বুরকিনা ফাসোর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। ভোরে নামাজের সময় বন্দুকধারীরা আফ্রিকার এই দেশটির নাতিয়াবোয়ানি শহরের ওই মসজিদটি ঘিরে ফেলে।

স্থানীয় এক বাসিন্দা বার্তাসংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ‘নিহতরা সবাই মুসলিম, তাদের বেশিরভাগই পুরুষ।’

বুরকিনা ফাসোর এক তৃতীয়াংশেরও বেশি এলাকা বর্তমানে ইসলামপন্থি বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। হামলাকারীরা ইসলামপন্থি যোদ্ধা বলে সন্দেহ করা হচ্ছে, তারা একই দিনে স্থানীয়ভাবে অবস্থানরত সৈন্য এবং মিলিশিয়াকেও লক্ষ্যবস্তু করে।

স্থানীয় মিডিয়া জানিয়েছে, মোটরবাইকে করে এবং মেশিনগান নিয়ে শত শত জঙ্গি মসজিদটিতে আক্রমণ চালায়। সোশ্যাল মিডিয়ায় অযাচাইকৃত বিভিন্ন প্রতিবেদনে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে, মসজিদে হামলায় নিহতের সংখ্যা কর্মকর্তাদের দেওয়া সংখ্যার চেয়ে অনেক বেশি হতে পারে।

এর আগে দেশটির একটি ক্যাথলিক গির্জায় হামলার ঘটনায় কমপক্ষে ১৫ জন নিহত হয়।

দুটি হামলার মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও কোনো যোগসূত্র পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে বুরকিনা ফাসোর ব্যক্তিগত মালিকানাধীন ল’অবজারভেটর পালগা সংবাদপত্র প্রশ্ন করেছে যে তারা একটি সমন্বিত চক্রান্তের অংশ ছিল কিনা।

বুরকিনা ফাসোতে ধর্মীয় ব্যক্তিত্বদের উপর হামলা অস্বাভাবিক নয়।পাঁচ বছর আগে উত্তরাঞ্চলীয় শহর জিবো থেকে অপহরণ করা একজন পুরোহিত এখনও নিখোঁজ। ২০২১ সালে একই শহরের জিবোর প্রধান ইমামকে সশস্ত্র লোকেরা অপহরণ করে এবং কয়েক দিন পরে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়।

মানবিক কর্মীরা বলছেন, বুর্কিনা ফাসোতে যে সংকট চলছে, তাকে অবহেলা করছে বিশ্ব।

বছরের পর বছর ধরে ব্যাপক নিরাপত্তাহীনতার কারণে দুই মিলিয়নেরও বেশি লোককে তাদের বাড়িঘর ছেড়ে দিতে বাধ্য করেছে, এবং জাতিসংঘ অনুমান করেছে যে পাঁচ বছরের কম বয়সী সব শিশুর এক চতুর্থাংশ ক্ষুধার কারণে ঠিকমতো বৃদ্ধি হচ্ছে না।

সামরিক বাহিনী দুই বছর আগে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়ী হওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতা দখল করে। তারপরও সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে।