ঢাকা ০৫:০৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের ১০০টি এশিয়ায়, ভারতেই ৮৩টি

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৩:৩১:৪৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ মার্চ ২০২৪ ৭৪ বার পড়া হয়েছে

বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায় থাকা ১০০ শহরেরই অবস্থান এশিয়ার। এর মধ্যে তালিকায় থাকা শহরগুলোর মধ্যে ৮৩টির অবস্থানই ভারতে। এক প্রতিবেদনে এমনটি জানিয়েছে বিশ্বব্যাপী বায়ুর গুণমান ট্র্যাক করা ওয়েবসাইট আইকিউ এয়ার।

২০২৩ সালে বায়ুদূষণের শিকার বিশ্বের সবচেয়ে খারাপ ১০০টি শহরের মধ্যে কেবল একটি বাদে বাকি সবগুলোই ছিল এশিয়ায়। জলবায়ু সংকট খারাপ বায়ুর গুণমানে একটি মুখ্য ভূমিকা পালন করছে যা বিশ্বব্যাপী কোটি কোটি মানুষের স্বাস্থ্যকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছে।

খবরে বলা হয়েছে, ভারতের ৮৩ শহরের সবকটি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বায়ু মানের নির্দেশিকাকে ১০ গুণেরও বেশি অতিক্রম করেছে। গবেষণাটিতে নজর রাখা হয়েছে বিশেষভাবে সূক্ষ্ম কণা পদার্থ বা পিএম ২.৫ এর দিকে যা সবচেয়ে ক্ষুদ্রতম দূষণকারী কিন্তু সবচেয়ে বিপজ্জনক পদার্থ।

আই কিউ এয়ারের গ্লোবাল সিইও ফ্রাঙ্ক হ্যামস বলেন, ‘আমরা দেখতে পাচ্ছি যে, আমাদের জীবনের প্রতিটি অংশে বায়ু দূষণের প্রভাব রয়েছে। সবচেয়ে দূষিত কিছু দেশে, সম্ভবত তিন থেকে ছয় বছরের মানব জীবনে এর প্রভাব সবথেকে বেশি । যদি বায়ুর গুণমান উন্নত না হয় তাহলে বিষয়টি মানবজাতিকে বহু বছরের দুর্ভোগের দিকে পরিচালিত করবে যা অপ্রতিরোধযোগ্য।’

জীবাশ্ম জ্বালানি দহন, ধুলো ঝড় এবং দাবানল থেকে ক্ষতিকারক পিএম ২.৫ ধূলিকণা শিশুদের শ্বাস-প্রশ্বাসের অসুস্থতা, ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগের কারণ হতে পারে।

উত্তর ভারতের বিহার রাজ্যের ৫ লাখ লোকের শহর বেগুসরাই গত বছর বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহর ছিল। যার গড় বার্ষিক পিএম ২.৫ ধূলিকণার ঘনত্ব ছিল ১১৮.৯, যা ডব্লিউএইচওর নির্দেশিকার তুলনায় ২৩ গুণ বেশি। একই চিত্র দেখা যায় ভারতীয় শহর গুয়াহাটি, আসাম, দিল্লি এবং পাঞ্জাবের মুল্লানপুরে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ভারতের মোট জনসংখ্যার ৯৬ শতাংশই ডব্লিউএইচওর নির্দেশিকার তুলনায় সাত গুণ বেশি বায়ুর গুণমান নিয়ে বাস করে।

গত বছর বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে খারাপ বায়ুমানের অঞ্চল হিসেবে মধ্য ও দক্ষিণ এশিয়ায় উঠে এসেছিল বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত এবং তাজিকিস্তানের নাম।

হ্যামস বলেছেন যে, শক্তি অবকাঠামো এবং কৃষিকাজে বড় পরিবর্তন ছাড়া এই অঞ্চলে দূষণের মাত্রায় কোন উল্লেখযোগ্য উন্নতি হতে পারে না।

হ্যামসের মতে, বিশ্বের অনেক অংশে যা উদ্বেগজনক তা হল, যে জিনিসগুলি বাইরের বায়ু দূষণের কারণ হয় তা কখনও কখনও এমন জিনিস যা অভ্যন্তরীণ বায়ু দূষণের কারণ হয়। সুতরাং নোংরা জ্বালানি দিয়ে রান্না করা আপনি বাইরে থেকে যা দেখছেন তার চেয়েও অনেক গুণ বেশি খারাপ পরিণতি ডেকে আনতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের ১০০টি এশিয়ায়, ভারতেই ৮৩টি

আপডেট সময় : ০৩:৩১:৪৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ মার্চ ২০২৪

বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের তালিকায় থাকা ১০০ শহরেরই অবস্থান এশিয়ার। এর মধ্যে তালিকায় থাকা শহরগুলোর মধ্যে ৮৩টির অবস্থানই ভারতে। এক প্রতিবেদনে এমনটি জানিয়েছে বিশ্বব্যাপী বায়ুর গুণমান ট্র্যাক করা ওয়েবসাইট আইকিউ এয়ার।

২০২৩ সালে বায়ুদূষণের শিকার বিশ্বের সবচেয়ে খারাপ ১০০টি শহরের মধ্যে কেবল একটি বাদে বাকি সবগুলোই ছিল এশিয়ায়। জলবায়ু সংকট খারাপ বায়ুর গুণমানে একটি মুখ্য ভূমিকা পালন করছে যা বিশ্বব্যাপী কোটি কোটি মানুষের স্বাস্থ্যকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছে।

খবরে বলা হয়েছে, ভারতের ৮৩ শহরের সবকটি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বায়ু মানের নির্দেশিকাকে ১০ গুণেরও বেশি অতিক্রম করেছে। গবেষণাটিতে নজর রাখা হয়েছে বিশেষভাবে সূক্ষ্ম কণা পদার্থ বা পিএম ২.৫ এর দিকে যা সবচেয়ে ক্ষুদ্রতম দূষণকারী কিন্তু সবচেয়ে বিপজ্জনক পদার্থ।

আই কিউ এয়ারের গ্লোবাল সিইও ফ্রাঙ্ক হ্যামস বলেন, ‘আমরা দেখতে পাচ্ছি যে, আমাদের জীবনের প্রতিটি অংশে বায়ু দূষণের প্রভাব রয়েছে। সবচেয়ে দূষিত কিছু দেশে, সম্ভবত তিন থেকে ছয় বছরের মানব জীবনে এর প্রভাব সবথেকে বেশি । যদি বায়ুর গুণমান উন্নত না হয় তাহলে বিষয়টি মানবজাতিকে বহু বছরের দুর্ভোগের দিকে পরিচালিত করবে যা অপ্রতিরোধযোগ্য।’

জীবাশ্ম জ্বালানি দহন, ধুলো ঝড় এবং দাবানল থেকে ক্ষতিকারক পিএম ২.৫ ধূলিকণা শিশুদের শ্বাস-প্রশ্বাসের অসুস্থতা, ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগের কারণ হতে পারে।

উত্তর ভারতের বিহার রাজ্যের ৫ লাখ লোকের শহর বেগুসরাই গত বছর বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহর ছিল। যার গড় বার্ষিক পিএম ২.৫ ধূলিকণার ঘনত্ব ছিল ১১৮.৯, যা ডব্লিউএইচওর নির্দেশিকার তুলনায় ২৩ গুণ বেশি। একই চিত্র দেখা যায় ভারতীয় শহর গুয়াহাটি, আসাম, দিল্লি এবং পাঞ্জাবের মুল্লানপুরে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ভারতের মোট জনসংখ্যার ৯৬ শতাংশই ডব্লিউএইচওর নির্দেশিকার তুলনায় সাত গুণ বেশি বায়ুর গুণমান নিয়ে বাস করে।

গত বছর বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে খারাপ বায়ুমানের অঞ্চল হিসেবে মধ্য ও দক্ষিণ এশিয়ায় উঠে এসেছিল বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত এবং তাজিকিস্তানের নাম।

হ্যামস বলেছেন যে, শক্তি অবকাঠামো এবং কৃষিকাজে বড় পরিবর্তন ছাড়া এই অঞ্চলে দূষণের মাত্রায় কোন উল্লেখযোগ্য উন্নতি হতে পারে না।

হ্যামসের মতে, বিশ্বের অনেক অংশে যা উদ্বেগজনক তা হল, যে জিনিসগুলি বাইরের বায়ু দূষণের কারণ হয় তা কখনও কখনও এমন জিনিস যা অভ্যন্তরীণ বায়ু দূষণের কারণ হয়। সুতরাং নোংরা জ্বালানি দিয়ে রান্না করা আপনি বাইরে থেকে যা দেখছেন তার চেয়েও অনেক গুণ বেশি খারাপ পরিণতি ডেকে আনতে পারে।