ঢাকা ০৭:৫৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিএনপির আন্দোলনে সরকার ভীতসন্ত্রস্ত: আব্বাস

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৯:৪৩:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ৭৯ বার পড়া হয়েছে

বিএনপির আন্দোলনে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। তিনি বলেছেন, বিএনপি নেতাকর্মীরা এমন দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলেছে যার ফলে সরকার এবং সরকারের নেতাকর্মীরা ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে। তাই সরকার বিএনপিকে প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়েছে। এর থেকে গর্বের বিএনপির জন্য আর কিছু হতে পারে না।

বৃহস্পতিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক প্রতিবাদ সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর মুক্তি দাবিতে এই প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলন নামে একটি সংগঠন।

আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্য করে মির্জা আব্বাস বলেন, এই দানবীয় সরকারের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে এ কথা বিএনপি বলেছিল এখনো বিএনপি বলছে। বাংলাদেশকে আমরা হায়েনার হাত থেকে মুক্ত করব।

মির্জা আব্বাস বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের সাহেব বলেছেন- নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হওয়ার অবস্থা সংবিধানে নেই। আমরা বলতে চাই নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই হতে হবে। কারণ এই তত্ত্বাবধায়ক সরকার এই সংবিধানেই ছিল। এই তত্ত্বাবধায়ক সরকার জামায়াত এবং আওয়ামী লীগের দাবি নিয়েই প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এই মুহূর্তে দরকার তত্ত্বাবধায়ক সরকার কার দাবি ছিল; জামায়াত এবং আওয়ামী লীগের।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়াকে আজকে স্মরণ করতে হয়। কারণ উনি দেশকে ভালোবাসেন‌। উনিও পারতেন গোলাগুলি খুনাখুনি করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে, কিন্তু উনি সেটা করেননি। তত্ত্বাবধায়ক সরকার সংবিধানে সংযুক্ত করলেন। নির্বাচন দিলেন, সেই নির্বাচনে আপনারা (আওয়ামী লীগ) পাস করলেন। এরপর আপনারা ক্ষমতায় এসে সেই সংবিধান কাটাছেঁড়া করে বারোটা বাজিয়ে দিয়ে এখন সেখান থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিল করে দিয়েছেন। আবার বলছেন সংবিধানের বাইরে কোনো নির্বাচন করার অবস্থা নেই। আমরাও বলতে চাই সংবিধানের বাইরে যেতে চাই না, আমরা চাই যে সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছিল, সেই সংবিধানই আপনারা করবেন। যে সংবিধান আছে সেই সংবিধান নয়। যেই সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছিল সেই সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে।’

আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, বিএনপির নেতাকর্মীরা খুন-গুম গ্রেফতারের ভয় পায় না। আপনাদের প্রতিহত করার মতো শক্তি এবং সামর্থ্য বিএনপি রাখে।

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারীর সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও ছিলেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানুল্লাহ আমান, ঢাকা দক্ষিণের রফিকুল আলম মজনু, স্বেচ্ছাসেবক দলের রাজীব আহসান, মহিলা দলের আফরোজা আব্বাস, ওলামা দলের অধ্যক্ষ মাওলানা মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বিএনপির আন্দোলনে সরকার ভীতসন্ত্রস্ত: আব্বাস

আপডেট সময় : ০৯:৪৩:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

বিএনপির আন্দোলনে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। তিনি বলেছেন, বিএনপি নেতাকর্মীরা এমন দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলেছে যার ফলে সরকার এবং সরকারের নেতাকর্মীরা ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে। তাই সরকার বিএনপিকে প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়েছে। এর থেকে গর্বের বিএনপির জন্য আর কিছু হতে পারে না।

বৃহস্পতিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক প্রতিবাদ সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর মুক্তি দাবিতে এই প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলন নামে একটি সংগঠন।

আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্য করে মির্জা আব্বাস বলেন, এই দানবীয় সরকারের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে এ কথা বিএনপি বলেছিল এখনো বিএনপি বলছে। বাংলাদেশকে আমরা হায়েনার হাত থেকে মুক্ত করব।

মির্জা আব্বাস বলেন, ‘ওবায়দুল কাদের সাহেব বলেছেন- নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হওয়ার অবস্থা সংবিধানে নেই। আমরা বলতে চাই নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই হতে হবে। কারণ এই তত্ত্বাবধায়ক সরকার এই সংবিধানেই ছিল। এই তত্ত্বাবধায়ক সরকার জামায়াত এবং আওয়ামী লীগের দাবি নিয়েই প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এই মুহূর্তে দরকার তত্ত্বাবধায়ক সরকার কার দাবি ছিল; জামায়াত এবং আওয়ামী লীগের।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়াকে আজকে স্মরণ করতে হয়। কারণ উনি দেশকে ভালোবাসেন‌। উনিও পারতেন গোলাগুলি খুনাখুনি করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে, কিন্তু উনি সেটা করেননি। তত্ত্বাবধায়ক সরকার সংবিধানে সংযুক্ত করলেন। নির্বাচন দিলেন, সেই নির্বাচনে আপনারা (আওয়ামী লীগ) পাস করলেন। এরপর আপনারা ক্ষমতায় এসে সেই সংবিধান কাটাছেঁড়া করে বারোটা বাজিয়ে দিয়ে এখন সেখান থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিল করে দিয়েছেন। আবার বলছেন সংবিধানের বাইরে কোনো নির্বাচন করার অবস্থা নেই। আমরাও বলতে চাই সংবিধানের বাইরে যেতে চাই না, আমরা চাই যে সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছিল, সেই সংবিধানই আপনারা করবেন। যে সংবিধান আছে সেই সংবিধান নয়। যেই সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছিল সেই সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে।’

আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, বিএনপির নেতাকর্মীরা খুন-গুম গ্রেফতারের ভয় পায় না। আপনাদের প্রতিহত করার মতো শক্তি এবং সামর্থ্য বিএনপি রাখে।

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারীর সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও ছিলেন চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানুল্লাহ আমান, ঢাকা দক্ষিণের রফিকুল আলম মজনু, স্বেচ্ছাসেবক দলের রাজীব আহসান, মহিলা দলের আফরোজা আব্বাস, ওলামা দলের অধ্যক্ষ মাওলানা মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার প্রমুখ।