ঢাকা ১১:১৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::

বাজেটে রেকর্ড বরাদ্দ বাড়ল ক্রীড়া খাতে

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ১১:৫৫:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ জুন ২০২৪ ১৫ বার পড়া হয়েছে

দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। যা দেশের ৫৩তম এবং আওয়ামী লীগ সরকারের ২৫তম বাজেট। বৃহস্পতিবার (৬ জুন) বিকেলে পেশ করা এই বাজেট নিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে পাওয়া যাচ্ছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। অর্থনীতিবিদেরা বলছেন, বড় আকারের এই বাজেট বাস্তবায়ন করা সরকারের পক্ষে বড় চ্যালেঞ্জ হবে।

বিশেষ করে কর আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা হবে বড় চ্যালেঞ্জের ব্যাপার। তবে শেষ পর্যন্ত এই বাজেট বাস্তবায়ন করা গেলে সামগ্রিকভাবে তা অর্থনীতির জন্য ভালো হবে বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এবারের বাজেটের আকার ধরা হয়েছে যাচ্ছে ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা। নতুন অর্থবছরে সরকার ব্যয় বাড়াতে চায় আগের বছরের (২০২৩-২৪) চেয়ে প্রায় ৩৬ হাজার কোটি টাকা। ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেটের আকার ছিল ৭ লাখ ৬১ হাজার কোটি টাকা।

ক্রীড়া খাতে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের জন্য বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে ২ হাজার ২১২কোটি টাকা। বিদায়ী অর্থবছরের বরাদ্দে প্রস্তাব করা হয়েছিল ১ হাজার ৩০৩ কোটি টাকা। যা পরে সংশোধিত বাজেটে বেড়ে দাঁড়িয়েছিল ১ হাজার ৫১৭ কোটি টাকায়। যা আগের বাজেটের চেয়ে ৬৯৫ কোটি টাকা বেশি। ফলে এবারের ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে বাজেট বেড়েছে।

এবারের বাজেটে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘সরকার ক্রীড়ার মানোন্নয়ন ও খেলাধুলার সুযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে ক্রীড়া ক্লাবে ক্রীড়া সামগ্রী ও আর্থিক অনুদান প্রদানসহ আধুনিক স্টেডিয়াম, জিমনেসিয়াম, সুইমিং পুলসহ বিভিন্ন ক্রীড়া অবকাঠামো নির্মাণ ও উন্নয়ন করে আসছে।’

‘২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে ক্রীড়া অবকাঠামো নির্মাণ ও উন্নয়নের জন্য ১৩টি প্রকল্প চালু রয়েছে, যার মধ্যে মাঠ পর্যায়ে খেলাধুলা উৎসাহিত করার লক্ষ্যে অন্যতম হচ্ছে ‘উপজেলা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ’ প্রকল্প। এ ধারাবাহিকতায় আগামী বাজেটে বিভিন্ন ক্রীড়া অবকাঠামো নির্মাণসহ যুব ও ক্রীড়ার উন্নয়নে ২০টি প্রকল্প গ্রহণের প্রস্তাব করছি।’

‘পাশাপাশি, দক্ষ খেলোয়াড় তৈরির লক্ষ্যে দক্ষ ও অভিজ্ঞ প্রশিক্ষক দ্বারা ক্রীড়া প্রতিভা অন্বেষণের মাধ্যমে বিভিন্ন বিভাগ থেকে মাধ্যমে প্রতিভাবান খেলোয়াড় খুঁজে বের করে তাদের দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে।’

‘এছাড়াও, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক খেলাধুলার আয়োজন ও অংশগ্রহণের জন্য বিভিন্ন ক্রীড়া ফেডারেশন, অ্যাসোসিয়েশন ও সংস্থাসমূহকে নিয়মিত আর্থিক অনুদান ও ক্রীড়া সামগ্রী প্রদান করা হচ্ছে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বাজেটে রেকর্ড বরাদ্দ বাড়ল ক্রীড়া খাতে

আপডেট সময় : ১১:৫৫:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ জুন ২০২৪

দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। যা দেশের ৫৩তম এবং আওয়ামী লীগ সরকারের ২৫তম বাজেট। বৃহস্পতিবার (৬ জুন) বিকেলে পেশ করা এই বাজেট নিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে পাওয়া যাচ্ছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। অর্থনীতিবিদেরা বলছেন, বড় আকারের এই বাজেট বাস্তবায়ন করা সরকারের পক্ষে বড় চ্যালেঞ্জ হবে।

বিশেষ করে কর আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা হবে বড় চ্যালেঞ্জের ব্যাপার। তবে শেষ পর্যন্ত এই বাজেট বাস্তবায়ন করা গেলে সামগ্রিকভাবে তা অর্থনীতির জন্য ভালো হবে বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এবারের বাজেটের আকার ধরা হয়েছে যাচ্ছে ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা। নতুন অর্থবছরে সরকার ব্যয় বাড়াতে চায় আগের বছরের (২০২৩-২৪) চেয়ে প্রায় ৩৬ হাজার কোটি টাকা। ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেটের আকার ছিল ৭ লাখ ৬১ হাজার কোটি টাকা।

ক্রীড়া খাতে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের জন্য বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে ২ হাজার ২১২কোটি টাকা। বিদায়ী অর্থবছরের বরাদ্দে প্রস্তাব করা হয়েছিল ১ হাজার ৩০৩ কোটি টাকা। যা পরে সংশোধিত বাজেটে বেড়ে দাঁড়িয়েছিল ১ হাজার ৫১৭ কোটি টাকায়। যা আগের বাজেটের চেয়ে ৬৯৫ কোটি টাকা বেশি। ফলে এবারের ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে বাজেট বেড়েছে।

এবারের বাজেটে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘সরকার ক্রীড়ার মানোন্নয়ন ও খেলাধুলার সুযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে ক্রীড়া ক্লাবে ক্রীড়া সামগ্রী ও আর্থিক অনুদান প্রদানসহ আধুনিক স্টেডিয়াম, জিমনেসিয়াম, সুইমিং পুলসহ বিভিন্ন ক্রীড়া অবকাঠামো নির্মাণ ও উন্নয়ন করে আসছে।’

‘২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে ক্রীড়া অবকাঠামো নির্মাণ ও উন্নয়নের জন্য ১৩টি প্রকল্প চালু রয়েছে, যার মধ্যে মাঠ পর্যায়ে খেলাধুলা উৎসাহিত করার লক্ষ্যে অন্যতম হচ্ছে ‘উপজেলা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ’ প্রকল্প। এ ধারাবাহিকতায় আগামী বাজেটে বিভিন্ন ক্রীড়া অবকাঠামো নির্মাণসহ যুব ও ক্রীড়ার উন্নয়নে ২০টি প্রকল্প গ্রহণের প্রস্তাব করছি।’

‘পাশাপাশি, দক্ষ খেলোয়াড় তৈরির লক্ষ্যে দক্ষ ও অভিজ্ঞ প্রশিক্ষক দ্বারা ক্রীড়া প্রতিভা অন্বেষণের মাধ্যমে বিভিন্ন বিভাগ থেকে মাধ্যমে প্রতিভাবান খেলোয়াড় খুঁজে বের করে তাদের দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে।’

‘এছাড়াও, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক খেলাধুলার আয়োজন ও অংশগ্রহণের জন্য বিভিন্ন ক্রীড়া ফেডারেশন, অ্যাসোসিয়েশন ও সংস্থাসমূহকে নিয়মিত আর্থিক অনুদান ও ক্রীড়া সামগ্রী প্রদান করা হচ্ছে।’