ঢাকা ০৯:১২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফোন কেনার আগে যা জানা দরকার

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৩:০৪:০৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ মার্চ ২০২৩ ১০৩ বার পড়া হয়েছে

দৈনন্দিন জীবনের কাজকর্মে একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে স্মার্টফোন। তাই সবদিক থেকে এই ডিভাইসটি ভালো হওয়া আবশ্যক। অন্যথায় বিভিন্ন ধরণের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। বাজারে বিভিন্ন ফিচার্সের বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোবাইল রয়েছে। তাই কোন ফোনটি কিনবেন, সেটা নিয়ে সমস্যায় পড়তে হয়। চলুন জেনে নিই ফোন কেনার আগে যা জানা দরকার।

স্মার্টফোন কেনার আগে প্রথমেই জানতে হবে স্মার্টফোন কেনার উদ্দেশ্য কী। গেইম খেলার জন্য স্মার্টফোন কিনতে চাইলে প্রসেসর, স্টোরেজ, র‍্যাম, ডিসপ্লে —এই ৪টি বিষয়ের উপর নজর দিতে হবে।

আবার প্রধান উদ্দেশ্য শুধু ফটোগ্রাফি হলে ক্যামেরা, স্টোরেজসহ সফটওয়্যার অপটিমাইজেশনের দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

অনেকে আবার দীর্ঘ সময় ব্যবহারের উদ্দেশ্যে শুধুমাত্র ব্যাটারি ব্যাকআপকেই গুরুত্ব দেন। এক্ষেত্রে মোবাইল কেনার আগে প্রসেসর, ব্যাটারি ও সফটওয়্যার অপটিমাইজেশনের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। আবার অনেকে ব্যাটারি ব্যাকআপ, গেইম, ফটোগ্রাফি সবকিছুই মোটামুটি ভাল চান।
প্রসেসর

প্রসেসরকে স্মার্টফোনের মস্তিষ্ক বলা হয়ে থাকে। স্মার্টফোনের সব কমান্ড প্রসেসরের মাধ্যমেই প্রসেসিং হয়। প্রসেসর কেনার সময় পুরাতন মডেলের প্রসেসর না কেনাই ভালো। কিনলেও এক বছরের চেয়ে পুরনো যেন না হয়। কারণ, নতুন প্রসেসর নেটওয়ার্ক স্পীড, গেমিং পারফরম্যান্স, ক্যামেরা পারফরম্যান্স, ব্যাটারি ব্যাকআপসহ সবকিছুর উপরই প্রভাব রাখে। তবে ভালো প্রসেসর বাছাই করতে ৩টি বিষয় দেখতে হবে।

১. কোর সংখ্যা: প্রসেসরের কোর সংখ্যা যত বেশি হয়, স্মার্টফোন তত দ্রুত কাজ করে। প্রসঙ্গত, ডুয়েল কোর মানে ২টি কোর, কোয়াড কোর মানে ৪টি কোর এবং অক্টা কোর মানে ৮টি কোর।

২. ক্লকস্পীড: গেমিং স্মার্টফোনে ক্লকস্পীডের দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। ক্লকস্পীড যত বেশি হবে গেমিং পারফরম্যান্স তত ভালো হবে।

৩. ন্যানোমিটার প্রযুক্তি: ভালো প্রসেসর ক্ষেত্রে ন্যানোমিটার প্রযুক্তি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণত প্রসেসরে ন্যানোমিটার প্রযুক্তি যত কম হবে স্মার্টফোন তত দ্রুত হয়। পাশাপাশি ব্যাটারি ব্যাকআপও তত ভাল হয়।

ন্যানোমিটার দিয়ে প্রসেসর এর ভেতরে থাকা ট্রানজিস্টর এর দূরত্ব বোঝায়। এক ট্রানজিস্টর থেকে অন্য একটি ট্রানজিস্টরের দূরত্ব যত কম হবে ডাটা ট্রান্সফার রেটও তত দ্রুত হবে। ফলে শক্তি কম খরচ হবে। যেমন— ১১ ন্যনোমিটার প্রযুক্তির একটি প্রসেসরের চেয়ে ৭ ন্যানোমিটার প্রযুক্তির প্রসেসর দ্রুত হবে ও ব্যাটারির চার্জও কম খরচ হবে।

র‍্যাম

স্মার্টফোনে র‍্যাম বেশ গুরুত্বপূর্ণ। প্রচলিত ধারণায় র‍্যাম যত বেশি হবে মোবাইলের পারফরম্যান্সও তত বেশি হবে। কিন্তু তা পুরোপুরি সঠিক নয়। র‍্যামের সংখ্যার পাশাপাশি র‍্যামের ধরণও দেখতে হবে।

যদি একটি স্মার্টফোনের র‍্যাম ৮ জিবি আর র‍্যামের ধরণ এলপি ডিডিআর৪ (LP- DDR4) হয় তাহলে স্পীড হবে (৩২০০×৮) বা ২৫৬০০ এমবিপিএস (MBPS)। আবার অন্য একটি স্মার্টফোনের ৪ জিবি র‍্যামের ধরণ যদি এলপি ডিডিআর৫ (LP-DDR5) হয় তাহলে স্পীড হবে (৬৪০০×৪) =২৫৬০০ এমবিপিএস (MBPS)। শুধুমাত্র র‍্যামের ধরণের কারণে ৮ জিবি এবং ৪ জিবি র‍্যামের স্পীড সমান হয়ে যায়।

এলপি ডিডিআর৪ র‍্যামের চেয়ে এলপি ডিডিআর৫ কম শক্তি খরচ করে। ফলে ব্যাটারি ব্যাকআপও বাড়ে। র‍্যামের ধরণ যত নতুন হয় ব্যাটারি ব্যাকআপ, পারফরম্যান্স ও মাল্টিটাস্কিং তত ভাল হয়।

স্টোরেজ

প্রসেসরের পর স্টোরেজ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। স্টোরেজের ক্ষেত্রেও র‍্যামের মত ভুল ধারনা রয়েছে। স্টোরেজের পরিমাণের চেয়ে স্টোরেজের ধরণ গুরুত্বপূর্ণ।

ইএমএমসি (EMMC) টাইপের স্টোরেজ অনেক পুরাতন। এই ধরণের টাইপের স্টোরেজে ক্যামেরা পারফরম্যান্স, গেইম পারফরম্যান্স, ব্যাটারি ব্যাকআপ ইউএফএস (UFS) টাইপের স্টোরেজের তুলনায় অনেক খারাপ। তাছাড়া ইউএফএস টাইপের স্টোরেজে অনেক ফিচার সাপোর্ট করে।

স্টোরেজ টাইপের উপর ২টি বিষয় নির্ভর করে— ক্যামেরা পারফরম্যান্স ও গেইম পারফরম্যান্স।

ডিসপ্লে

স্মার্টফোনে স্বাচ্ছন্দ্যে ভিডিও দেখতে ভালো ডিসপ্লের বিকল্প নেই। ভালো ডিসপ্লে বাছাইয়ের ক্ষেত্রে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো— ডিসপ্লে নিটস, টাচ স্যাম্পলিং রেট, ডিসপ্লে টাইপ ও ডিসপ্লে রেজুলেশন।

ডিসপ্লে নিটস: স্মার্টফোনে ডিসপ্লের ব্রাইটনেস কত নিটস তা দেখতে হবে। যত বেশি নিটস, তত বেশি ব্রাইটনেস। যাদের বেশি ব্রাইটনেস প্রয়োজন, বিশেষত যারা দিনে বাইরে কাজ করেন তাদের জন্য ডিসপ্লের নিটস খেয়াল করা প্রয়োজন।

টাচ স্যাম্পলিং রেট: টাচ স্যাম্পলিং রেট খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। টাচ স্যাম্পলিং রেট যত বেশি হবে, স্মার্টফোন ব্যবহার করতে তত বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন।

ডিসপ্লে টাইপ: মোবাইলের জন্য ভাল ডিসপ্লে টাইপ হলো অ্যামোলেড (AMOLED)। যারা রাতেই বেশি মোবাইল ব্যবহার করেন তাদের জন্য অ্যামোলেড ডিসপ্লে ভালো। এছাড়াও অ্যামোলেড ডিসপ্লের ব্যাটারি ব্যাকআপ, ভিউয়িং অ্যংগেল ও ডিটেইলস এলসিডি (LCD) ডিসপ্লের চেয়ে ভালো। তাছাড়া অ্যামোলেড স্মার্টফোন এলসিডি স্মার্টফোনের চেয়ে ওজনে অনেক হালকা।

ডিসপ্লে রেজুলেশন: ডিসপ্লের রেজুলেশনও খুব গুরুত্বপূর্ণ। ডিসপ্লে রেজুলেশন ও পিপিআই যত বেশি হবে ডিসপ্লের কোয়ালিটি ততই ভাল হবে।

রিফ্রেশ রেট: গেইমারদের জন্য ডিসপ্লের রিফ্রেশ রেট গুরুত্বপূর্ণ। এটির হার্জ যত বেশি ততই ভাল। তবে সাধারণ ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে রিফ্রেশ রেট তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়।

ক্যামেরা

ক্যামেরার মেগাপিক্সেল বেশি হলে ছবি ভালো হবে, এই ধারনাটি সম্পূর্ণ ঠিক নয়। তবে মেগাপিক্সেলের একটি বিশেষ গুরুত্ব আছে।ছবি কত বড় প্রিন্ট করা যাবে তা মেগাপিক্সেল দিয়ে নির্ধারিত হয়। এতে স্টোরেজ লাগে অনেক বেশি। তাই ক্যামেরা বাছাইয়ের ক্ষেত্রে তিনটি বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য রাখতে হবে।

ক্যামেরা হার্ডওয়্যার: ক্যামেরার লেন্স, ইমেজ সেন্সর এক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সনি এবং স্যামসাং এর কিছু ইমেজ সেন্সর রয়েছে যেগুলো খুবই ভাল। এছাড়া ক্যামেরার অ্যাপারচার, ফোকাল লেন্থও গুরুত্বপূর্ণ। ক্যামেরার অ্যাপারচার যত কম হবে, কম আলোতে ছবি তত ভাল উঠবে।

স্টোরেজ টাইপ: লেটেস্ট স্টোরেজ টাইপ ব্যবহার করলে ছবির প্রসেসিং খুবই ভাল হয়। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, ছবি তোলার সময় খুবই সুন্দর দেখায় কিন্তু তোলার পর আগের মত সুন্দর দেখায় না। ইএমএমসি বা পুরনো টাইপের স্টোরেজ ব্যবহার করলে এমন সমস্যা হয়।

সফটওয়্যার অপটিমাইজেশন: ছবিতে ডিটেইল, ডায়নামিক রেঞ্জ, ডেপথ, ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশন ইত্যাদির জন্য ভাল ইমেজ প্রসেসিং বা সফটওয়্যার অপটিমাইজেশন প্রয়োজন।
ব্যাটারি

ব্যাটারি ব্যাকআপ শুধুমাত্র সাইজের উপর নির্ভর করে না। অনেক সময় দেখা যায়, ৫০০০ এমএএইচ (MAH) হওয়া সত্ত্বেও ৪০০০ এমএএইচ ব্যটারির স্মার্টফোনের আগেই ব্যাটারি ব্যাকআপ শেষ হয়ে যায়। মোবাইলের জন্য সবচেয়ে ভাল ব্যাটারি বাছাইয়ের ক্ষেত্রে কয়েকটি বিষয় খুব গুরুত্বপূর্ণ।

ব্যাটারির সাইজ: সাধারণত ব্যাটারির সাইজ বা ক্ষমতা অর্থাৎ এমএএইচ যত বেশি ব্যাটারি ব্যাকআপও তত বেশি হয়।

প্রসেসর: প্রসেসরের যদি ন্যানোমিটার প্রযুক্তি কম থাকে তাহলে ব্যাটারি ব্যাকআপ বেশি হয়।

এছাড়া সফটওয়্যার অপটিমাইজেশন, ডিসপ্লের ধরন, র‍্যাম এবং স্টোরেজও ব্যাটারি ব্যাকআপের উপর প্রভাব ফেলে।

সফটওয়্যার আপডেট

মোবাইলে সফটওয়্যার আপডেট একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান দীর্ঘ সময় ধরে সফটওয়্যার আপডেট দেয়, সেদিকে নজর দেওয়া উত্তম। সফটওয়্যার আপডেটের মাধ্যমে মোবাইলে অনেক সফটওয়্যারজনিত ত্রুটি সমাধান হয়ে যায়। পাশাপাশি নতুন ফিচার যুক্ত করা হয়।

বিক্রয় পরবর্তী সেবা

নতুন মোবাইলের বিক্রয় পরবর্তী সেবা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। স্মার্টফোন কেনার পরও অনেক সমস্যা হতে পারে। তাই কোনো স্মার্টফোন কেনার পর সেই নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের বিক্রয় পরবর্তী সেবা ভাল কিনা সেটি জেনে নিতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ফোন কেনার আগে যা জানা দরকার

আপডেট সময় : ০৩:০৪:০৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ মার্চ ২০২৩

দৈনন্দিন জীবনের কাজকর্মে একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে স্মার্টফোন। তাই সবদিক থেকে এই ডিভাইসটি ভালো হওয়া আবশ্যক। অন্যথায় বিভিন্ন ধরণের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। বাজারে বিভিন্ন ফিচার্সের বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোবাইল রয়েছে। তাই কোন ফোনটি কিনবেন, সেটা নিয়ে সমস্যায় পড়তে হয়। চলুন জেনে নিই ফোন কেনার আগে যা জানা দরকার।

স্মার্টফোন কেনার আগে প্রথমেই জানতে হবে স্মার্টফোন কেনার উদ্দেশ্য কী। গেইম খেলার জন্য স্মার্টফোন কিনতে চাইলে প্রসেসর, স্টোরেজ, র‍্যাম, ডিসপ্লে —এই ৪টি বিষয়ের উপর নজর দিতে হবে।

আবার প্রধান উদ্দেশ্য শুধু ফটোগ্রাফি হলে ক্যামেরা, স্টোরেজসহ সফটওয়্যার অপটিমাইজেশনের দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

অনেকে আবার দীর্ঘ সময় ব্যবহারের উদ্দেশ্যে শুধুমাত্র ব্যাটারি ব্যাকআপকেই গুরুত্ব দেন। এক্ষেত্রে মোবাইল কেনার আগে প্রসেসর, ব্যাটারি ও সফটওয়্যার অপটিমাইজেশনের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। আবার অনেকে ব্যাটারি ব্যাকআপ, গেইম, ফটোগ্রাফি সবকিছুই মোটামুটি ভাল চান।
প্রসেসর

প্রসেসরকে স্মার্টফোনের মস্তিষ্ক বলা হয়ে থাকে। স্মার্টফোনের সব কমান্ড প্রসেসরের মাধ্যমেই প্রসেসিং হয়। প্রসেসর কেনার সময় পুরাতন মডেলের প্রসেসর না কেনাই ভালো। কিনলেও এক বছরের চেয়ে পুরনো যেন না হয়। কারণ, নতুন প্রসেসর নেটওয়ার্ক স্পীড, গেমিং পারফরম্যান্স, ক্যামেরা পারফরম্যান্স, ব্যাটারি ব্যাকআপসহ সবকিছুর উপরই প্রভাব রাখে। তবে ভালো প্রসেসর বাছাই করতে ৩টি বিষয় দেখতে হবে।

১. কোর সংখ্যা: প্রসেসরের কোর সংখ্যা যত বেশি হয়, স্মার্টফোন তত দ্রুত কাজ করে। প্রসঙ্গত, ডুয়েল কোর মানে ২টি কোর, কোয়াড কোর মানে ৪টি কোর এবং অক্টা কোর মানে ৮টি কোর।

২. ক্লকস্পীড: গেমিং স্মার্টফোনে ক্লকস্পীডের দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। ক্লকস্পীড যত বেশি হবে গেমিং পারফরম্যান্স তত ভালো হবে।

৩. ন্যানোমিটার প্রযুক্তি: ভালো প্রসেসর ক্ষেত্রে ন্যানোমিটার প্রযুক্তি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণত প্রসেসরে ন্যানোমিটার প্রযুক্তি যত কম হবে স্মার্টফোন তত দ্রুত হয়। পাশাপাশি ব্যাটারি ব্যাকআপও তত ভাল হয়।

ন্যানোমিটার দিয়ে প্রসেসর এর ভেতরে থাকা ট্রানজিস্টর এর দূরত্ব বোঝায়। এক ট্রানজিস্টর থেকে অন্য একটি ট্রানজিস্টরের দূরত্ব যত কম হবে ডাটা ট্রান্সফার রেটও তত দ্রুত হবে। ফলে শক্তি কম খরচ হবে। যেমন— ১১ ন্যনোমিটার প্রযুক্তির একটি প্রসেসরের চেয়ে ৭ ন্যানোমিটার প্রযুক্তির প্রসেসর দ্রুত হবে ও ব্যাটারির চার্জও কম খরচ হবে।

র‍্যাম

স্মার্টফোনে র‍্যাম বেশ গুরুত্বপূর্ণ। প্রচলিত ধারণায় র‍্যাম যত বেশি হবে মোবাইলের পারফরম্যান্সও তত বেশি হবে। কিন্তু তা পুরোপুরি সঠিক নয়। র‍্যামের সংখ্যার পাশাপাশি র‍্যামের ধরণও দেখতে হবে।

যদি একটি স্মার্টফোনের র‍্যাম ৮ জিবি আর র‍্যামের ধরণ এলপি ডিডিআর৪ (LP- DDR4) হয় তাহলে স্পীড হবে (৩২০০×৮) বা ২৫৬০০ এমবিপিএস (MBPS)। আবার অন্য একটি স্মার্টফোনের ৪ জিবি র‍্যামের ধরণ যদি এলপি ডিডিআর৫ (LP-DDR5) হয় তাহলে স্পীড হবে (৬৪০০×৪) =২৫৬০০ এমবিপিএস (MBPS)। শুধুমাত্র র‍্যামের ধরণের কারণে ৮ জিবি এবং ৪ জিবি র‍্যামের স্পীড সমান হয়ে যায়।

এলপি ডিডিআর৪ র‍্যামের চেয়ে এলপি ডিডিআর৫ কম শক্তি খরচ করে। ফলে ব্যাটারি ব্যাকআপও বাড়ে। র‍্যামের ধরণ যত নতুন হয় ব্যাটারি ব্যাকআপ, পারফরম্যান্স ও মাল্টিটাস্কিং তত ভাল হয়।

স্টোরেজ

প্রসেসরের পর স্টোরেজ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। স্টোরেজের ক্ষেত্রেও র‍্যামের মত ভুল ধারনা রয়েছে। স্টোরেজের পরিমাণের চেয়ে স্টোরেজের ধরণ গুরুত্বপূর্ণ।

ইএমএমসি (EMMC) টাইপের স্টোরেজ অনেক পুরাতন। এই ধরণের টাইপের স্টোরেজে ক্যামেরা পারফরম্যান্স, গেইম পারফরম্যান্স, ব্যাটারি ব্যাকআপ ইউএফএস (UFS) টাইপের স্টোরেজের তুলনায় অনেক খারাপ। তাছাড়া ইউএফএস টাইপের স্টোরেজে অনেক ফিচার সাপোর্ট করে।

স্টোরেজ টাইপের উপর ২টি বিষয় নির্ভর করে— ক্যামেরা পারফরম্যান্স ও গেইম পারফরম্যান্স।

ডিসপ্লে

স্মার্টফোনে স্বাচ্ছন্দ্যে ভিডিও দেখতে ভালো ডিসপ্লের বিকল্প নেই। ভালো ডিসপ্লে বাছাইয়ের ক্ষেত্রে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো— ডিসপ্লে নিটস, টাচ স্যাম্পলিং রেট, ডিসপ্লে টাইপ ও ডিসপ্লে রেজুলেশন।

ডিসপ্লে নিটস: স্মার্টফোনে ডিসপ্লের ব্রাইটনেস কত নিটস তা দেখতে হবে। যত বেশি নিটস, তত বেশি ব্রাইটনেস। যাদের বেশি ব্রাইটনেস প্রয়োজন, বিশেষত যারা দিনে বাইরে কাজ করেন তাদের জন্য ডিসপ্লের নিটস খেয়াল করা প্রয়োজন।

টাচ স্যাম্পলিং রেট: টাচ স্যাম্পলিং রেট খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। টাচ স্যাম্পলিং রেট যত বেশি হবে, স্মার্টফোন ব্যবহার করতে তত বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন।

ডিসপ্লে টাইপ: মোবাইলের জন্য ভাল ডিসপ্লে টাইপ হলো অ্যামোলেড (AMOLED)। যারা রাতেই বেশি মোবাইল ব্যবহার করেন তাদের জন্য অ্যামোলেড ডিসপ্লে ভালো। এছাড়াও অ্যামোলেড ডিসপ্লের ব্যাটারি ব্যাকআপ, ভিউয়িং অ্যংগেল ও ডিটেইলস এলসিডি (LCD) ডিসপ্লের চেয়ে ভালো। তাছাড়া অ্যামোলেড স্মার্টফোন এলসিডি স্মার্টফোনের চেয়ে ওজনে অনেক হালকা।

ডিসপ্লে রেজুলেশন: ডিসপ্লের রেজুলেশনও খুব গুরুত্বপূর্ণ। ডিসপ্লে রেজুলেশন ও পিপিআই যত বেশি হবে ডিসপ্লের কোয়ালিটি ততই ভাল হবে।

রিফ্রেশ রেট: গেইমারদের জন্য ডিসপ্লের রিফ্রেশ রেট গুরুত্বপূর্ণ। এটির হার্জ যত বেশি ততই ভাল। তবে সাধারণ ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে রিফ্রেশ রেট তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়।

ক্যামেরা

ক্যামেরার মেগাপিক্সেল বেশি হলে ছবি ভালো হবে, এই ধারনাটি সম্পূর্ণ ঠিক নয়। তবে মেগাপিক্সেলের একটি বিশেষ গুরুত্ব আছে।ছবি কত বড় প্রিন্ট করা যাবে তা মেগাপিক্সেল দিয়ে নির্ধারিত হয়। এতে স্টোরেজ লাগে অনেক বেশি। তাই ক্যামেরা বাছাইয়ের ক্ষেত্রে তিনটি বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য রাখতে হবে।

ক্যামেরা হার্ডওয়্যার: ক্যামেরার লেন্স, ইমেজ সেন্সর এক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সনি এবং স্যামসাং এর কিছু ইমেজ সেন্সর রয়েছে যেগুলো খুবই ভাল। এছাড়া ক্যামেরার অ্যাপারচার, ফোকাল লেন্থও গুরুত্বপূর্ণ। ক্যামেরার অ্যাপারচার যত কম হবে, কম আলোতে ছবি তত ভাল উঠবে।

স্টোরেজ টাইপ: লেটেস্ট স্টোরেজ টাইপ ব্যবহার করলে ছবির প্রসেসিং খুবই ভাল হয়। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, ছবি তোলার সময় খুবই সুন্দর দেখায় কিন্তু তোলার পর আগের মত সুন্দর দেখায় না। ইএমএমসি বা পুরনো টাইপের স্টোরেজ ব্যবহার করলে এমন সমস্যা হয়।

সফটওয়্যার অপটিমাইজেশন: ছবিতে ডিটেইল, ডায়নামিক রেঞ্জ, ডেপথ, ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশন ইত্যাদির জন্য ভাল ইমেজ প্রসেসিং বা সফটওয়্যার অপটিমাইজেশন প্রয়োজন।
ব্যাটারি

ব্যাটারি ব্যাকআপ শুধুমাত্র সাইজের উপর নির্ভর করে না। অনেক সময় দেখা যায়, ৫০০০ এমএএইচ (MAH) হওয়া সত্ত্বেও ৪০০০ এমএএইচ ব্যটারির স্মার্টফোনের আগেই ব্যাটারি ব্যাকআপ শেষ হয়ে যায়। মোবাইলের জন্য সবচেয়ে ভাল ব্যাটারি বাছাইয়ের ক্ষেত্রে কয়েকটি বিষয় খুব গুরুত্বপূর্ণ।

ব্যাটারির সাইজ: সাধারণত ব্যাটারির সাইজ বা ক্ষমতা অর্থাৎ এমএএইচ যত বেশি ব্যাটারি ব্যাকআপও তত বেশি হয়।

প্রসেসর: প্রসেসরের যদি ন্যানোমিটার প্রযুক্তি কম থাকে তাহলে ব্যাটারি ব্যাকআপ বেশি হয়।

এছাড়া সফটওয়্যার অপটিমাইজেশন, ডিসপ্লের ধরন, র‍্যাম এবং স্টোরেজও ব্যাটারি ব্যাকআপের উপর প্রভাব ফেলে।

সফটওয়্যার আপডেট

মোবাইলে সফটওয়্যার আপডেট একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান দীর্ঘ সময় ধরে সফটওয়্যার আপডেট দেয়, সেদিকে নজর দেওয়া উত্তম। সফটওয়্যার আপডেটের মাধ্যমে মোবাইলে অনেক সফটওয়্যারজনিত ত্রুটি সমাধান হয়ে যায়। পাশাপাশি নতুন ফিচার যুক্ত করা হয়।

বিক্রয় পরবর্তী সেবা

নতুন মোবাইলের বিক্রয় পরবর্তী সেবা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। স্মার্টফোন কেনার পরও অনেক সমস্যা হতে পারে। তাই কোনো স্মার্টফোন কেনার পর সেই নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের বিক্রয় পরবর্তী সেবা ভাল কিনা সেটি জেনে নিতে হবে।