ঢাকা ০৮:০৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পুঠিয়ায় চাঁদাবাজির মামলায় ছাত্রলীগ নেতা রাসেল খান আটক

পুঠিয়া প্রতিবেদকঃ
  • আপডেট সময় : ০৯:২৫:০২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৯ জানুয়ারী ২০২৩ ৭৬ বার পড়া হয়েছে

রাজশাহীর পুঠিয়ায় চাঁদাবাজির মামলায় ছাত্রলীগ নেতা রাসেল খান (২৫) কে আটক করেছে পুলিশ। রোববার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

শনিবার (৭ জানুয়ারী) রাতে পুলিশ রাসেল খানকে আটক করে। রাসেল উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পদে প্রার্থী ছিল। সে পৌর সদরের কাঠালবাড়িয়ার লিটন আলীর ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, হাওর, বায়র ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের সুবিধার জন্য টেলিফোন লাইন বসাতে বিটিসিএল এর ঠিকাদার কাজ করছে গণ্ডগোহালী গ্রামে। গতকাল শনিবার সেখানে গিয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান খন্দকার গ্রুপের ম্যানেজার সোহেল রানার কাছে মোস্তাক, টেনু ও রাসেলের নেতৃত্বে ৮/১০ জন যুবক এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। এসময় সোহেল রানা তাদের দাবি মেটাতে অস্বীকার করলে তাকে লাঠি দিয়ে মারধর করে। তাকে বাঁচাতে কর্মরত শ্রমিকরা এগিয়ে আসলে তাদেরকেও মারধর করা হয়। এসময় শাহীন, জানুবক্সসহ কয়েকজন শ্রমিক বেশ আহত হয়। এঘটনায় সোহেল রানা থানায় একটি মামলা করেন।

এ বিষয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, চাঁদাবাজির অভিযোগ পেয়ে সেই মামলায় রাসেল খানকে আটক করে রোববার জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্যান্যদের আটকের চেষ্টা চলছে। এরা সকলেই ভাড়ায় খাটে আর চাঁদাবাজি করে বলে জানতে পেরেছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

পুঠিয়ায় চাঁদাবাজির মামলায় ছাত্রলীগ নেতা রাসেল খান আটক

আপডেট সময় : ০৯:২৫:০২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৯ জানুয়ারী ২০২৩

রাজশাহীর পুঠিয়ায় চাঁদাবাজির মামলায় ছাত্রলীগ নেতা রাসেল খান (২৫) কে আটক করেছে পুলিশ। রোববার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

শনিবার (৭ জানুয়ারী) রাতে পুলিশ রাসেল খানকে আটক করে। রাসেল উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পদে প্রার্থী ছিল। সে পৌর সদরের কাঠালবাড়িয়ার লিটন আলীর ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, হাওর, বায়র ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের সুবিধার জন্য টেলিফোন লাইন বসাতে বিটিসিএল এর ঠিকাদার কাজ করছে গণ্ডগোহালী গ্রামে। গতকাল শনিবার সেখানে গিয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান খন্দকার গ্রুপের ম্যানেজার সোহেল রানার কাছে মোস্তাক, টেনু ও রাসেলের নেতৃত্বে ৮/১০ জন যুবক এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। এসময় সোহেল রানা তাদের দাবি মেটাতে অস্বীকার করলে তাকে লাঠি দিয়ে মারধর করে। তাকে বাঁচাতে কর্মরত শ্রমিকরা এগিয়ে আসলে তাদেরকেও মারধর করা হয়। এসময় শাহীন, জানুবক্সসহ কয়েকজন শ্রমিক বেশ আহত হয়। এঘটনায় সোহেল রানা থানায় একটি মামলা করেন।

এ বিষয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, চাঁদাবাজির অভিযোগ পেয়ে সেই মামলায় রাসেল খানকে আটক করে রোববার জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্যান্যদের আটকের চেষ্টা চলছে। এরা সকলেই ভাড়ায় খাটে আর চাঁদাবাজি করে বলে জানতে পেরেছি।