ঢাকা ০১:২৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পাকিস্তানে বন্দুকধারীদের গুলিতে ৮ শিক্ষক নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৫:৩২:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ মে ২০২৩ ৪৯ বার পড়া হয়েছে

পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ খাইবার পাখতুনখোয়ার আপার কুররাম তহসিলের স্কুলে গুলিবর্ষণে সাতজন শিক্ষক নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দেশটির পুলিশ এমন তথ্য দিয়েছে। এছাড়া চলন্ত পরিবহনে একজন শিক্ষক গুলিতে নিহত হন। এ নিয়ে ওই অঞ্চলে এক দিনে নিহত শিক্ষকের সংখ্যা বেড়ে হলো আটজন।

খাইবার পাখতুনখোয়ার নিরাপত্তা কর্মকর্তা বলেন, অজ্ঞাত বন্দুকধারীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ‘তরি মঙ্গল’-এর স্টাফরুমে শিক্ষকদের গুলি করে। সমস্ত শিক্ষাবিদরা তাদের পরীক্ষার দায়িত্ব পালনের জন্য ভবনে ছিলেন। কর্তৃপক্ষ এলাকার সব হাসপাতালে জরুরি অবস্থা জারি করেছে।

এদিকে পারাচিনারের অন্য একটি ঘটনায় আরও একজন শিক্ষক নিহত হন। ওই অঞ্চল আপার কুর্রাম অঞ্চলের অন্তর্গত এবং কুর্রাম জেলার রাজধানী। সেখানে একটি চলন্ত পরিবহনে একজন শিক্ষক নিহত হয়েছেন। এ নিয়ে ওই অঞ্চলে এক দিনে নিহত শিক্ষকের সংখ্যা বেড়ে হলো আটজন।

গাড়ির ভেতরে নিহত মোহাম্মদ শরিফ নামের ওই শিক্ষকও একই স্কুলের বলে জানিয়েছে পুলিশ। শালোজান রোডে যাওয়ার সময় গুলিবিদ্ধ হন ওই শিক্ষক।

এই ঘটনার পরে চলমান ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষা – যা ২৮ এপ্রিল শুরু হয়েছিল এবং ‘বোর্ড অফ ইন্টারমিডিয়েট অ্যান্ড সেকেন্ডারি এডুকেশন কোহাট’-এর তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত হচ্ছিল তা স্থগিত করা হয়। পরবর্তী বিজ্ঞপ্তি না হওয়া পর্যন্ত ওই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না।

পুলিশ খুনিদের খোঁজে তল্লাশি চালালেও এখন পর্যন্ত তাদের ধরতে পারেনি।

পাকিস্তানে স্কুলে গোলাগুলির ঘটনা বিরল। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে পেশোয়ারের একটি আর্মি স্কুলে বন্দুক ও বোমা হামলায় ১৪০ জনেরও বেশি লোক নিহত হয়েছিল। নিহতদের বেশিরভাগই ছিল ছাত্র।

পাকিস্তানি প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি বলেছেন, ‘হামলাকারীরা শিক্ষার শত্রু। শিক্ষকদের ওপর এ ধরনের হামলা নিন্দনীয় বিষয়।’ পর পর দু‘টি ঘটনায় দায়িত্বরত শিক্ষকদের হত্যার ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন তিনি।

সূত্র : জিও নিউজ

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

পাকিস্তানে বন্দুকধারীদের গুলিতে ৮ শিক্ষক নিহত

আপডেট সময় : ০৫:৩২:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ মে ২০২৩

পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ খাইবার পাখতুনখোয়ার আপার কুররাম তহসিলের স্কুলে গুলিবর্ষণে সাতজন শিক্ষক নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দেশটির পুলিশ এমন তথ্য দিয়েছে। এছাড়া চলন্ত পরিবহনে একজন শিক্ষক গুলিতে নিহত হন। এ নিয়ে ওই অঞ্চলে এক দিনে নিহত শিক্ষকের সংখ্যা বেড়ে হলো আটজন।

খাইবার পাখতুনখোয়ার নিরাপত্তা কর্মকর্তা বলেন, অজ্ঞাত বন্দুকধারীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ‘তরি মঙ্গল’-এর স্টাফরুমে শিক্ষকদের গুলি করে। সমস্ত শিক্ষাবিদরা তাদের পরীক্ষার দায়িত্ব পালনের জন্য ভবনে ছিলেন। কর্তৃপক্ষ এলাকার সব হাসপাতালে জরুরি অবস্থা জারি করেছে।

এদিকে পারাচিনারের অন্য একটি ঘটনায় আরও একজন শিক্ষক নিহত হন। ওই অঞ্চল আপার কুর্রাম অঞ্চলের অন্তর্গত এবং কুর্রাম জেলার রাজধানী। সেখানে একটি চলন্ত পরিবহনে একজন শিক্ষক নিহত হয়েছেন। এ নিয়ে ওই অঞ্চলে এক দিনে নিহত শিক্ষকের সংখ্যা বেড়ে হলো আটজন।

গাড়ির ভেতরে নিহত মোহাম্মদ শরিফ নামের ওই শিক্ষকও একই স্কুলের বলে জানিয়েছে পুলিশ। শালোজান রোডে যাওয়ার সময় গুলিবিদ্ধ হন ওই শিক্ষক।

এই ঘটনার পরে চলমান ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষা – যা ২৮ এপ্রিল শুরু হয়েছিল এবং ‘বোর্ড অফ ইন্টারমিডিয়েট অ্যান্ড সেকেন্ডারি এডুকেশন কোহাট’-এর তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত হচ্ছিল তা স্থগিত করা হয়। পরবর্তী বিজ্ঞপ্তি না হওয়া পর্যন্ত ওই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না।

পুলিশ খুনিদের খোঁজে তল্লাশি চালালেও এখন পর্যন্ত তাদের ধরতে পারেনি।

পাকিস্তানে স্কুলে গোলাগুলির ঘটনা বিরল। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে পেশোয়ারের একটি আর্মি স্কুলে বন্দুক ও বোমা হামলায় ১৪০ জনেরও বেশি লোক নিহত হয়েছিল। নিহতদের বেশিরভাগই ছিল ছাত্র।

পাকিস্তানি প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি বলেছেন, ‘হামলাকারীরা শিক্ষার শত্রু। শিক্ষকদের ওপর এ ধরনের হামলা নিন্দনীয় বিষয়।’ পর পর দু‘টি ঘটনায় দায়িত্বরত শিক্ষকদের হত্যার ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন তিনি।

সূত্র : জিও নিউজ