ঢাকা ০৪:৫০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পবিত্র শবে বরাতে ২৫ ফেব্রুয়ারি

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৯:০১:৫০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৪ বার পড়া হয়েছে

আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি রাতে পালিত হবে পবিত্র শবে বরাত। রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় শাবান মাসের চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ ঘোষণা দেয় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি।

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান সভায় সভাপতিত্ব করেন । সভায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ড. বশিরুল আলমসহ সরকারের বিভিন্ন সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও আলেম উলামারা উপস্থিত ছিলেন।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক বলেন, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর এবং মহাকাশ গবেষণা হতে প্রাপ্ত তথ্য নিয়ে পর্যালোচনা করে চাদঁ দেখার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

ফারসি ‘শব’ শব্দের অর্থ রাত আর ‘বরাত’ শব্দের অর্থ সৌভাগ্য। আরবিতে বলে ‘লাইলাতুল বরাত’, অর্থাৎ সৌভাগ্যের রাত। মহিমান্বিত এই রাতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা পরম করুণাময় মহান আল্লাহর অনুগ্রহ লাভের আশায় নফল নামাজ পড়েন, কুরআন তিলাওয়াত করেন এবং জিকিরে মগ্ন থাকেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

পবিত্র শবে বরাতে ২৫ ফেব্রুয়ারি

আপডেট সময় : ০৯:০১:৫০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি রাতে পালিত হবে পবিত্র শবে বরাত। রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় শাবান মাসের চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ ঘোষণা দেয় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি।

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান সভায় সভাপতিত্ব করেন । সভায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ড. বশিরুল আলমসহ সরকারের বিভিন্ন সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও আলেম উলামারা উপস্থিত ছিলেন।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক বলেন, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর এবং মহাকাশ গবেষণা হতে প্রাপ্ত তথ্য নিয়ে পর্যালোচনা করে চাদঁ দেখার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

ফারসি ‘শব’ শব্দের অর্থ রাত আর ‘বরাত’ শব্দের অর্থ সৌভাগ্য। আরবিতে বলে ‘লাইলাতুল বরাত’, অর্থাৎ সৌভাগ্যের রাত। মহিমান্বিত এই রাতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা পরম করুণাময় মহান আল্লাহর অনুগ্রহ লাভের আশায় নফল নামাজ পড়েন, কুরআন তিলাওয়াত করেন এবং জিকিরে মগ্ন থাকেন।