ঢাকা ০১:৪৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নৌকাকে হারিয়ে মোটরসাইকেল প্রতীকের জয়

নিজস্ব প্রতিবেদক//
  • আপডেট সময় : ০৫:১৪:১৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুলাই ২০২৩ ৪৩ বার পড়া হয়েছে

রাজশাহীর পবা উপজেলার হরিয়ান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী জেবর আলী বিজয়ী হয়েছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে ৫ হাজার ৬৭২ ভোট পেয়েছেন তিনি।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও জামায়াত নেতা জালাল উদ্দিন চশমা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫ হাজার ৭০ ভোট। এছাড়া আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবুল হোসেন পেয়েছেন ৪ হাজার ১২৯ ভোট।

সোমবার (১৭ জুলাই) দিনভর ভোটগ্রহণ ও গণনা শেষে সন্ধ্যায় ৬০২ ভোটে বেসরকারিভাবে জয়ী ঘোষণা করা হয় তাকে।

উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বেসরকারিভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার শহিদুল ইসলাম প্রামাণিক।

এর আগে, সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ৯টি কেন্দ্রে বিরতিহীনভাবে ব্যালটের মাধ্যমে চলে ভোটগ্রহণ। পরে স্ব স্ব কেন্দ্র থেকেই ফলাফল ঘোষণা করেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তারা। ৯টি কেন্দ্র থেকে পাওয়া তথ্যমতে ভোটের এ ফলাফল জানা গেছে।

এদিকে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান জেবর আলী হরিয়ান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় সম্প্রতি তাকে অব্যাহতি দিয়েছে পবা উপজেলা আওয়ামী লীগ।

উল্লেখ্য, ২০০২ সালের ১৫ ডিসেম্বর হরিয়ান ইউনিয়নের কয়েকটি মৌজা (মাসকাটাদিঘী, সমসাদিপুর, বাখরাবাদ, শ্যামপুর ও কাপাসিয়া) নিয়ে গঠিত হয় কাটাখালী পৌরসভা। স্থানীয় সরকারের প্রতিষ্ঠান গঠনের নিয়ম ও শর্তকে (সীমানা বিষয়ে) তোয়াক্কা না করে সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে কাটাখালী পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় বাঁধে বিপত্তি।

সীমানা জটিলতায় আটকে যায় ওই ইউনিয়নের ভোট গ্রহণ। সীমানা পুনঃনির্ধারণের জন্য এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে উচ্চ আদালতে আবেদন করা হয়। এছাড়াও বর্তমানে ওসব ওয়ার্ডের বেশকিছু এলাকা নদীগর্ভে বিলিন হয়েছে। এর আগে ২০১১ সালে সবশেষ হরিয়ান ইউপির ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

ফলে ভোট প্রদানের সুযোগ পেতে দীর্ঘ এক যুগ অপেক্ষা করতে হয় ভোটারদের। অবশেষে এই ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো। এক যুগ পর ভোট দিতে ভোটকেন্দ্রগুলোতে সকাল থেকেই ভোটারদের উপচেপড়া ভিড় ছিল। দিনভর উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায় নি।

নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৬ জন, সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১৯ জন এবং সাধারণ সদস্য পদে ৫১ জনসহ মোট ৭৬ জন প্রার্থী অংশ নেন। ইউনিয়ন পরিষদের মোট ভোটার সংখ্যা ১৯ হাজার ৫২৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯ হাজার ৮৫০ জন ও মহিলা ভোটার ৯ হাজার ৬৭৮ জন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

নৌকাকে হারিয়ে মোটরসাইকেল প্রতীকের জয়

আপডেট সময় : ০৫:১৪:১৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুলাই ২০২৩

রাজশাহীর পবা উপজেলার হরিয়ান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী জেবর আলী বিজয়ী হয়েছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে ৫ হাজার ৬৭২ ভোট পেয়েছেন তিনি।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও জামায়াত নেতা জালাল উদ্দিন চশমা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫ হাজার ৭০ ভোট। এছাড়া আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবুল হোসেন পেয়েছেন ৪ হাজার ১২৯ ভোট।

সোমবার (১৭ জুলাই) দিনভর ভোটগ্রহণ ও গণনা শেষে সন্ধ্যায় ৬০২ ভোটে বেসরকারিভাবে জয়ী ঘোষণা করা হয় তাকে।

উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বেসরকারিভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার শহিদুল ইসলাম প্রামাণিক।

এর আগে, সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ৯টি কেন্দ্রে বিরতিহীনভাবে ব্যালটের মাধ্যমে চলে ভোটগ্রহণ। পরে স্ব স্ব কেন্দ্র থেকেই ফলাফল ঘোষণা করেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তারা। ৯টি কেন্দ্র থেকে পাওয়া তথ্যমতে ভোটের এ ফলাফল জানা গেছে।

এদিকে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান জেবর আলী হরিয়ান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় সম্প্রতি তাকে অব্যাহতি দিয়েছে পবা উপজেলা আওয়ামী লীগ।

উল্লেখ্য, ২০০২ সালের ১৫ ডিসেম্বর হরিয়ান ইউনিয়নের কয়েকটি মৌজা (মাসকাটাদিঘী, সমসাদিপুর, বাখরাবাদ, শ্যামপুর ও কাপাসিয়া) নিয়ে গঠিত হয় কাটাখালী পৌরসভা। স্থানীয় সরকারের প্রতিষ্ঠান গঠনের নিয়ম ও শর্তকে (সীমানা বিষয়ে) তোয়াক্কা না করে সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে কাটাখালী পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় বাঁধে বিপত্তি।

সীমানা জটিলতায় আটকে যায় ওই ইউনিয়নের ভোট গ্রহণ। সীমানা পুনঃনির্ধারণের জন্য এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে উচ্চ আদালতে আবেদন করা হয়। এছাড়াও বর্তমানে ওসব ওয়ার্ডের বেশকিছু এলাকা নদীগর্ভে বিলিন হয়েছে। এর আগে ২০১১ সালে সবশেষ হরিয়ান ইউপির ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

ফলে ভোট প্রদানের সুযোগ পেতে দীর্ঘ এক যুগ অপেক্ষা করতে হয় ভোটারদের। অবশেষে এই ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো। এক যুগ পর ভোট দিতে ভোটকেন্দ্রগুলোতে সকাল থেকেই ভোটারদের উপচেপড়া ভিড় ছিল। দিনভর উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায় নি।

নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৬ জন, সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১৯ জন এবং সাধারণ সদস্য পদে ৫১ জনসহ মোট ৭৬ জন প্রার্থী অংশ নেন। ইউনিয়ন পরিষদের মোট ভোটার সংখ্যা ১৯ হাজার ৫২৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯ হাজার ৮৫০ জন ও মহিলা ভোটার ৯ হাজার ৬৭৮ জন।