ঢাকা ০৮:৩৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ত্রিশাল পৌরসভার উপনির্বাচনে জগ প্রতীককে বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ ভোটাররা

ময়মনসিংহ প্রতিবেদক:
  • আপডেট সময় : ১০:৪৩:৪২ অপরাহ্ন, সোমবার, ৪ মার্চ ২০২৪ ২৩ বার পড়া হয়েছে

ময়মনসিংহের ত্রিশাল পৌরসভার উপনির্বাচনে স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এবিএম আনিসুজ্জামান এর সহধর্মিণী নারী সমাজ সেবীকা শামীমা আক্তারের জগ প্রতীককে বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন ত্রিশালে দলীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ও বিভিন্ন পেশাশ্রেণীর ব্যক্তিবর্গরা। পৌর এলাকার চলমান উন্নয়নকে আরো এগিয়ে নিতে তারা বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ। ত্রিশাল পৌর সভার উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ আগামী ৯ মার্চ শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ৮ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত ইভিএম মেশিনের মাধ্যমে ভোট প্রয়োগ ভোটাররা। ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে নির্বাচনী এলাকা গঠিত। নারী ও পুরুষ ভোটার মিলিয়ে মোট ভোটার সংখ্যা ২৬ হাজার ৮২২।
ইতিমধ্যে নির্বাচনকে ঘিরে মেয়র প্রার্থীদের প্রচারণা তুঙ্গে।কাক ডাকা ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত চলছে ভোট সংগ্রহের চেষ্টা।পাড়া মহল্লা থেকে শুরু করে এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে ছুটে যাচ্ছেন প্রার্থী ও কর্মীরা।পোস্টার,মাইকিং এবং বিভিন্ন মাধ্যমে চলছে নির্বাচনী প্রচারণা। প্রার্থীরা দিচ্ছেন উন্নয়ন ও নানান ধরনের প্রতিশ্রুতি।শুধুমাত্র মেয়র পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।তাদের মধ্যে এক উচ্চশিক্ষিত হেভিওয়েট নারী প্রার্থী সর্বক্ষণিক নির্বাচনী মাঠ কাপাচ্ছেন।তিনি বর্তমান এমপি আলহাজ্ব এবিএম আনিছুজ্জামানের সহধর্মিণী শামীমা আক্তার। জগ প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন।তাকে বিজয়ী করতে উপজেলা আওয়ামী লীগ,শ্রমিক লীগ,স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ সহ অঙ্গসংগঠনের শীর্ষস্থানীয় নেতা থেকে শুরু করে পৌরসভার সকল কাউন্সিলর ও স্থানীয় কর্মী সমর্থকদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে।তারা সকলেই একাট্টা হয়ে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন।নেতাকর্মীরা প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত পৌর শহরের অলিগলিতে দল বেঁধে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ভোট প্রার্থনা করছেন। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তার পক্ষে নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা পরিচালনা করায় ভোটের ময়দানে শক্ত অবস্থানে আছেন।কর্মী সমর্থকদের দাবি ভোটের দিন যেতোই ঘনিয়ে আসছে শামিমার জনপ্রিয়তা ততোই বৃদ্ধি পাচ্ছে।
সরেজমিনে নির্বাচনী মাঠে ভোটারদের নিকট জানতে চাইলে ত্রিশাল পৌর সভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার আলমগীর বলেন,এমপি আনিছজ্জামানকে বিগত সময়ে তিনবার মেয়র বানিয়েছিলাম। তিনি পরীক্ষিত লোক এবং এলাকার উন্নয়নে বিশ্বাসী।সে এখন মেযর পদ থেকে পদত্যাগ করে এমপি নির্বাচিত হন। তার স্ত্রী মেয়র পদে প্রার্থী, তাকে আমরা ভোট দিয়ে বিজয়ী করবো। মাহবুব নামের জনৈক ভোটার জানান পৌরসভার উন্নয়নের স্বার্থে এমপির সহধর্মিণীকে বিজয়ী করা দরকার,তার দ্বারা পৌরসভার উন্নয়ন করা সম্ভব। পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাইফুল ইসলাম বলেন আমাদের দুই নম্বর ওয়ার্ডের অধিকাংশই ভোটার এমপির সহধর্মিনী শামীমা আক্তারের পক্ষে কাজ করছেন। ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ফরহাদ হোসেন বলেন, আমরা এলাকার উন্নয়ন চাই, এলাকার উন্নয়নের জন্য এমপি আনিছুজ্জামানের সহধর্মিণী শামীমা আক্তার একজন যোগ্যপ্রার্থী। কামাল হোসেন বলেন, এক সময় এই পৌরসভাটি খুবই অবহেলিত ছিল,আনিছ ভাই মেয়র এ দায়িত্ব থাকা অবস্থায় রাস্তাঘাট,পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা ব্যাপক উন্নয়ন করেন। এখন তার স্ত্রী মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন তিনিও বিজয়ী হলে একটি স্মার্ট পৌরসভার গঠন করবেন।শরিফা বেগম নামের জনৈক ভোটার বলেন একজন নারী মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জেনে আমরা খুশী, তাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করবো। কেরানী বাড়ি মোড়ের ইসরাফিল বলেন শামীমা আক্তার পাশ না করলে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হব। হান্নান মিয়া বলেন,আনিছ ভাই একটানা তিনবার পৌরসভার মেয়র ছিল।এখন তিনি পদত্যাগ করে সংসদ সদস্য হয়েছেন।তার অসমাপ্ত উন্নয়ন কাজগুলো বাস্তবায়ন করার জন্য তার সহধর্মিণী মেয়র পদে প্রার্থী হন। ২ নম্বর ওয়ার্ডের মহিলা ভোটার রিনি বলেন,শামীমা ভাবি উচ্চশিক্ষিত ও যোগ্য প্রার্থী,ইনশাআল্লাহ বিপুল ভোটে জয়লাভ করবেন। ত্রিশাল পৌর সভার কাউন্সিল মেহেদী হাসান নাসিম বলেন এমপি মহোদয়ের সহধর্মিণী শামীমা আক্তার একজন ভালো মনের মানুষ, তার সাথে পৌরসভার সাধারণ জনগণ আছে। ইনশাল্লাহ তিনি বিপুল ভোট পেয়ে বিজয়ী হবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ত্রিশাল পৌরসভার উপনির্বাচনে জগ প্রতীককে বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ ভোটাররা

আপডেট সময় : ১০:৪৩:৪২ অপরাহ্ন, সোমবার, ৪ মার্চ ২০২৪

ময়মনসিংহের ত্রিশাল পৌরসভার উপনির্বাচনে স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এবিএম আনিসুজ্জামান এর সহধর্মিণী নারী সমাজ সেবীকা শামীমা আক্তারের জগ প্রতীককে বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন ত্রিশালে দলীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ও বিভিন্ন পেশাশ্রেণীর ব্যক্তিবর্গরা। পৌর এলাকার চলমান উন্নয়নকে আরো এগিয়ে নিতে তারা বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ। ত্রিশাল পৌর সভার উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ আগামী ৯ মার্চ শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ৮ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত ইভিএম মেশিনের মাধ্যমে ভোট প্রয়োগ ভোটাররা। ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে নির্বাচনী এলাকা গঠিত। নারী ও পুরুষ ভোটার মিলিয়ে মোট ভোটার সংখ্যা ২৬ হাজার ৮২২।
ইতিমধ্যে নির্বাচনকে ঘিরে মেয়র প্রার্থীদের প্রচারণা তুঙ্গে।কাক ডাকা ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত চলছে ভোট সংগ্রহের চেষ্টা।পাড়া মহল্লা থেকে শুরু করে এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে ছুটে যাচ্ছেন প্রার্থী ও কর্মীরা।পোস্টার,মাইকিং এবং বিভিন্ন মাধ্যমে চলছে নির্বাচনী প্রচারণা। প্রার্থীরা দিচ্ছেন উন্নয়ন ও নানান ধরনের প্রতিশ্রুতি।শুধুমাত্র মেয়র পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।তাদের মধ্যে এক উচ্চশিক্ষিত হেভিওয়েট নারী প্রার্থী সর্বক্ষণিক নির্বাচনী মাঠ কাপাচ্ছেন।তিনি বর্তমান এমপি আলহাজ্ব এবিএম আনিছুজ্জামানের সহধর্মিণী শামীমা আক্তার। জগ প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন।তাকে বিজয়ী করতে উপজেলা আওয়ামী লীগ,শ্রমিক লীগ,স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ সহ অঙ্গসংগঠনের শীর্ষস্থানীয় নেতা থেকে শুরু করে পৌরসভার সকল কাউন্সিলর ও স্থানীয় কর্মী সমর্থকদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে।তারা সকলেই একাট্টা হয়ে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন।নেতাকর্মীরা প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত পৌর শহরের অলিগলিতে দল বেঁধে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ভোট প্রার্থনা করছেন। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তার পক্ষে নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা পরিচালনা করায় ভোটের ময়দানে শক্ত অবস্থানে আছেন।কর্মী সমর্থকদের দাবি ভোটের দিন যেতোই ঘনিয়ে আসছে শামিমার জনপ্রিয়তা ততোই বৃদ্ধি পাচ্ছে।
সরেজমিনে নির্বাচনী মাঠে ভোটারদের নিকট জানতে চাইলে ত্রিশাল পৌর সভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার আলমগীর বলেন,এমপি আনিছজ্জামানকে বিগত সময়ে তিনবার মেয়র বানিয়েছিলাম। তিনি পরীক্ষিত লোক এবং এলাকার উন্নয়নে বিশ্বাসী।সে এখন মেযর পদ থেকে পদত্যাগ করে এমপি নির্বাচিত হন। তার স্ত্রী মেয়র পদে প্রার্থী, তাকে আমরা ভোট দিয়ে বিজয়ী করবো। মাহবুব নামের জনৈক ভোটার জানান পৌরসভার উন্নয়নের স্বার্থে এমপির সহধর্মিণীকে বিজয়ী করা দরকার,তার দ্বারা পৌরসভার উন্নয়ন করা সম্ভব। পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাইফুল ইসলাম বলেন আমাদের দুই নম্বর ওয়ার্ডের অধিকাংশই ভোটার এমপির সহধর্মিনী শামীমা আক্তারের পক্ষে কাজ করছেন। ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ফরহাদ হোসেন বলেন, আমরা এলাকার উন্নয়ন চাই, এলাকার উন্নয়নের জন্য এমপি আনিছুজ্জামানের সহধর্মিণী শামীমা আক্তার একজন যোগ্যপ্রার্থী। কামাল হোসেন বলেন, এক সময় এই পৌরসভাটি খুবই অবহেলিত ছিল,আনিছ ভাই মেয়র এ দায়িত্ব থাকা অবস্থায় রাস্তাঘাট,পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা ব্যাপক উন্নয়ন করেন। এখন তার স্ত্রী মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন তিনিও বিজয়ী হলে একটি স্মার্ট পৌরসভার গঠন করবেন।শরিফা বেগম নামের জনৈক ভোটার বলেন একজন নারী মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জেনে আমরা খুশী, তাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করবো। কেরানী বাড়ি মোড়ের ইসরাফিল বলেন শামীমা আক্তার পাশ না করলে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হব। হান্নান মিয়া বলেন,আনিছ ভাই একটানা তিনবার পৌরসভার মেয়র ছিল।এখন তিনি পদত্যাগ করে সংসদ সদস্য হয়েছেন।তার অসমাপ্ত উন্নয়ন কাজগুলো বাস্তবায়ন করার জন্য তার সহধর্মিণী মেয়র পদে প্রার্থী হন। ২ নম্বর ওয়ার্ডের মহিলা ভোটার রিনি বলেন,শামীমা ভাবি উচ্চশিক্ষিত ও যোগ্য প্রার্থী,ইনশাআল্লাহ বিপুল ভোটে জয়লাভ করবেন। ত্রিশাল পৌর সভার কাউন্সিল মেহেদী হাসান নাসিম বলেন এমপি মহোদয়ের সহধর্মিণী শামীমা আক্তার একজন ভালো মনের মানুষ, তার সাথে পৌরসভার সাধারণ জনগণ আছে। ইনশাল্লাহ তিনি বিপুল ভোট পেয়ে বিজয়ী হবেন।