ঢাকা ০২:০৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় বিএনপির সঙ্গে আলোচনা হতে পারে: আমু

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৫:৩৫:৪৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৬ জুন ২০২৩ ৫১ বার পড়া হয়েছে

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আন্দোলনে থাকা বিএনপির সঙ্গে আলোচনার দুয়ার খোলা বলে জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা এবং ১৪ দলীয় মহাজোটের সমন্বয়ক আমির হোসেন আমু। প্রয়োজনে জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় অতীতের মতো আলোচনা হতে পারে বলে জানিয়েছেন সাবেক এই মন্ত্রী।

মঙ্গলবার (৬ জুন) বিকেলে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে দেশবিরোধী দেশি ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ১৪ দলের প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এই কথা বলেন।

আমির হোসেন আমু বলেন, ‘আমরা বলতে চাই, বিগত দিনে জাতিসংঘ যেমনিভাবে তারানকো সাহেবকে পাঠিয়েছিলেন, আমাদের দুই দলকে নিয়ে একসঙ্গে মিটিংয়ে বসেছিলেন, আজকেও প্রয়োজনে এ ধরনের ঘোরাঘুরি না করে জাতিসংঘের পক্ষ থেকে প্রতিনিধি আসুক, আমরা বিএনপির সাথে মুখোমুখি বসে আলোচনা করে দেখতে চাই, সুষ্ঠু এবং অবাধ নির্বাচনের বাধা কোথায় এবং সেটা কীভাবে নিরসন করা যায়। এটা আলোচনার মধ্য দিয়েই সুরাহা হতে পারে। অন্য কোনো পথে নয়।’

আমু বলেন, আলোচনা বাদে অন্য কোনো পন্থায় সংকটের সমাধান সম্ভব নয়। আর অসাংবিধানিকভাবে ক্ষমতায় আসার পাঁয়তারা করলে ১৪ দলসহ জনগণ তা প্রতিহত করবে।

সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, সংবিধানের ভিত্তিতে দেশ পরিচালিত হচ্ছে। সংবিধানকে সামনে রেখে যেকোনো সমাধান, যেকোনো কিছু করতে আমরা প্রস্তুত। আপনারা আসুন। এগিয়ে আসুন। গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখবার স্বার্থে, গণতন্ত্রকে টিকিয়ে রাখার স্বার্থে আপনাদের সঙ্গে বসতে রাজি আছি। আলোচনার দ্বার খোলা। শেখ হাসিনা প্রত্যয় ঘোষণা করেছেন, যেকোনো অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন করতে তিনি প্রস্তুত।’

বিএনপির সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘২০১৪ সালে নির্বাচন বানচাল করার চেষ্টা করলেন কিন্তু সফল হলেন না। এবার নানা রকম অজুহাত তুলছেন। বিদেশিদের কাছে নানা রকম সাহায্য-সহযোগিতা চাচ্ছেন। ভিসানীতিকে আশ্রয় করে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন। ভিসানীতি কী, বৃক্ষ তোমার নাম কী, ফলেই পরিচয়। আজকে এটা বলার প্রয়োজন নেই। যখন এ বৃক্ষের ফল পড়বে, তখন দেখা যাবে এ বৃক্ষ কী, তখন আপনারা সবাই উপলব্ধি করবেন।’

একই সমাবেশে ১৪ দলীয় জোটের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন মার্কিন ভিসানীতির সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, আমেরিকার ভিসানীতি দুরভিসন্ধিমূলক। এর মাধ্যমে শেখ হাসিনাকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে বিএনপি বা সুশীল সমাজের কাছে ক্ষমতা তুলে দেওয়া যায়। মার্কিন ভিসানীতির কারণে যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয়, তবে বিএনপিকে বলব-সাহস থাকলে সেই নির্বাচনে আপনারা আসেন।

আগামী বছরের জানুয়ারির শুরুতে দেশে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। তবে নির্বাচন প্রক্রিয়া কী হবে সেটা নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গে বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর বিরোধ রয়েছে। বিএনপি এই সরকারের অধীনে নির্বাচনে আসবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে। দলটি ধারাবাহিকভাবে আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে।

এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আগামী নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে ভিসানীতির ঘোষণা দিয়েছে। পাশাপাশি আগামী নির্বাচন নিয়ে দেশটির নানামুখী তৎপরতা চোখে পড়ার মতো।

মঙ্গলবার ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এবং আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের সঙ্গে। পাশাপাশি তিনি বৈঠক করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গেও। দুই দিন আগে তিনি বৈঠক করেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের সঙ্গে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় বিএনপির সঙ্গে আলোচনা হতে পারে: আমু

আপডেট সময় : ০৫:৩৫:৪৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৬ জুন ২০২৩

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আন্দোলনে থাকা বিএনপির সঙ্গে আলোচনার দুয়ার খোলা বলে জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা এবং ১৪ দলীয় মহাজোটের সমন্বয়ক আমির হোসেন আমু। প্রয়োজনে জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় অতীতের মতো আলোচনা হতে পারে বলে জানিয়েছেন সাবেক এই মন্ত্রী।

মঙ্গলবার (৬ জুন) বিকেলে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে দেশবিরোধী দেশি ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ১৪ দলের প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এই কথা বলেন।

আমির হোসেন আমু বলেন, ‘আমরা বলতে চাই, বিগত দিনে জাতিসংঘ যেমনিভাবে তারানকো সাহেবকে পাঠিয়েছিলেন, আমাদের দুই দলকে নিয়ে একসঙ্গে মিটিংয়ে বসেছিলেন, আজকেও প্রয়োজনে এ ধরনের ঘোরাঘুরি না করে জাতিসংঘের পক্ষ থেকে প্রতিনিধি আসুক, আমরা বিএনপির সাথে মুখোমুখি বসে আলোচনা করে দেখতে চাই, সুষ্ঠু এবং অবাধ নির্বাচনের বাধা কোথায় এবং সেটা কীভাবে নিরসন করা যায়। এটা আলোচনার মধ্য দিয়েই সুরাহা হতে পারে। অন্য কোনো পথে নয়।’

আমু বলেন, আলোচনা বাদে অন্য কোনো পন্থায় সংকটের সমাধান সম্ভব নয়। আর অসাংবিধানিকভাবে ক্ষমতায় আসার পাঁয়তারা করলে ১৪ দলসহ জনগণ তা প্রতিহত করবে।

সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, সংবিধানের ভিত্তিতে দেশ পরিচালিত হচ্ছে। সংবিধানকে সামনে রেখে যেকোনো সমাধান, যেকোনো কিছু করতে আমরা প্রস্তুত। আপনারা আসুন। এগিয়ে আসুন। গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখবার স্বার্থে, গণতন্ত্রকে টিকিয়ে রাখার স্বার্থে আপনাদের সঙ্গে বসতে রাজি আছি। আলোচনার দ্বার খোলা। শেখ হাসিনা প্রত্যয় ঘোষণা করেছেন, যেকোনো অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন করতে তিনি প্রস্তুত।’

বিএনপির সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘২০১৪ সালে নির্বাচন বানচাল করার চেষ্টা করলেন কিন্তু সফল হলেন না। এবার নানা রকম অজুহাত তুলছেন। বিদেশিদের কাছে নানা রকম সাহায্য-সহযোগিতা চাচ্ছেন। ভিসানীতিকে আশ্রয় করে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন। ভিসানীতি কী, বৃক্ষ তোমার নাম কী, ফলেই পরিচয়। আজকে এটা বলার প্রয়োজন নেই। যখন এ বৃক্ষের ফল পড়বে, তখন দেখা যাবে এ বৃক্ষ কী, তখন আপনারা সবাই উপলব্ধি করবেন।’

একই সমাবেশে ১৪ দলীয় জোটের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন মার্কিন ভিসানীতির সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, আমেরিকার ভিসানীতি দুরভিসন্ধিমূলক। এর মাধ্যমে শেখ হাসিনাকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে বিএনপি বা সুশীল সমাজের কাছে ক্ষমতা তুলে দেওয়া যায়। মার্কিন ভিসানীতির কারণে যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয়, তবে বিএনপিকে বলব-সাহস থাকলে সেই নির্বাচনে আপনারা আসেন।

আগামী বছরের জানুয়ারির শুরুতে দেশে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। তবে নির্বাচন প্রক্রিয়া কী হবে সেটা নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের সঙ্গে বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর বিরোধ রয়েছে। বিএনপি এই সরকারের অধীনে নির্বাচনে আসবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে। দলটি ধারাবাহিকভাবে আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে।

এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আগামী নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে ভিসানীতির ঘোষণা দিয়েছে। পাশাপাশি আগামী নির্বাচন নিয়ে দেশটির নানামুখী তৎপরতা চোখে পড়ার মতো।

মঙ্গলবার ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এবং আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের সঙ্গে। পাশাপাশি তিনি বৈঠক করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গেও। দুই দিন আগে তিনি বৈঠক করেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের সঙ্গে।