ঢাকা ০৮:০১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ছাত্রদলের নতুন সভাপতি রাকিব, সাধারণ সম্পাদক নাসির জ্বালানি তেলের স্বয়ংক্রিয় দাম নির্ধারণে প্রজ্ঞাপন জারি খাবার সংগ্রহে লাইনে দাঁড়ানো ফিলিস্তিনিদের গুলি, নিহত ১১২ রাজশাহীতে ভোক্তা অধিকার অধিদফতরের অভিযান না থাকায় ক্রমেই বাড়ছে পেঁয়াজের দাম ঘুড়ি প্রতীকের বিজয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতা চান কাউন্সিলর প্রার্থী আসলাম ‘অগ্নি নিরাপত্তা ব্যবস্থা বাড়ানোর নির্দেশ দিলেও মানা হচ্ছে না’ নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রীকে নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জারি ২৩নং ওয়ার্ডকে পরিকল্পিত আধুনিক এলাকা গড়তে চান – রানা বেইলি রোডে ভয়াবহ আগুনে পুড়ে নিহত ৪৪ চাঁপাইনবাবগঞ্জে জমি জবরদখল ও গাছ কাটার প্রতিবাদে মানববন্ধন

কংগ্রেসের বিক্ষোভের অনুমতি দেয়নি পুলিশ, রাজঘাটে ১৪৪ ধারা জারি

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৯:০৮:১৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মার্চ ২০২৩ ৫২ বার পড়া হয়েছে

রাহুল গান্ধীর সংসদ সদস্য পদ খারিজের প্রতিবাদে রোববার দিনভর বিক্ষোভ কর্মসূচি গ্রহণ করেছে কংগ্রেস। দেশ জুড়ে ‘সংকল্প পদযাত্রা’-র ডাক দেয়া হয়েছে। জাতীয় কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধী এবং সভাপতি মল্লিকার্জুন খড়গে রোববার সকালেই পৌঁছে গিয়েছেন মহাত্মা গান্ধীর সমাধিস্থল রাজঘাটে। পৌঁছেছেন কংগ্রেসের অন্য নেতা, কর্মীরাও।
রোববার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করবে কংগ্রেস নেতৃত্ব। দেশের নানা প্রান্তে অবস্থান বিক্ষোভ চলবে। দিল্লির রাজঘাটে কংগ্রেসের জমায়েতের অনুমতি দেয়নি পুলিশ। তা সত্ত্বেও প্রিয়ঙ্কা, খড়গেরা সেখানে জড়ো হয়েছেন।

রাজঘাটে কংগ্রেসের জমায়েত এবং অবস্থান কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। পুলিশের দাবি, কংগ্রেসের আন্দোলনের ফলে রাজধানীতে ট্র্যাফিক নিয়ন্ত্রণে সমস্যা হবে। ফলে যানজটের পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ বাড়বে। সেই কারণেই বিক্ষোভের অনুমতি দেয়া হয়নি। রাজঘাট এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে দিল্লি পুলিশ।

ভারতীয় সংবিধানের ১০২(১)-ই অনুচ্ছেদ এবং জনপ্রতিনিধিত্ব আইন (১৯৫১)-এর ৮ নম্বর অনুচ্ছেদ অনুযায়ী শুক্রবার (২৪ মার্চ) রাহুলের সংসদ সদস্য পদ খারিজ করেন লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা। আইন অনুযায়ী, যে কোনও সংসদ সদস্য বা বিধায়ক কোনও নির্দিষ্ট মামলায় আদালতে দোষী সাব্যস্ত হলে এবং তাঁর দুই বা ততোধিক বছরের সাজা হলে তৎক্ষণিক সংসদ সদস্য বা বিধায়ক পদ খারিজ হয়ে যায়। ‘মোদি’ পদবি নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের কারণে বৃহস্পতিবার (২৩মার্চ) রাহুলকে ২ বছরের জেলের সাজা শোনায় গুজরাতের সুরত জেলা আদালত। তারই ভিত্তিতে পদ হারিয়েছেন কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি।

কংগ্রেস এর নেপথ্যে ‘রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র’ রয়েছে বলে দাবি করেছে। লোকসভায় রাহুলের মুখ বন্ধ করতেই তাকে সংসদ সদস্য পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে বলে দাবি। শনিবার (২৫ মার্চ) সাংবাদিক সম্মেলনেও একই কথা জানান রাহুল নিজে। এর পরেই বিরোধিতার পারদ চড়েছে।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

কংগ্রেসের বিক্ষোভের অনুমতি দেয়নি পুলিশ, রাজঘাটে ১৪৪ ধারা জারি

আপডেট সময় : ০৯:০৮:১৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মার্চ ২০২৩

রাহুল গান্ধীর সংসদ সদস্য পদ খারিজের প্রতিবাদে রোববার দিনভর বিক্ষোভ কর্মসূচি গ্রহণ করেছে কংগ্রেস। দেশ জুড়ে ‘সংকল্প পদযাত্রা’-র ডাক দেয়া হয়েছে। জাতীয় কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধী এবং সভাপতি মল্লিকার্জুন খড়গে রোববার সকালেই পৌঁছে গিয়েছেন মহাত্মা গান্ধীর সমাধিস্থল রাজঘাটে। পৌঁছেছেন কংগ্রেসের অন্য নেতা, কর্মীরাও।
রোববার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করবে কংগ্রেস নেতৃত্ব। দেশের নানা প্রান্তে অবস্থান বিক্ষোভ চলবে। দিল্লির রাজঘাটে কংগ্রেসের জমায়েতের অনুমতি দেয়নি পুলিশ। তা সত্ত্বেও প্রিয়ঙ্কা, খড়গেরা সেখানে জড়ো হয়েছেন।

রাজঘাটে কংগ্রেসের জমায়েত এবং অবস্থান কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। পুলিশের দাবি, কংগ্রেসের আন্দোলনের ফলে রাজধানীতে ট্র্যাফিক নিয়ন্ত্রণে সমস্যা হবে। ফলে যানজটের পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ বাড়বে। সেই কারণেই বিক্ষোভের অনুমতি দেয়া হয়নি। রাজঘাট এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে দিল্লি পুলিশ।

ভারতীয় সংবিধানের ১০২(১)-ই অনুচ্ছেদ এবং জনপ্রতিনিধিত্ব আইন (১৯৫১)-এর ৮ নম্বর অনুচ্ছেদ অনুযায়ী শুক্রবার (২৪ মার্চ) রাহুলের সংসদ সদস্য পদ খারিজ করেন লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা। আইন অনুযায়ী, যে কোনও সংসদ সদস্য বা বিধায়ক কোনও নির্দিষ্ট মামলায় আদালতে দোষী সাব্যস্ত হলে এবং তাঁর দুই বা ততোধিক বছরের সাজা হলে তৎক্ষণিক সংসদ সদস্য বা বিধায়ক পদ খারিজ হয়ে যায়। ‘মোদি’ পদবি নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের কারণে বৃহস্পতিবার (২৩মার্চ) রাহুলকে ২ বছরের জেলের সাজা শোনায় গুজরাতের সুরত জেলা আদালত। তারই ভিত্তিতে পদ হারিয়েছেন কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি।

কংগ্রেস এর নেপথ্যে ‘রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র’ রয়েছে বলে দাবি করেছে। লোকসভায় রাহুলের মুখ বন্ধ করতেই তাকে সংসদ সদস্য পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে বলে দাবি। শনিবার (২৫ মার্চ) সাংবাদিক সম্মেলনেও একই কথা জানান রাহুল নিজে। এর পরেই বিরোধিতার পারদ চড়েছে।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা