ঢাকা ০৪:১৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ইমরান আউট! পাকিস্তানের ক্ষমতায় নওয়াজ-বিলাবল জোট

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৯:৪৪:৪৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৩ বার পড়া হয়েছে

ভোটগণনার ফলাফলের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এখনো হয়নি। এর আগেই হাত মেলানোর কথা ঘোষণা করল পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএলএন) এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ এবং প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী বিলাবল ভুট্টো জারদারির জোট গড়ায় পাক পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে নিরঙ্কুশ গরিষ্ঠতা পাবেন তারা।

বিলাবলের বাবা তথা সাবেক পাক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারি এবং শরিফ শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে ভোটগণনার প্রবণতার আঁচ মেলার পরেই বৈঠকে বসেছিলেন। শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে আনুষ্ঠানিক ভাবে দু’দল ভোট-পরবর্তী জোটের ঘোষণা করেছে। পাক ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে এখন মোট আসন ৩৩৬।

কিন্তু এরমধ্যে সরাসরি ভোট হওয়ার কথা ছিল ২৬৬টি আসনে। কিন্তু এক প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে ২৬৫টি আসনে ভোট হয়েছে। বাকি ৭০টি আসন মহিলা এবং ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের জন্য সংরক্ষিত রয়েছে। এর মধ্যে মহিলাদের জন্য ৬০ এবং ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের জন্য ১০টি আসন। পাক সংবিধান অনুযায়ী সরাসরি ভোটে যে দল যে সংখ্যক আসনে জয় পাবে, সেই অনুপাতে ওই সংরক্ষিত আসনগুলিতে প্রতিনিধি ঠিক করে দলগুলি।

এই সংরক্ষিত আসনগুলির উপর সরকার গঠন নির্ভর করে না। সেই হিসাব হবে সংরক্ষিত বাদ দিয়ে ২৬৫টি আসনের মধ্যে। সেই অর্থে বর্তমান পরিস্থিতিতে ১৩৩ জন জয়ীর সমর্থন পেলেই পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতার ‘জাদুসংখ্যা’ ছোঁয়া সম্ভব হবে। এখনও পর্যন্ত পিএমএলএন ৭১ এবং পিপিপি ৫৩টিতে জিতেছে। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) সমর্থিত নির্দলেরা ৯১ এবং নির্দল ও অন্যেরা এখনও পর্যন্ত ৩৫ আসনে জয়ী হয়েছে।

অর্থাৎ, সংখ্যাগরিষ্ঠতার দোরগোড়ায় পৌঁছে গিয়েছে জোট। এ ছাড়া নির্দল এবং জমিয়ত উলেমা-ই-ইসলামের মতো কট্টরপন্থী কয়েকটি দলের সমর্থনও তারা পেতে পারে। পাক নির্বাচন কমিশন ‘রাজনৈতিক দল’ হিসাবে পিটিআই-এর স্বীকৃতি বাতিল করায় তারা সরাসরি ভোটের ময়দানে নেই। কিন্তু ইমরানের দলের অনেক নেতাই ‘নির্দল’ হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ফল বলছে, এখনও পর্যন্ত ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে জয়ী প্রার্থীদের মধ্যে নির্দলেরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ। তা ছাড়া, খাইবার-পাখতুনখোয়ার আওয়ানি ন্যাশনাল পার্টি, সিন্ধের মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট এবং কয়েকটি বালুচ সংগঠনের সমর্থনও ইমরানের অনুগামীদের দিকে থাকতে পারে।

বস্তুত, দু’টি ফৌজদারি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত জেলবন্দি ইমরান শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সকালে সমাজমাধ্যমে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (এআই বা আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্স) সাহায্যে ‘বিজয়ভাষণ’ও দেন। বলেন, ‘‘নওয়াজ শরিফের ‘লন্ডন পরিকল্পনা’ ব্যর্থ হয়েছে। পাকিস্তানের জনতা আমাদের বিপুল ভাবে সমর্থন করেছেন।’’ এর পরেই জনতার উদ্দেশে তাঁর আবেদন, ‘‘আপনার গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করেছেন। এ বার তা রক্ষার দায় আপনাদেরই।’’ বিশ্বকাপ জয়ী প্রাক্তন পাক ক্রিকেট অধিনায়ক সরাসরি কিছু না বললেও তাঁর টিমের অভিযোগ, শেষ বেলায় পরিস্থিতি প্রতিকূল বুঝে শরিফ-সমর্থক পাক সেনা বেশ কিছু আসনে ভোটে ফল বদলে দিতে সক্রিয় হবে।

শেষ পর্যন্ত তা না হলেও ইমরানকে ঠেকাতে পাক সেনা শরিফ-ভুট্টো জোট গড়তে তৎপরতা দেখাবে বলে আঁচ দিয়েছিল পাক সংবাদমাধ্যমের একাংশও। কার্যত তা সত্যি হতে চলেছে। একদা প্রবল প্রতিপক্ষ পিএমএলএন এবং পিপিপি অবশ্য বছর দু’য়েক আগেই কাছাকাছি এসেছিল। ২০২২ সালে এপ্রিলে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে গরিষ্ঠতা হারিয়ে ইমরান সরকারের পতনের পরে জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন নওয়াজের ভাই শাহবাজ। ভুট্টো ছিলেন সেই সরকারের বিদেশমন্ত্রীর পদে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

ইমরান আউট! পাকিস্তানের ক্ষমতায় নওয়াজ-বিলাবল জোট

আপডেট সময় : ০৯:৪৪:৪৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ভোটগণনার ফলাফলের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এখনো হয়নি। এর আগেই হাত মেলানোর কথা ঘোষণা করল পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (পিএমএলএন) এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ এবং প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী বিলাবল ভুট্টো জারদারির জোট গড়ায় পাক পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে নিরঙ্কুশ গরিষ্ঠতা পাবেন তারা।

বিলাবলের বাবা তথা সাবেক পাক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারি এবং শরিফ শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে ভোটগণনার প্রবণতার আঁচ মেলার পরেই বৈঠকে বসেছিলেন। শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে আনুষ্ঠানিক ভাবে দু’দল ভোট-পরবর্তী জোটের ঘোষণা করেছে। পাক ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে এখন মোট আসন ৩৩৬।

কিন্তু এরমধ্যে সরাসরি ভোট হওয়ার কথা ছিল ২৬৬টি আসনে। কিন্তু এক প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে ২৬৫টি আসনে ভোট হয়েছে। বাকি ৭০টি আসন মহিলা এবং ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের জন্য সংরক্ষিত রয়েছে। এর মধ্যে মহিলাদের জন্য ৬০ এবং ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের জন্য ১০টি আসন। পাক সংবিধান অনুযায়ী সরাসরি ভোটে যে দল যে সংখ্যক আসনে জয় পাবে, সেই অনুপাতে ওই সংরক্ষিত আসনগুলিতে প্রতিনিধি ঠিক করে দলগুলি।

এই সংরক্ষিত আসনগুলির উপর সরকার গঠন নির্ভর করে না। সেই হিসাব হবে সংরক্ষিত বাদ দিয়ে ২৬৫টি আসনের মধ্যে। সেই অর্থে বর্তমান পরিস্থিতিতে ১৩৩ জন জয়ীর সমর্থন পেলেই পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতার ‘জাদুসংখ্যা’ ছোঁয়া সম্ভব হবে। এখনও পর্যন্ত পিএমএলএন ৭১ এবং পিপিপি ৫৩টিতে জিতেছে। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) সমর্থিত নির্দলেরা ৯১ এবং নির্দল ও অন্যেরা এখনও পর্যন্ত ৩৫ আসনে জয়ী হয়েছে।

অর্থাৎ, সংখ্যাগরিষ্ঠতার দোরগোড়ায় পৌঁছে গিয়েছে জোট। এ ছাড়া নির্দল এবং জমিয়ত উলেমা-ই-ইসলামের মতো কট্টরপন্থী কয়েকটি দলের সমর্থনও তারা পেতে পারে। পাক নির্বাচন কমিশন ‘রাজনৈতিক দল’ হিসাবে পিটিআই-এর স্বীকৃতি বাতিল করায় তারা সরাসরি ভোটের ময়দানে নেই। কিন্তু ইমরানের দলের অনেক নেতাই ‘নির্দল’ হিসাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ফল বলছে, এখনও পর্যন্ত ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে জয়ী প্রার্থীদের মধ্যে নির্দলেরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ। তা ছাড়া, খাইবার-পাখতুনখোয়ার আওয়ানি ন্যাশনাল পার্টি, সিন্ধের মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট এবং কয়েকটি বালুচ সংগঠনের সমর্থনও ইমরানের অনুগামীদের দিকে থাকতে পারে।

বস্তুত, দু’টি ফৌজদারি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত জেলবন্দি ইমরান শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সকালে সমাজমাধ্যমে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (এআই বা আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্স) সাহায্যে ‘বিজয়ভাষণ’ও দেন। বলেন, ‘‘নওয়াজ শরিফের ‘লন্ডন পরিকল্পনা’ ব্যর্থ হয়েছে। পাকিস্তানের জনতা আমাদের বিপুল ভাবে সমর্থন করেছেন।’’ এর পরেই জনতার উদ্দেশে তাঁর আবেদন, ‘‘আপনার গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করেছেন। এ বার তা রক্ষার দায় আপনাদেরই।’’ বিশ্বকাপ জয়ী প্রাক্তন পাক ক্রিকেট অধিনায়ক সরাসরি কিছু না বললেও তাঁর টিমের অভিযোগ, শেষ বেলায় পরিস্থিতি প্রতিকূল বুঝে শরিফ-সমর্থক পাক সেনা বেশ কিছু আসনে ভোটে ফল বদলে দিতে সক্রিয় হবে।

শেষ পর্যন্ত তা না হলেও ইমরানকে ঠেকাতে পাক সেনা শরিফ-ভুট্টো জোট গড়তে তৎপরতা দেখাবে বলে আঁচ দিয়েছিল পাক সংবাদমাধ্যমের একাংশও। কার্যত তা সত্যি হতে চলেছে। একদা প্রবল প্রতিপক্ষ পিএমএলএন এবং পিপিপি অবশ্য বছর দু’য়েক আগেই কাছাকাছি এসেছিল। ২০২২ সালে এপ্রিলে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে গরিষ্ঠতা হারিয়ে ইমরান সরকারের পতনের পরে জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন নওয়াজের ভাই শাহবাজ। ভুট্টো ছিলেন সেই সরকারের বিদেশমন্ত্রীর পদে।