ঢাকা ০১:৪১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইউক্রেন যুদ্ধে কোনও পক্ষের বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা নেই: শীর্ষ মার্কিন জেনারেল

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ১২:৫৬:৪৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ৮৩ বার পড়া হয়েছে

ইউক্রেন সংঘাত শুধুমাত্র একটি আলোচনার মাধ্যমে শান্তি চুক্তির মাধ্যমে শেষ হতে পারে কারণ যুদ্ধক্ষেত্রে কোনো পক্ষই তার লক্ষ্য অর্জন করতে পারবে না বলে ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন মার্কিন জয়েন্ট চিফস অফ স্টাফের চেয়ারম্যান মার্ক মিলি। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ফিনান্সিয়াল টাইমসের সাথে একটি সাক্ষাত্কারে তিনি এই মন্তব্য করেছেন।সাক্ষাতকারে মিলি বলেন, রাশিয়ানদের পক্ষে সামরিক উপায়ে তাদের রাজনৈতিক উদ্দেশ্যগুলো অর্জন করা প্রায় অসম্ভব হবে। রাশিয়া ইউক্রেন দখল করে নেবে, এমন চিন্তা অবাস্তব। অন্যদিকে মস্কোর বাহিনী ইতিমধ্যে যে অঞ্চলটি দখল করেছে সেখান থেকে তাদের তাড়ানো ইউক্রেনের পক্ষে খুব, খুব কঠিন হবে। তবে তার এই অবস্থানের জন্য নির্দিষ্ট কোন কারণ ব্যাখ্যা প্রদান করেনি।

এই সপ্তাহের শুরুতে ব্রাসেলসে ইউক্রেনের জন্য আরও সামরিক সহায়তার বিষয়ে ন্যাটো মিত্রদের সাথে বৈঠকের পরই এমন মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় এই সামরিক কর্মকর্তা। যেখানে তিনি আগামী মাসগুলোতে বসন্তে রাশিয়ার বিরুদ্ধে পাল্টা আক্রমণ জোরদার করার লক্ষ্যে ইউক্রেনের শক্তি বাড়াতে পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্যদের সামগ্রিক কর্মকাণ্ডে সমন্বয় আনার ওপর জোর দেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ন্যাটোর মহাসচিব জেনস স্টলটেনবার্গ সতর্ক করে বলেন, আমরা যে হারে ইউক্রেনকে অস্ত্র সহায়তা দিচ্ছি, কিয়েভ যুদ্ধক্ষেত্রে তার চেয়ে বেশি অস্ত্রের ব্যবহার করছে।

জেনারেল মিলি বলেন, ইউক্রেন যুদ্ধে যুদ্ধাস্ত্রের বহুল ব্যবহার পেন্টাগনকে তার অস্ত্রের মজুত পর্যালোচনা করতে এবং ব্যয় বৃদ্ধির বিষয়ে চিন্তা করতে বাধ্য করেছে। যেখানে আমরা বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করছি যাতে আমরা তখন অনুমান করতে পারি যে আমরা সত্যিকারের প্রয়োজনীয়তা কী হবে বলে মনে করি, এবং তারপরে আমাদের এটি বাজেটে রাখতে হবে। কারণ গোলাবারুদ খুবই ব্যয়বহুল।

এছাড়াও গত সপ্তাহে ব্রাসেলসে যুদ্ধের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে মিলি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, রাশিয়া ইতিমধ্যে কৌশলগতভাবে, কর্মক্ষমভাবে এবং কৌশলগতভাবে হেরেছে। যুদ্ধক্ষেত্রে একটি বিশাল মূল্য পরিশোধ করতে হয়েছে তাদের।

যুক্তরাষ্ট্রে বর্তমান সামরিক বাজেটের আকার ৮১ হাজার ৭০০ কোটি ডলার, যা বিশ্বের বড় বড় ১০টি সামরিক শক্তির দেশগুলোর সম্মিলিত মোট বাজেটকে ছাড়িয়ে গেছে। এছাড়াও গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে যুদ্ধ শুরুর পর রাশিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে ইউক্রেনের জন্য সহায়তা হিসেবে ১১ হাজার কোটি ডলারের বেশি সহায়তা বরাদ্দ দিয়েছে মার্কিন প্রশাসন।

এদিকে নিজস্ব মজুতের অস্ত্র ইউক্রেনকে সহায়তা হিসেবে দেয়ার জন্য বাইডেন প্রশাসনের সমালোচনা করেছেন ফ্লোরিডার প্রতিনিধি ম্যাট গেটজ এবং অ্যারিজোনার অ্যান্ডি বিগস সহ মার্কিন আইনপ্রণেতাদের অনেকেই।

অন্যদিকে মার্কিন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল ও পেন্টাগনের সাবেক উপদেষ্টা ডগলাস ম্যাকগ্রেগর বলেছেন, মিলির এই ধরনের দাবি বাইডেন প্রশাসনের বিশ্বাসযোগ্যতা নষ্ট করেছে। জেনারেল মিলি এটা খুব স্পষ্ট করে দিয়েছেন, তিনি বামপন্থীদের সাথে একত্রিত হয়েছেন।

সূত্র: আরটি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ইউক্রেন যুদ্ধে কোনও পক্ষের বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা নেই: শীর্ষ মার্কিন জেনারেল

আপডেট সময় : ১২:৫৬:৪৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

ইউক্রেন সংঘাত শুধুমাত্র একটি আলোচনার মাধ্যমে শান্তি চুক্তির মাধ্যমে শেষ হতে পারে কারণ যুদ্ধক্ষেত্রে কোনো পক্ষই তার লক্ষ্য অর্জন করতে পারবে না বলে ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন মার্কিন জয়েন্ট চিফস অফ স্টাফের চেয়ারম্যান মার্ক মিলি। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ফিনান্সিয়াল টাইমসের সাথে একটি সাক্ষাত্কারে তিনি এই মন্তব্য করেছেন।সাক্ষাতকারে মিলি বলেন, রাশিয়ানদের পক্ষে সামরিক উপায়ে তাদের রাজনৈতিক উদ্দেশ্যগুলো অর্জন করা প্রায় অসম্ভব হবে। রাশিয়া ইউক্রেন দখল করে নেবে, এমন চিন্তা অবাস্তব। অন্যদিকে মস্কোর বাহিনী ইতিমধ্যে যে অঞ্চলটি দখল করেছে সেখান থেকে তাদের তাড়ানো ইউক্রেনের পক্ষে খুব, খুব কঠিন হবে। তবে তার এই অবস্থানের জন্য নির্দিষ্ট কোন কারণ ব্যাখ্যা প্রদান করেনি।

এই সপ্তাহের শুরুতে ব্রাসেলসে ইউক্রেনের জন্য আরও সামরিক সহায়তার বিষয়ে ন্যাটো মিত্রদের সাথে বৈঠকের পরই এমন মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় এই সামরিক কর্মকর্তা। যেখানে তিনি আগামী মাসগুলোতে বসন্তে রাশিয়ার বিরুদ্ধে পাল্টা আক্রমণ জোরদার করার লক্ষ্যে ইউক্রেনের শক্তি বাড়াতে পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্যদের সামগ্রিক কর্মকাণ্ডে সমন্বয় আনার ওপর জোর দেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ন্যাটোর মহাসচিব জেনস স্টলটেনবার্গ সতর্ক করে বলেন, আমরা যে হারে ইউক্রেনকে অস্ত্র সহায়তা দিচ্ছি, কিয়েভ যুদ্ধক্ষেত্রে তার চেয়ে বেশি অস্ত্রের ব্যবহার করছে।

জেনারেল মিলি বলেন, ইউক্রেন যুদ্ধে যুদ্ধাস্ত্রের বহুল ব্যবহার পেন্টাগনকে তার অস্ত্রের মজুত পর্যালোচনা করতে এবং ব্যয় বৃদ্ধির বিষয়ে চিন্তা করতে বাধ্য করেছে। যেখানে আমরা বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করছি যাতে আমরা তখন অনুমান করতে পারি যে আমরা সত্যিকারের প্রয়োজনীয়তা কী হবে বলে মনে করি, এবং তারপরে আমাদের এটি বাজেটে রাখতে হবে। কারণ গোলাবারুদ খুবই ব্যয়বহুল।

এছাড়াও গত সপ্তাহে ব্রাসেলসে যুদ্ধের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে মিলি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, রাশিয়া ইতিমধ্যে কৌশলগতভাবে, কর্মক্ষমভাবে এবং কৌশলগতভাবে হেরেছে। যুদ্ধক্ষেত্রে একটি বিশাল মূল্য পরিশোধ করতে হয়েছে তাদের।

যুক্তরাষ্ট্রে বর্তমান সামরিক বাজেটের আকার ৮১ হাজার ৭০০ কোটি ডলার, যা বিশ্বের বড় বড় ১০টি সামরিক শক্তির দেশগুলোর সম্মিলিত মোট বাজেটকে ছাড়িয়ে গেছে। এছাড়াও গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে যুদ্ধ শুরুর পর রাশিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে ইউক্রেনের জন্য সহায়তা হিসেবে ১১ হাজার কোটি ডলারের বেশি সহায়তা বরাদ্দ দিয়েছে মার্কিন প্রশাসন।

এদিকে নিজস্ব মজুতের অস্ত্র ইউক্রেনকে সহায়তা হিসেবে দেয়ার জন্য বাইডেন প্রশাসনের সমালোচনা করেছেন ফ্লোরিডার প্রতিনিধি ম্যাট গেটজ এবং অ্যারিজোনার অ্যান্ডি বিগস সহ মার্কিন আইনপ্রণেতাদের অনেকেই।

অন্যদিকে মার্কিন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল ও পেন্টাগনের সাবেক উপদেষ্টা ডগলাস ম্যাকগ্রেগর বলেছেন, মিলির এই ধরনের দাবি বাইডেন প্রশাসনের বিশ্বাসযোগ্যতা নষ্ট করেছে। জেনারেল মিলি এটা খুব স্পষ্ট করে দিয়েছেন, তিনি বামপন্থীদের সাথে একত্রিত হয়েছেন।

সূত্র: আরটি