ঢাকা ০৪:১৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইউক্রেন যুদ্ধে কমছে শস্য রফতানি, বিপদে গরীব দেশগুলো

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৩:৪৫:৩২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মার্চ ২০২৩ ৭২ বার পড়া হয়েছে

রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ অব্যাহত থাকায় ইউক্রেনের শস্য রফতানি কমে গেছে। গত বছরের তুলনায় এবার দেশটি ১৩ লাখ ৩০ হাজার টন শস্য কম রফতানি করেছে। এ কারণে বিশ্বের গরীব দেশগুলো খাদ্য সংকটে পড়তে পারে।

সোমবার আল-জাজিরা জানিয়েছে, ২০২২-২০২৩ মৌসুমে ইউক্রেনের শস্য রফতানি ২৬.৬ শতাংশ কমে ৩২.৯ মিলিয়ন টন হয়েছে। রাশিয়ার আক্রমণের ফলে ফসল চাষ ও সংগ্রহ ব্যাহত হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ইউক্রেনীয় কৃষি মন্ত্রণালয় এমন তথ্য দিয়েছে।

জুলাই থেকে জুন মৌসুমে এখন পর্যন্ত দেশটির ১১.৪ মিলিয়ন টন গম, ১৯.১ মিলিয়ন টন ভুট্টা এবং প্রায় ২.১ মিলিয়ন টন বার্লি রফতানি হয়েছে।

অথচ আগের মৌসুমে একই সময়ে মোট শস্য রফতানি হয়েছিল প্রায় ৪৪.৮ মিলিয়ন টন।

ইউক্রেনীয় কৃষি মন্ত্রণালয় বলেছে, ‘মার্চ মাসে এখন পর্যন্ত শস্য রফতানি হয়েছে ছয় লাখ ৪১হাজার টন। ৬ মার্চ পর্যন্ত এমন তথ্য পাওয়া গেছে। এ কারণে বলা যায়, গত বছরের তুলনায় এবার ১৩ লাখ ৩০ হাজার টন শস্য কম রফতানি করেছে ইউক্রেন।’

দেশটি একটি উল্লেখযোগ্য বৈশ্বিক শস্য উৎপাদনকারী এবং রফতানিকারক। এখন যুদ্ধের কারনে ২০২২ সালে তাদের শস্য উৎপাদন কমে ৫৪ মিলিয়ন টনে নেমে যাবে। অথচ ২০২১ সালে দেশটিতে ৮৬ মিলিয়ন টন শস্য উৎপাদন হয়েছিল।

এর আগে রুশ-ইউক্রেনীয় যুদ্ধ শুরুর পর কৃষ্ণসাগরে রাশিয়ার অবরোধের কারণে ইউক্রেনের বন্দরে রফতানির জন্য প্রস্তুত থাকা কোটি কোটি টন খাদ্যশস্য আটকা পড়ে ছিল। এতে বিশ্বব্যাপী খাদ্যের দাম দ্রুত হারে বাড়তে থাকে, যার ফলে দরিদ্র দেশগুলোয় খাদ্য সঙ্কট দেখা দেয়। এখন দেশটিতে শস্য উৎপাদন কমায় আবার তাদের শস্য রফতানি কমে যাওয়া শঙ্কা আছে। এ কারণে বিশ্বের খাদ্য আমদানি নির্ভর দেশগুলোকে মহাসংকটের মধ্যে দিয়ে যেতে হবে বলে আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

সূত্র : আল-জাজিরা

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ইউক্রেন যুদ্ধে কমছে শস্য রফতানি, বিপদে গরীব দেশগুলো

আপডেট সময় : ০৩:৪৫:৩২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মার্চ ২০২৩

রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ অব্যাহত থাকায় ইউক্রেনের শস্য রফতানি কমে গেছে। গত বছরের তুলনায় এবার দেশটি ১৩ লাখ ৩০ হাজার টন শস্য কম রফতানি করেছে। এ কারণে বিশ্বের গরীব দেশগুলো খাদ্য সংকটে পড়তে পারে।

সোমবার আল-জাজিরা জানিয়েছে, ২০২২-২০২৩ মৌসুমে ইউক্রেনের শস্য রফতানি ২৬.৬ শতাংশ কমে ৩২.৯ মিলিয়ন টন হয়েছে। রাশিয়ার আক্রমণের ফলে ফসল চাষ ও সংগ্রহ ব্যাহত হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ইউক্রেনীয় কৃষি মন্ত্রণালয় এমন তথ্য দিয়েছে।

জুলাই থেকে জুন মৌসুমে এখন পর্যন্ত দেশটির ১১.৪ মিলিয়ন টন গম, ১৯.১ মিলিয়ন টন ভুট্টা এবং প্রায় ২.১ মিলিয়ন টন বার্লি রফতানি হয়েছে।

অথচ আগের মৌসুমে একই সময়ে মোট শস্য রফতানি হয়েছিল প্রায় ৪৪.৮ মিলিয়ন টন।

ইউক্রেনীয় কৃষি মন্ত্রণালয় বলেছে, ‘মার্চ মাসে এখন পর্যন্ত শস্য রফতানি হয়েছে ছয় লাখ ৪১হাজার টন। ৬ মার্চ পর্যন্ত এমন তথ্য পাওয়া গেছে। এ কারণে বলা যায়, গত বছরের তুলনায় এবার ১৩ লাখ ৩০ হাজার টন শস্য কম রফতানি করেছে ইউক্রেন।’

দেশটি একটি উল্লেখযোগ্য বৈশ্বিক শস্য উৎপাদনকারী এবং রফতানিকারক। এখন যুদ্ধের কারনে ২০২২ সালে তাদের শস্য উৎপাদন কমে ৫৪ মিলিয়ন টনে নেমে যাবে। অথচ ২০২১ সালে দেশটিতে ৮৬ মিলিয়ন টন শস্য উৎপাদন হয়েছিল।

এর আগে রুশ-ইউক্রেনীয় যুদ্ধ শুরুর পর কৃষ্ণসাগরে রাশিয়ার অবরোধের কারণে ইউক্রেনের বন্দরে রফতানির জন্য প্রস্তুত থাকা কোটি কোটি টন খাদ্যশস্য আটকা পড়ে ছিল। এতে বিশ্বব্যাপী খাদ্যের দাম দ্রুত হারে বাড়তে থাকে, যার ফলে দরিদ্র দেশগুলোয় খাদ্য সঙ্কট দেখা দেয়। এখন দেশটিতে শস্য উৎপাদন কমায় আবার তাদের শস্য রফতানি কমে যাওয়া শঙ্কা আছে। এ কারণে বিশ্বের খাদ্য আমদানি নির্ভর দেশগুলোকে মহাসংকটের মধ্যে দিয়ে যেতে হবে বলে আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

সূত্র : আল-জাজিরা