ঢাকা ০৩:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আরেকটি পঁচাত্তর সৃষ্টি করতে চায় দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা: কাদের

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৯:৪৭:৪৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ এপ্রিল ২০২৩ ৬১ বার পড়া হয়েছে

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আরেকটি পঁচাত্তর সৃষ্টি করতে চায় দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা।

শনিবার (১ এপ্রিল) দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের এক যৌথসভায় তিনি এ কথা বলেন। দলটির সভাপতি-সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য এবং ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে এই যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দৈনিক প্রথম আলো তাদের নিজস্ব প্রভুদের ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের জন্য জাতির সামনে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে তরুণ সমাজের মনে হতাশা ও ক্ষোভ সৃষ্টির জন্য উস্কানি দেওয়ার অপচেষ্টা করেছে। অনেকে বলেছেন যে এটা তাদের একটা ভুল। আমি তাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই- স্বাধীনতা দিবসের দিনে বাঙালি জাতির ৫২ বছরের অর্জন মর্যাদা নিয়ে তামাশা করা সাধারণ ভুল নয়। একটি ফৌজদারি অপরাধ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, স্বাধীনতা দিবসে প্রথম আলোর এই উদ্যোগ জাতিসত্তা বিনাশী অপতৎপরতা নয় কি? স্বাধীনতা দিবস তরুণ প্রজন্মের কাছে দেশপ্রেম ও দেশাত্মবোধ সৃষ্টির এক অনন্য দিন। অথচ এই দিনে পলিটিক্যালি সিলেক্টেড বিশেষ এজেন্ডা সেটিং এর উদ্দেশ্য কি? এই সংবাদটি মহান মুক্তিযুদ্ধ মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ অর্জনকে অস্বীকার করার সামিল নয়?

কাদের অভিযোগ করে আরও বলেন, ঐতিহ্যগতভাবেই দৈনিকটি এক বিশেষ স্বার্থান্বেষী মহলের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে থাকে। আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক সংবাদ পরিবেশন করে তারা বরাবরই বিরাজনীতিকরণের উদ্যোগ গ্রহণ করে আসছে।

তিনি বলেন, দেখুন কি রকম ষড়যন্ত্র! নিউজ করা হয়েছে আজকে এই ঘটনার প্রতিবাদে। একজন সম্পাদক এবং একজন রিপোর্টারের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রতিবাদে বিশ্বের বিভিন্ন মিডিয়ায় এবং সংস্থা থেকে যেসব রিপোর্ট এসেছে প্রত্যেকে বলছে যে- একে ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে। এরা অত্যন্ত চতুর। আন্তর্জাতিক লিংক এদের অনেক শক্ত। তাই এ খবর ছড়িয়ে দিয়েছে যে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির জন্য রিপোর্ট করায় এই পত্রিকার সম্পাদক এবং সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির জন্য রিপোর্ট করা বা টকশোতে অংশ নেওয়ার জন্য সরকার কি একজন লোকের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিয়েছে? তাহলে মিথ্যা সংবাদ আজকে সারা দুনিয়ায় রটানো হচ্ছে যে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির জন্যই রিপোর্ট করাতে এই সাংবাদিক এই সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

সাংবাদিকদের উদ্দশ্যে কাদের বলেন, সাংবাদিকরা আমাদের শত্রু নয়। বিএনপিকে আমরা ভাবি প্রতিপক্ষ। বিএনপি আমাদের ভাবে শত্রু। প্রথম আলো আমাদের শত্রু ভাবে। প্রত্যেকের সম্পাদকীয় পলিসি আছে। (প্রথম আলো) আওয়ামী লীগের সঙ্গে শত্রুতা, যেটা বিএনপির রাজনীতি, তাতে তারা সাপোর্ট দিয়ে যাচ্ছে। এটা হচ্ছে আজকের বাস্তবতা।

তিনি বলেন, সাংবাদিকদের জন্য আওয়ামী লীগ সরকার অষ্টম ওয়েজবোর্ডসহ সাংবাদিক কল্যাণ ভাতার ব্যবস্থা করেছে। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে শেখ হাসিনার সরকার এবং পার্সোনালি আমাদের নেত্রী এ ব্যাপারে অত্যন্ত আন্তরিক। আপনারা আমাদের শত্রু নন। কেউ কেউ আমাদের সঙ্গে শত্রুতা করছে। আমরা এ বিষয়গুলো কখনো আপনাদেরকে বলিনি। আজকে আমাদের পিঠ ঠেকে গেছে শুনতে শুনতে। এসব অপবাদ এসব মিথ্যাচার চলতেই আছে। বিশেষ করে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে অপপ্রচার, মিথ্যাচার, অনলাইনে-ফেসবুকে কুৎসিত প্রচারণা চলছে। পার্সোনালি প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ করা, গালিগালাজ চলছে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ করে আমরা কি ভুল করে ফেললাম? সেই ডিজিটাল মাধ্যম এখন আমাদের বিরুদ্ধে ব্যাবহার হচ্ছে। তারা এ বিষয়টা অত্যন্ত চতুরভাবে করে যাচ্ছে।

এ সময় হত্যা ও গুমের রাজনীতির বিরুদ্ধে জনগণকে সজাগ থাকার আহ্বান জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

আরেকটি পঁচাত্তর সৃষ্টি করতে চায় দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা: কাদের

আপডেট সময় : ০৯:৪৭:৪৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১ এপ্রিল ২০২৩

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আরেকটি পঁচাত্তর সৃষ্টি করতে চায় দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারীরা।

শনিবার (১ এপ্রিল) দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের এক যৌথসভায় তিনি এ কথা বলেন। দলটির সভাপতি-সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য এবং ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের নিয়ে এই যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দৈনিক প্রথম আলো তাদের নিজস্ব প্রভুদের ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের জন্য জাতির সামনে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করে তরুণ সমাজের মনে হতাশা ও ক্ষোভ সৃষ্টির জন্য উস্কানি দেওয়ার অপচেষ্টা করেছে। অনেকে বলেছেন যে এটা তাদের একটা ভুল। আমি তাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই- স্বাধীনতা দিবসের দিনে বাঙালি জাতির ৫২ বছরের অর্জন মর্যাদা নিয়ে তামাশা করা সাধারণ ভুল নয়। একটি ফৌজদারি অপরাধ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, স্বাধীনতা দিবসে প্রথম আলোর এই উদ্যোগ জাতিসত্তা বিনাশী অপতৎপরতা নয় কি? স্বাধীনতা দিবস তরুণ প্রজন্মের কাছে দেশপ্রেম ও দেশাত্মবোধ সৃষ্টির এক অনন্য দিন। অথচ এই দিনে পলিটিক্যালি সিলেক্টেড বিশেষ এজেন্ডা সেটিং এর উদ্দেশ্য কি? এই সংবাদটি মহান মুক্তিযুদ্ধ মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ অর্জনকে অস্বীকার করার সামিল নয়?

কাদের অভিযোগ করে আরও বলেন, ঐতিহ্যগতভাবেই দৈনিকটি এক বিশেষ স্বার্থান্বেষী মহলের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে থাকে। আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক সংবাদ পরিবেশন করে তারা বরাবরই বিরাজনীতিকরণের উদ্যোগ গ্রহণ করে আসছে।

তিনি বলেন, দেখুন কি রকম ষড়যন্ত্র! নিউজ করা হয়েছে আজকে এই ঘটনার প্রতিবাদে। একজন সম্পাদক এবং একজন রিপোর্টারের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রতিবাদে বিশ্বের বিভিন্ন মিডিয়ায় এবং সংস্থা থেকে যেসব রিপোর্ট এসেছে প্রত্যেকে বলছে যে- একে ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে। এরা অত্যন্ত চতুর। আন্তর্জাতিক লিংক এদের অনেক শক্ত। তাই এ খবর ছড়িয়ে দিয়েছে যে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির জন্য রিপোর্ট করায় এই পত্রিকার সম্পাদক এবং সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির জন্য রিপোর্ট করা বা টকশোতে অংশ নেওয়ার জন্য সরকার কি একজন লোকের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিয়েছে? তাহলে মিথ্যা সংবাদ আজকে সারা দুনিয়ায় রটানো হচ্ছে যে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির জন্যই রিপোর্ট করাতে এই সাংবাদিক এই সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

সাংবাদিকদের উদ্দশ্যে কাদের বলেন, সাংবাদিকরা আমাদের শত্রু নয়। বিএনপিকে আমরা ভাবি প্রতিপক্ষ। বিএনপি আমাদের ভাবে শত্রু। প্রথম আলো আমাদের শত্রু ভাবে। প্রত্যেকের সম্পাদকীয় পলিসি আছে। (প্রথম আলো) আওয়ামী লীগের সঙ্গে শত্রুতা, যেটা বিএনপির রাজনীতি, তাতে তারা সাপোর্ট দিয়ে যাচ্ছে। এটা হচ্ছে আজকের বাস্তবতা।

তিনি বলেন, সাংবাদিকদের জন্য আওয়ামী লীগ সরকার অষ্টম ওয়েজবোর্ডসহ সাংবাদিক কল্যাণ ভাতার ব্যবস্থা করেছে। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে শেখ হাসিনার সরকার এবং পার্সোনালি আমাদের নেত্রী এ ব্যাপারে অত্যন্ত আন্তরিক। আপনারা আমাদের শত্রু নন। কেউ কেউ আমাদের সঙ্গে শত্রুতা করছে। আমরা এ বিষয়গুলো কখনো আপনাদেরকে বলিনি। আজকে আমাদের পিঠ ঠেকে গেছে শুনতে শুনতে। এসব অপবাদ এসব মিথ্যাচার চলতেই আছে। বিশেষ করে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে অপপ্রচার, মিথ্যাচার, অনলাইনে-ফেসবুকে কুৎসিত প্রচারণা চলছে। পার্সোনালি প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ করা, গালিগালাজ চলছে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ করে আমরা কি ভুল করে ফেললাম? সেই ডিজিটাল মাধ্যম এখন আমাদের বিরুদ্ধে ব্যাবহার হচ্ছে। তারা এ বিষয়টা অত্যন্ত চতুরভাবে করে যাচ্ছে।

এ সময় হত্যা ও গুমের রাজনীতির বিরুদ্ধে জনগণকে সজাগ থাকার আহ্বান জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।