ঢাকা ০১:১৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আদর্শিক নেতৃত্বে তানোর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ময়না

আশরাফুল আলম , তানোর থেকে :
  • আপডেট সময় : ০৯:০৪:৪১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ মে ২০২৩ ১৭২ বার পড়া হয়েছে

রাজশাহীর তানোর উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি,উপজেলা চেয়ারম্যান, স্থানীয় সাংসদ প্রতিনিধি এবং কলমা ইউপির দুই বারের সফল সাবেক চেয়ারম্যান ও নেতৃত্ব তৈরীর কারিগর জননন্দিত রাজনৈতিক নেতা লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না।দেশের গণতন্ত্র ও জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে তিনি থেকেছেন সামনের সারিতে দিয়েছেন সফল নেতৃত্ব,দল ও জনগণের অধিকার রক্ষায় তিনি একজন নিবেদিতপ্রাণ,সেরা সংগঠক, কর্মী-জনবান্ধব,আদর্শিক,পরীক্ষিত ও লড়াকু সৈনিক হিসেবে ধীরে ধীরে গণমানুষের আস্থার প্রতিক ও নেতায় পরিণত হয়ে উঠছেন।
জানা গেছে, স্থানীয় সাংসদ এবং সাবেক সফল শিল্প প্রতিমন্ত্রী ও তিন বারের সাংসদ গণমানুষের নেতা আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরীর পরবর্তী নেতৃত্ব তৃণমূল আলোচনায় ও পচ্ছন্দের শীর্ষে রয়েছেন ময়না।

রাজশাহী-১ আসনের রাজনৈতিক অঙ্গনে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এমপি ফারুক চৌধূরীর কোনো বিকল্প নাই কেউ সেটা কল্পনাও করেন না।কিন্ত্ত তার অবর্তমান বা পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে যদি কেউ আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধ করে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেন সেটা ময়না ব্যতিত আর কারো পক্ষে সম্ভব নয় তৃণমূল ময়নাকেই এমপি ফারুক চৌধূরীর পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে বিবেচনা করছে।ময়না তার কাজের মাধ্যমে একাধিকবার তার প্রমাণ দিয়েছেন।
জানা গেছে,রাজশাহীর সাধারণ মানুষের কাছে এখানো ব্যাপক জনপ্রিয় রয়েছেন এমপি ফারুক চৌধূরী।তবে তার দিকনির্দেশনা ও ছায়ায় তার হাতে ধীরে ধীরে গড়ে উঠা রাজনৈতিক নেতা ময়নাও নেতৃত্বের গুনে সাধারণ মানুষের কাছে সমান জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন।দেশের
প্রচলিত রাজনৈতিক ধারায় থাকলেও লোভ লালসার স্রোতে তিনি গা ভাসিয়ে দেননি।তিনি তৃণমুল নেতা ও কমী-সমথর্কদের সঙ্গে থেকে এখনও চালিয়ে যাচ্ছেন সংগ্রাম।এই সংগ্রাম রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন সূচনার সংগ্রাম।তিনি উপজেলা আওয়ামী যুবলীগসহ সব সংগঠনকেই অর্থ নয় মেধার কাছে জিম্মি রাখতে চান তিনি বর্তমান গণতান্ত্রিক সরকারের উন্নয়ন ধারাকে এগিয়ে নিতে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনকে ঐক্যবদ্ধ করে নিরলস ভাবে কাজ করে চলেছেন।

ময়না বলেন, রাজশাহীর প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনসহ দলের প্রতিটি রাজনৈতিক কর্মসূচিতে সামনে থেকে তিনি নেতৃত্ব দিয়ে গেছেন এবং এখনো রয়েছেন।তিনি বলেন, ছাত্রলীগ,যুবলীগ হয়ে আজ উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে দেখতে পাচ্ছি এখনও তৃণমুল নেতাকর্মীদের কথা বলার তেমন কোনো জায়গা নেই।সাধারণ নেতাকর্মীরা বড় নেতাদের কাছে পৌচ্ছাতে পারেন না। সুবিধাভোগীদের ভিড়ে তাদের দাবির কথা, সুখ-দুঃখের কথা বলার সুযোগ পান না।আমি এসব অবহেলিত নেতাকর্মীদের সঙ্গে থেকেছি এখনও আছি।আমি এসব মানুষদের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগকে নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই।ময়না দলের একজন আদর্শিক ও পরীক্ষিত নেতা। যিনি কখানো কোনো লোভ-লালসার মোহে আদর্শচ্যুত বা মুল ধারার বাইরে যাননি।তিনি এখানো ইউনিয়ন,উপজেলা বা জেলা যেখানেই তিনি যান সেখানেই সাধারণ নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশে যান।তিনি তাদেরই প্রতিনিধি হিসাবে শোনেন সুখ-দুঃখ ও বঞ্চনার কথা। তার মতে তৃণমুল নেতাকর্মীরাই আওয়ামী লীগের প্রাণ।তারা সুবিধা পেতে দৌড়ে যান না।বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ভরসাও তারাই।কিন্ত্ত তাদের সংগঠিত করার মত নেতৃত্বের এতোদিন যে অভাব ছিল এখন তিনি সেটা দুর করতে চান।
জানা যায়, মুক্তিযদ্ধের চেতনাপুষ্ট আওয়ামীলীগ পারিবারিক আবহে বেড়ে উঠেছেন ময়না।স্কুল জীবন থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যুক্ত হন।রাজনীতিতে সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে সোচ্চার একটি নাম ময়না তিনি সব সময় সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে সক্রিয় থেকেছেন।তিনি দু’বার বিপুল ভোটের ব্যবধানে কলমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও একবার উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করছেন।ইতিমধ্যে ময়না তার নেতৃত্বের গুণে গণমানুষের নেতা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। আওয়ামী লীগ,যুবলীগ,ছাত্রলীগসহ সহযোগী সকল সংগঠনের নেতাকর্মীদের কাছে সমানভাবে জনপ্রিয়।এসব সংগঠনের নেতাকর্মীরা এখনো তকেই তাদের প্রতিনিধি মনে করেন ও তাদের যে কোন সমস্যায় ছুটে আসেন তাঁর কাছেই।
সমস্যার সমাধান পাওয়া না পাওয়া বড় কথা নয়,কিন্ত্ত ময়না মনোযোগ সহকারে তাদের কথা শোনেন।ময়না আরও বলেন,তিনি সব সময় নেতাকর্মীদের পাশে থেকেছেন এখনও আছেন।তিনি বলেন,আমি ব্যক্তি স্বার্থের উর্দ্ধে থেকে দীর্ঘসময় রাজনীতিতে দলীয় স্বার্থকেই প্রাধান্য দিয়েছি এখনো দিয়ে যাচ্ছি,তিনি বলেন,তৃণমূল নেতাকর্মীরাই দলের প্রাণ তারা কোনো লোভ-লালসায় দল,নেতা ও নেতৃত্বের সঙ্গে বেঈমানী করে না।এ প্রসঙ্গে তানোরের বাধাঁইড় ইউপি আওয়ামী লীগের লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, ময়না ভাই সব সময় দলের নেতাকর্মীদের পাশে ছিলেন এখনো আছেন এবং মুলস্রোতের সঙ্গে থেকে দলীয় স্বার্থকে প্রধান্য দিয়ে রাজনীতি করেন।তিনি বলেন, ময়না ভাই একজন আদর্শিক ও পরীক্ষিত নেতা দলের যে কোন প্রয়োজনে তিনি সব সময় নেতাকর্মীদের পাশে ছিলেন এখানো আছেন।তিনি বলেন,আমাদের প্রাণপ্রিয় নেতা মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরী মহোদয়ের পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে আমরা তৃণমূলের নেতাকর্মীরা ময়না ভাইকেই বিবেচনা করছি,এমনকি পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে ময়না ভাই পচ্ছন্দের শীর্ষে রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

আদর্শিক নেতৃত্বে তানোর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ময়না

আপডেট সময় : ০৯:০৪:৪১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ মে ২০২৩

রাজশাহীর তানোর উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি,উপজেলা চেয়ারম্যান, স্থানীয় সাংসদ প্রতিনিধি এবং কলমা ইউপির দুই বারের সফল সাবেক চেয়ারম্যান ও নেতৃত্ব তৈরীর কারিগর জননন্দিত রাজনৈতিক নেতা লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না।দেশের গণতন্ত্র ও জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে তিনি থেকেছেন সামনের সারিতে দিয়েছেন সফল নেতৃত্ব,দল ও জনগণের অধিকার রক্ষায় তিনি একজন নিবেদিতপ্রাণ,সেরা সংগঠক, কর্মী-জনবান্ধব,আদর্শিক,পরীক্ষিত ও লড়াকু সৈনিক হিসেবে ধীরে ধীরে গণমানুষের আস্থার প্রতিক ও নেতায় পরিণত হয়ে উঠছেন।
জানা গেছে, স্থানীয় সাংসদ এবং সাবেক সফল শিল্প প্রতিমন্ত্রী ও তিন বারের সাংসদ গণমানুষের নেতা আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরীর পরবর্তী নেতৃত্ব তৃণমূল আলোচনায় ও পচ্ছন্দের শীর্ষে রয়েছেন ময়না।

রাজশাহী-১ আসনের রাজনৈতিক অঙ্গনে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এমপি ফারুক চৌধূরীর কোনো বিকল্প নাই কেউ সেটা কল্পনাও করেন না।কিন্ত্ত তার অবর্তমান বা পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে যদি কেউ আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধ করে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেন সেটা ময়না ব্যতিত আর কারো পক্ষে সম্ভব নয় তৃণমূল ময়নাকেই এমপি ফারুক চৌধূরীর পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে বিবেচনা করছে।ময়না তার কাজের মাধ্যমে একাধিকবার তার প্রমাণ দিয়েছেন।
জানা গেছে,রাজশাহীর সাধারণ মানুষের কাছে এখানো ব্যাপক জনপ্রিয় রয়েছেন এমপি ফারুক চৌধূরী।তবে তার দিকনির্দেশনা ও ছায়ায় তার হাতে ধীরে ধীরে গড়ে উঠা রাজনৈতিক নেতা ময়নাও নেতৃত্বের গুনে সাধারণ মানুষের কাছে সমান জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন।দেশের
প্রচলিত রাজনৈতিক ধারায় থাকলেও লোভ লালসার স্রোতে তিনি গা ভাসিয়ে দেননি।তিনি তৃণমুল নেতা ও কমী-সমথর্কদের সঙ্গে থেকে এখনও চালিয়ে যাচ্ছেন সংগ্রাম।এই সংগ্রাম রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন সূচনার সংগ্রাম।তিনি উপজেলা আওয়ামী যুবলীগসহ সব সংগঠনকেই অর্থ নয় মেধার কাছে জিম্মি রাখতে চান তিনি বর্তমান গণতান্ত্রিক সরকারের উন্নয়ন ধারাকে এগিয়ে নিতে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনকে ঐক্যবদ্ধ করে নিরলস ভাবে কাজ করে চলেছেন।

ময়না বলেন, রাজশাহীর প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনসহ দলের প্রতিটি রাজনৈতিক কর্মসূচিতে সামনে থেকে তিনি নেতৃত্ব দিয়ে গেছেন এবং এখনো রয়েছেন।তিনি বলেন, ছাত্রলীগ,যুবলীগ হয়ে আজ উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে দেখতে পাচ্ছি এখনও তৃণমুল নেতাকর্মীদের কথা বলার তেমন কোনো জায়গা নেই।সাধারণ নেতাকর্মীরা বড় নেতাদের কাছে পৌচ্ছাতে পারেন না। সুবিধাভোগীদের ভিড়ে তাদের দাবির কথা, সুখ-দুঃখের কথা বলার সুযোগ পান না।আমি এসব অবহেলিত নেতাকর্মীদের সঙ্গে থেকেছি এখনও আছি।আমি এসব মানুষদের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগকে নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই।ময়না দলের একজন আদর্শিক ও পরীক্ষিত নেতা। যিনি কখানো কোনো লোভ-লালসার মোহে আদর্শচ্যুত বা মুল ধারার বাইরে যাননি।তিনি এখানো ইউনিয়ন,উপজেলা বা জেলা যেখানেই তিনি যান সেখানেই সাধারণ নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশে যান।তিনি তাদেরই প্রতিনিধি হিসাবে শোনেন সুখ-দুঃখ ও বঞ্চনার কথা। তার মতে তৃণমুল নেতাকর্মীরাই আওয়ামী লীগের প্রাণ।তারা সুবিধা পেতে দৌড়ে যান না।বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ভরসাও তারাই।কিন্ত্ত তাদের সংগঠিত করার মত নেতৃত্বের এতোদিন যে অভাব ছিল এখন তিনি সেটা দুর করতে চান।
জানা যায়, মুক্তিযদ্ধের চেতনাপুষ্ট আওয়ামীলীগ পারিবারিক আবহে বেড়ে উঠেছেন ময়না।স্কুল জীবন থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যুক্ত হন।রাজনীতিতে সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে সোচ্চার একটি নাম ময়না তিনি সব সময় সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে সক্রিয় থেকেছেন।তিনি দু’বার বিপুল ভোটের ব্যবধানে কলমা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও একবার উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করছেন।ইতিমধ্যে ময়না তার নেতৃত্বের গুণে গণমানুষের নেতা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। আওয়ামী লীগ,যুবলীগ,ছাত্রলীগসহ সহযোগী সকল সংগঠনের নেতাকর্মীদের কাছে সমানভাবে জনপ্রিয়।এসব সংগঠনের নেতাকর্মীরা এখনো তকেই তাদের প্রতিনিধি মনে করেন ও তাদের যে কোন সমস্যায় ছুটে আসেন তাঁর কাছেই।
সমস্যার সমাধান পাওয়া না পাওয়া বড় কথা নয়,কিন্ত্ত ময়না মনোযোগ সহকারে তাদের কথা শোনেন।ময়না আরও বলেন,তিনি সব সময় নেতাকর্মীদের পাশে থেকেছেন এখনও আছেন।তিনি বলেন,আমি ব্যক্তি স্বার্থের উর্দ্ধে থেকে দীর্ঘসময় রাজনীতিতে দলীয় স্বার্থকেই প্রাধান্য দিয়েছি এখনো দিয়ে যাচ্ছি,তিনি বলেন,তৃণমূল নেতাকর্মীরাই দলের প্রাণ তারা কোনো লোভ-লালসায় দল,নেতা ও নেতৃত্বের সঙ্গে বেঈমানী করে না।এ প্রসঙ্গে তানোরের বাধাঁইড় ইউপি আওয়ামী লীগের লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চেয়ারম্যান আতাউর রহমান বলেন, ময়না ভাই সব সময় দলের নেতাকর্মীদের পাশে ছিলেন এখনো আছেন এবং মুলস্রোতের সঙ্গে থেকে দলীয় স্বার্থকে প্রধান্য দিয়ে রাজনীতি করেন।তিনি বলেন, ময়না ভাই একজন আদর্শিক ও পরীক্ষিত নেতা দলের যে কোন প্রয়োজনে তিনি সব সময় নেতাকর্মীদের পাশে ছিলেন এখানো আছেন।তিনি বলেন,আমাদের প্রাণপ্রিয় নেতা মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধূরী মহোদয়ের পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে আমরা তৃণমূলের নেতাকর্মীরা ময়না ভাইকেই বিবেচনা করছি,এমনকি পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে ময়না ভাই পচ্ছন্দের শীর্ষে রয়েছে।