ঢাকা ০৩:০৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অধিক মূল্যস্ফীতিতে আমানত বাড়লেও প্রবৃদ্ধিতে ভাটা

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৪:১৪:৫৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩ ৯৮ বার পড়া হয়েছে

দেশে অধিক মূল্যস্ফীতির কারণে ব্যাংকের আমানতের প্রবৃদ্ধিতে প্রভাব পড়েছে। জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়ায় মূলত মানুষের ক্রয় সক্ষমতা না থাকা এবং ও সঞ্চয় ভেঙে ফেলায় আমানতের প্রবৃদ্ধি হ্রাস পেয়েছে। সদ্য বিদায়ী বছর শেষে ব্যাংকে ৮৬ হাজার ৯৩২ কোটি টাকা আমানত বেড়েছে। ফলে বছর শেষে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ। অন্যদিকে ২০২১ সালে ব্যাংক আমানতের প্রবৃদ্ধি ছিল ৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ। অর্থাৎ ২০২১ সালে চেয়ে ২০২২ সালে ব্যাংক আমানত তুলনামুলক বাড়েনি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রেমিট্যান্স প্রবাহ কমা, ঋণপ্রবাহ বৃদ্ধি ও নতুন সঞ্চয় কমে যাওয়ার কারণে ব্যাংকে আমানত কমেছে। আমানত বাড়াতে ব্যাংকগুলোতে নানা পদক্ষেপ নেওয়ায় গেল ডিসেম্বর মাস শেষে আমানত কিছুটা বেড়ে যায়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০২১ সাল শেষে ব্যাংকিং খাতে আমানত ছিল প্রায় ১৫ লাখ ৫৬ হাজার ৩১ কোটি লাখ টাকা, যা ২০২২ সালে বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৬ লাখ ৪২ হাজার ৯৬৪ কোটি টাকায়। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে ব্যাংকিং খাতে আমানত বেড়েছে প্রায় ৮৬ হাজার ৯৩২ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। ২০২২ সালে আমানতের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ, যা ২০২১ সালের চেয়ে কম। ২০২১ সালে সামগ্রিকভাবে আমানতের প্রবৃদ্ধি ছিল ৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

২০১৯ সাল থেকে ধারাবাহিকভাবে কমে আসছে আমানতের প্রবৃদ্ধি। ২০১৯ সালের তুলনায় ২০২০ সালে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ১৩ শতাংশ। ২০২০ সালের তুলনায় ২০২১ সালে এ প্রবৃদ্ধি ছিল ৯ দশশিক ৬৭ শতাংশ। ২০২১ তুলনায় ২০২২ সালে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

ttt2

খাত সংশ্লিষ্টরা জানায়, ব্যাংক খাতে আমানতের প্রবৃদ্ধি কমার জন্য ডলার সংকট একটি কারণ। ডলার সংকটের কারণ আমদানি ব্যয় বেড়ে গেছে। ফলে ভোক্তা পর্যায়ে বেশি দামে পণ্য কিনতে হচ্ছে। এ সময় ভোক্তার আয় সে অর্থে বাড়েনি। বাড়তি দামে পণ্য কেনার কারণে ভোক্তারা আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের ভারসাম্য রক্ষা করতে পারছেন না। এতে ব্যাংকে নতুন সঞ্চয় কমে গেছে। একই সঙ্গে ভোক্তাদের সংসারের বাড়তি ব্যয় মেটাতে ব্যাংক থেকে আগের সঞ্চয় ভেঙে খরচ করতে হচ্ছে। ফলে সামগ্রিকভাবে ব্যাংক আমানত প্রবৃদ্ধিতে প্রভাব পড়েছে।

জানতে চাইলে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (পিআরআইবি)’র প্রধান নির্বাহী ড. আহসান এইচ মনসুর ঢাকা মেইলকে বলেন, ডলার সংকটই ব্যাংক আমানতের প্রবৃদ্ধি কমায় প্রভাব পড়েছে। ব্যাংকগুলো আমদানি ব্যয় মেটাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ডলার নিচ্ছে। আর বাজার থেকে বড় একটি অংট কেন্দ্রীয় ব্যাংকে চলে যাওয়ায় তারল্যের ওপরও প্রভাব পড়ছে।

এদিকে, দেশে অধিক মূল্যস্ফীতির কারণে ব্যাংকের আমানতের প্রবৃদ্ধিতে প্রভাব পড়েছে। জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়ায় মূলত মানুষের ক্রয় সক্ষমতার না থাকা এবং সঞ্চয় ভেঙে ফেলায় আমানতের প্রবৃদ্ধি হ্রাস পেয়েছে। উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষ জীবনযাত্রার ব্যয় মেটাতে হিমশিম খাচ্ছেন। বহু পরিবার সঞ্চয় ভেঙে তাদের প্রয়োজন মেটাচ্ছে। ব্যাংক খাতে অর্থ কমে যাওয়াসহ নানামুখী চ্যালেঞ্জ বাড়ায় আমানতের ওপর প্রভাব পড়ছে। ফলে ক্রমান্বয়ে প্রবৃদ্ধি কমছে। সুত্রঃ ঢাকা মেইল

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

অধিক মূল্যস্ফীতিতে আমানত বাড়লেও প্রবৃদ্ধিতে ভাটা

আপডেট সময় : ০৪:১৪:৫৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩

দেশে অধিক মূল্যস্ফীতির কারণে ব্যাংকের আমানতের প্রবৃদ্ধিতে প্রভাব পড়েছে। জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়ায় মূলত মানুষের ক্রয় সক্ষমতা না থাকা এবং ও সঞ্চয় ভেঙে ফেলায় আমানতের প্রবৃদ্ধি হ্রাস পেয়েছে। সদ্য বিদায়ী বছর শেষে ব্যাংকে ৮৬ হাজার ৯৩২ কোটি টাকা আমানত বেড়েছে। ফলে বছর শেষে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ। অন্যদিকে ২০২১ সালে ব্যাংক আমানতের প্রবৃদ্ধি ছিল ৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ। অর্থাৎ ২০২১ সালে চেয়ে ২০২২ সালে ব্যাংক আমানত তুলনামুলক বাড়েনি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রেমিট্যান্স প্রবাহ কমা, ঋণপ্রবাহ বৃদ্ধি ও নতুন সঞ্চয় কমে যাওয়ার কারণে ব্যাংকে আমানত কমেছে। আমানত বাড়াতে ব্যাংকগুলোতে নানা পদক্ষেপ নেওয়ায় গেল ডিসেম্বর মাস শেষে আমানত কিছুটা বেড়ে যায়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০২১ সাল শেষে ব্যাংকিং খাতে আমানত ছিল প্রায় ১৫ লাখ ৫৬ হাজার ৩১ কোটি লাখ টাকা, যা ২০২২ সালে বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৬ লাখ ৪২ হাজার ৯৬৪ কোটি টাকায়। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে ব্যাংকিং খাতে আমানত বেড়েছে প্রায় ৮৬ হাজার ৯৩২ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। ২০২২ সালে আমানতের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ, যা ২০২১ সালের চেয়ে কম। ২০২১ সালে সামগ্রিকভাবে আমানতের প্রবৃদ্ধি ছিল ৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

২০১৯ সাল থেকে ধারাবাহিকভাবে কমে আসছে আমানতের প্রবৃদ্ধি। ২০১৯ সালের তুলনায় ২০২০ সালে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ১৩ শতাংশ। ২০২০ সালের তুলনায় ২০২১ সালে এ প্রবৃদ্ধি ছিল ৯ দশশিক ৬৭ শতাংশ। ২০২১ তুলনায় ২০২২ সালে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

ttt2

খাত সংশ্লিষ্টরা জানায়, ব্যাংক খাতে আমানতের প্রবৃদ্ধি কমার জন্য ডলার সংকট একটি কারণ। ডলার সংকটের কারণ আমদানি ব্যয় বেড়ে গেছে। ফলে ভোক্তা পর্যায়ে বেশি দামে পণ্য কিনতে হচ্ছে। এ সময় ভোক্তার আয় সে অর্থে বাড়েনি। বাড়তি দামে পণ্য কেনার কারণে ভোক্তারা আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের ভারসাম্য রক্ষা করতে পারছেন না। এতে ব্যাংকে নতুন সঞ্চয় কমে গেছে। একই সঙ্গে ভোক্তাদের সংসারের বাড়তি ব্যয় মেটাতে ব্যাংক থেকে আগের সঞ্চয় ভেঙে খরচ করতে হচ্ছে। ফলে সামগ্রিকভাবে ব্যাংক আমানত প্রবৃদ্ধিতে প্রভাব পড়েছে।

জানতে চাইলে পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (পিআরআইবি)’র প্রধান নির্বাহী ড. আহসান এইচ মনসুর ঢাকা মেইলকে বলেন, ডলার সংকটই ব্যাংক আমানতের প্রবৃদ্ধি কমায় প্রভাব পড়েছে। ব্যাংকগুলো আমদানি ব্যয় মেটাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ডলার নিচ্ছে। আর বাজার থেকে বড় একটি অংট কেন্দ্রীয় ব্যাংকে চলে যাওয়ায় তারল্যের ওপরও প্রভাব পড়ছে।

এদিকে, দেশে অধিক মূল্যস্ফীতির কারণে ব্যাংকের আমানতের প্রবৃদ্ধিতে প্রভাব পড়েছে। জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়ায় মূলত মানুষের ক্রয় সক্ষমতার না থাকা এবং সঞ্চয় ভেঙে ফেলায় আমানতের প্রবৃদ্ধি হ্রাস পেয়েছে। উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে নিম্ন ও মধ্য আয়ের মানুষ জীবনযাত্রার ব্যয় মেটাতে হিমশিম খাচ্ছেন। বহু পরিবার সঞ্চয় ভেঙে তাদের প্রয়োজন মেটাচ্ছে। ব্যাংক খাতে অর্থ কমে যাওয়াসহ নানামুখী চ্যালেঞ্জ বাড়ায় আমানতের ওপর প্রভাব পড়ছে। ফলে ক্রমান্বয়ে প্রবৃদ্ধি কমছে। সুত্রঃ ঢাকা মেইল