লালপুরের আড়বাবে গৃহবধূর রহস্য জনক মৃত্যু

মেহেরুল ইসলাম মোহন, নাটোর প্রতিবেদকঃ
  • আপডেট সময় : ০১:১৫:২৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ নভেম্বর ২০২৩ ১৪ বার পড়া হয়েছে
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নাটোরের লালপুর উপজেলার আড়বাব ইউনিয়নের হাসেমপুর এলাকায় মিনা রানী (৩০)নামের এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।
বুধবার(১৫ই নভেম্বর২৩)সকালে হাসেমপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
নিহত ঐ গৃহবধূ একই এলাকার উজ্জলের স্ত্রী বলে জানা গেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,স্বামী উজ্জ্বলের সঙ্গে পারিবারিক কলহ লেগেই থাকত স্ত্রী মিনা রানীর এবং ওই নারী দীর্ঘ দিন ধরে শারীরিকভাবে অসুস্থ ছিলেন।এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার সকালে ঐ নারীর মৃত্যু হলে তাঁর এক পায়ের রগ কাটা রক্তাক্ত লাশ পাওয়া যায়।
তবে পরিবারের দাবি, দীর্ঘদিন যাবৎ অসুস্থ থাকায় পরিবারের সদস্যদের অজান্তেই মীনা রানী বটি দিয়ে নিজের পায়ের রগ নিজেই কেটে আত্মহত্যা করেছে।
পরে পরিবারের লোকজন পায়ের রগ কাটা রক্তাক্ত লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়।
এ বিষয়ে,আড়বাব ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য লালন হোসেন বলেন, দীর্ঘদিন যাবত তিনি মেরুদন্ডের রোগে ভুগছিলেন।অসুখ ভালো না হওয়ায় নিজেই বঁটি দিয়ে তার পায়ের রগ কেটে ফেলায় অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণে তার মৃত্যু হয়।
লালপুর থানার আব্দুলপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (আইসি)পুলিশ হিরেন্দ্রনাথ প্রামানিক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তিনি মানসিক চাপে আত্মহত্যা করতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।এ ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।ময়না তদন্তের রিপোর্টে সবকিছু পাওয়া যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

লালপুরের আড়বাবে গৃহবধূর রহস্য জনক মৃত্যু

আপডেট সময় : ০১:১৫:২৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ নভেম্বর ২০২৩

নাটোরের লালপুর উপজেলার আড়বাব ইউনিয়নের হাসেমপুর এলাকায় মিনা রানী (৩০)নামের এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।
বুধবার(১৫ই নভেম্বর২৩)সকালে হাসেমপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
নিহত ঐ গৃহবধূ একই এলাকার উজ্জলের স্ত্রী বলে জানা গেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,স্বামী উজ্জ্বলের সঙ্গে পারিবারিক কলহ লেগেই থাকত স্ত্রী মিনা রানীর এবং ওই নারী দীর্ঘ দিন ধরে শারীরিকভাবে অসুস্থ ছিলেন।এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার সকালে ঐ নারীর মৃত্যু হলে তাঁর এক পায়ের রগ কাটা রক্তাক্ত লাশ পাওয়া যায়।
তবে পরিবারের দাবি, দীর্ঘদিন যাবৎ অসুস্থ থাকায় পরিবারের সদস্যদের অজান্তেই মীনা রানী বটি দিয়ে নিজের পায়ের রগ নিজেই কেটে আত্মহত্যা করেছে।
পরে পরিবারের লোকজন পায়ের রগ কাটা রক্তাক্ত লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়।
এ বিষয়ে,আড়বাব ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য লালন হোসেন বলেন, দীর্ঘদিন যাবত তিনি মেরুদন্ডের রোগে ভুগছিলেন।অসুখ ভালো না হওয়ায় নিজেই বঁটি দিয়ে তার পায়ের রগ কেটে ফেলায় অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণে তার মৃত্যু হয়।
লালপুর থানার আব্দুলপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (আইসি)পুলিশ হিরেন্দ্রনাথ প্রামানিক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তিনি মানসিক চাপে আত্মহত্যা করতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।এ ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।ময়না তদন্তের রিপোর্টে সবকিছু পাওয়া যাবে।