ঢাকা ১১:৪১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাবিতে শামসুজ্জামান’র মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট সময় : ০৩:৪৬:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ ২০২৩ ৯৪ বার পড়া হয়েছে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল ও প্রথম আলো সাংবাদিক শামসুজ্জামান’র নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকরা। বৃহস্পতিবার (৩০ মার্চ) দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (রাবিসাস) সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সবুর লোটাসের সঞ্চালনায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লবের সভাপতি কামরুল হাসান অভি বলেন, ‘বাংলাদেশে সরকারি দল বিরোধী দলের চেয়ে সবচেয়ে বেশি নির্যাতিত করছে সংবাদকর্মীরা। কিছুদিন আগে আমরা দেখেছি সুপ্রীম কোর্টে সাংবাদিকদের যেভাবে নির্দয় ভাবে আহত করা হয়েছে তা বাংলাদেশের ইতিহাসে একটা কালো অধ্যায় রচনা করেছে।
তিনি আরও বলেন, ভাত ডালের সংবাদ নিয়ে প্রথম আলোর সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা প্রধানমন্ত্রীকে বলতে চাই। এদেশে ভাত, ডাল, কথা বলার অধিকার, ভোটের অধিকার, আইনের অধকারসহ কোন অধিকারই প্রতিষ্ঠিত নেই। সাংবাদিকরা এইসব স্বাধীনতার জন্য কাজ করতে গেলে আমাদের উপর নানা চাপ আসে। আমরা সাংবাদিকদের নিরাপত্তা চাই, স্বাধীন দেশে স্বাধীন সাংবাদিকতা করার অধিকার চাই’।
মানববন্ধনে রাবিসাসের সভাপতি তৌসিফ কাইয়ূম বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়নের পর থেকেই এটার ব্যবহার, ধারা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। আমরা দেখেছি সরকার বার বার বলেছে এটার যেন অপব্যবহার করা না হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। কিন্তু আপনি যদি পরিসংখ্যান দেখে এর বেশির ভাগ মামলা করেছে সরকার দলীয় লোকজন। কিছুদিন আগে চট্টগ্রামে যুবলীগের নেতা যুগান্তরের রিপোর্টারের বিরুদ্ধে মামলা করেছে কারন ক্রাইম বিটে কাজ করে। এটা থেকেই বোঝা যায় তারা একটি প্রক্রিয়ার মধ্যে যাচ্ছে। মানুষের মধ্যে সরকার ভয়-ভীতি তৈরি করার চেষ্টা করছে।
এছাড়াও মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ে রিপোর্টাস ইউনিটির সভাপতি শাহিনুর খালিদ বলেন, কোন স্টেটমেন্ট ছাড়াই শামসুজ্জামান ভাইকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে এটা একপ্রকারের অপহরণ। তাকে মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছে ২০ঘণ্টা পর। নিয়ম অনুযায়ি যা ৪ঘণ্টার মধ্যে করতে হয়৷ এটা এক প্রকার উদ্দেশ্য প্রণোদিত। এটা কোনো বিশেষ গোষ্ঠী করেছে। তাই আমাদের দাবি তাকে অনতিবিলম্বে নিশর্ত মুক্তি দেওয়া হোক।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রাবিতে শামসুজ্জামান’র মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন

আপডেট সময় : ০৩:৪৬:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ ২০২৩

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল ও প্রথম আলো সাংবাদিক শামসুজ্জামান’র নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকরা। বৃহস্পতিবার (৩০ মার্চ) দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (রাবিসাস) সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সবুর লোটাসের সঞ্চালনায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লবের সভাপতি কামরুল হাসান অভি বলেন, ‘বাংলাদেশে সরকারি দল বিরোধী দলের চেয়ে সবচেয়ে বেশি নির্যাতিত করছে সংবাদকর্মীরা। কিছুদিন আগে আমরা দেখেছি সুপ্রীম কোর্টে সাংবাদিকদের যেভাবে নির্দয় ভাবে আহত করা হয়েছে তা বাংলাদেশের ইতিহাসে একটা কালো অধ্যায় রচনা করেছে।
তিনি আরও বলেন, ভাত ডালের সংবাদ নিয়ে প্রথম আলোর সাংবাদিককে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা প্রধানমন্ত্রীকে বলতে চাই। এদেশে ভাত, ডাল, কথা বলার অধিকার, ভোটের অধিকার, আইনের অধকারসহ কোন অধিকারই প্রতিষ্ঠিত নেই। সাংবাদিকরা এইসব স্বাধীনতার জন্য কাজ করতে গেলে আমাদের উপর নানা চাপ আসে। আমরা সাংবাদিকদের নিরাপত্তা চাই, স্বাধীন দেশে স্বাধীন সাংবাদিকতা করার অধিকার চাই’।
মানববন্ধনে রাবিসাসের সভাপতি তৌসিফ কাইয়ূম বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়নের পর থেকেই এটার ব্যবহার, ধারা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। আমরা দেখেছি সরকার বার বার বলেছে এটার যেন অপব্যবহার করা না হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। কিন্তু আপনি যদি পরিসংখ্যান দেখে এর বেশির ভাগ মামলা করেছে সরকার দলীয় লোকজন। কিছুদিন আগে চট্টগ্রামে যুবলীগের নেতা যুগান্তরের রিপোর্টারের বিরুদ্ধে মামলা করেছে কারন ক্রাইম বিটে কাজ করে। এটা থেকেই বোঝা যায় তারা একটি প্রক্রিয়ার মধ্যে যাচ্ছে। মানুষের মধ্যে সরকার ভয়-ভীতি তৈরি করার চেষ্টা করছে।
এছাড়াও মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ে রিপোর্টাস ইউনিটির সভাপতি শাহিনুর খালিদ বলেন, কোন স্টেটমেন্ট ছাড়াই শামসুজ্জামান ভাইকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে এটা একপ্রকারের অপহরণ। তাকে মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছে ২০ঘণ্টা পর। নিয়ম অনুযায়ি যা ৪ঘণ্টার মধ্যে করতে হয়৷ এটা এক প্রকার উদ্দেশ্য প্রণোদিত। এটা কোনো বিশেষ গোষ্ঠী করেছে। তাই আমাদের দাবি তাকে অনতিবিলম্বে নিশর্ত মুক্তি দেওয়া হোক।