ঢাকা ০৫:১২ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিএসএফের বাধায় ঝুলে থাকা আখাউড়া-লাকসাম রেলপথের কাজ শুরু

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০২:৪০:৪৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মার্চ ২০২৩ ৭৪ বার পড়া হয়েছে

ভারতীয় সীমান্তরক্ষীর (বিএসএফ) বাধায় দীর্ঘ আড়াই বছর ঝুলে থাকার পর আখাউড়া-লাকসাম রেলসেতু ও রেলপথ নির্মান কাজ আবারও শুরু হয়েছে।

রোববার (১২ মার্চ) সকালে পুনঃনির্মান কাজের উদ্বোধন করেন বিজিবি উত্তর পূর্বাঞ্চলের আঞ্চলিক রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম। এ সময় প্রকল্প পরিচালক শুভক্তগিনসহ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এরই মধ্য দিয়ে নির্মানাধীন ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের আর কোনো বাধা নেই।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ২০১৬ সালে ১ নভেম্বর আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পটির নির্মাণকাজ শুরু হয়। কাজ শুরু হওয়ার পর ২০২০ সালের ৯ সেপ্টেম্বর কসবা ও সালদানদী স্টেশন দুটির অবস্থান বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে হওয়ার কারণে বিএসএফ এ কাজে আপত্তি তোলে। এতে প্রকল্পের কাজ বন্ধ থাকে।

পরে বিভিন্ন পর্যায়ের অব্যাহত কূটনৈতিক তৎপরতা এবং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সঙ্গে বিএসএফের কার্যকর যোগাযোগ শুরু করে। অবশেষে আড়াই বছর পর আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কসবা ও সালদানদী অংশের কাজ রোববার পুনরায় শুরু হয়েছে।

সরাইল রিজিয়নের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম জানান, প্রকল্পটির অনিষ্পন্ন কাজ পুনরায় শুরু করার লক্ষ্যে বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলনে এবং রিজিয়ন, সেক্টর, ব্যাটালিয়ন, কোম্পানি ও বিওপি কমান্ডার পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট বিএসএফ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিজিবি সার্বক্ষণিক যোগাযোগ ও কার্যকর বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

বিশেষ করে গত বছর ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ের সীমান্ত সম্মেলনে বন্ধ থাকা আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের বিষয়টি জোরালোভাবে উত্থাপন করা হয়। একই বছর সেপ্টেম্বর মাসে ভারতের নয়াদিল্লিতে বাংলাদেশ-ভারত প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে প্রকল্পটির বিষয়ে একটি ফলপ্রসূ আলোচনা হয়। এ ছাড়াও অতি সম্প্রতি বাংলাদেশ ও ভারত উভয় রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মধ্যেও প্রকল্পটির অনিষ্পন্ন কাজ শুরু করার ব্যাপারে ফলপ্রসু আলোচনা হয়।

তিনি আরও জানান, গত ১ মার্চ বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল এ কে এম নাজমুল হাসান আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কসবা ও সালদানদী স্টেশন এলাকা পরিদর্শন করেন এবং প্রকল্পটির বন্ধ থাকা কাজ দ্রুত শুরু হবে বলে তিনি দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এরই ধারাবাহিকতায় রোববার দেশের অন্যতম এই প্রকল্পের কাজ পুনরায় শুরু হয়েছে।

রিজিয়ন কমান্ডার বলেন, আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত হলে এটি দেশের জাতীয় অর্থনীতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিজিবি-৬০ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক আশিক হাসান উল্লাহ, প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী সুবক্তগিনসহ বিজিবি ও রেলওয়ের অন্যান্য কর্মকর্তারা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বিএসএফের বাধায় ঝুলে থাকা আখাউড়া-লাকসাম রেলপথের কাজ শুরু

আপডেট সময় : ০২:৪০:৪৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১২ মার্চ ২০২৩

ভারতীয় সীমান্তরক্ষীর (বিএসএফ) বাধায় দীর্ঘ আড়াই বছর ঝুলে থাকার পর আখাউড়া-লাকসাম রেলসেতু ও রেলপথ নির্মান কাজ আবারও শুরু হয়েছে।

রোববার (১২ মার্চ) সকালে পুনঃনির্মান কাজের উদ্বোধন করেন বিজিবি উত্তর পূর্বাঞ্চলের আঞ্চলিক রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম। এ সময় প্রকল্প পরিচালক শুভক্তগিনসহ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এরই মধ্য দিয়ে নির্মানাধীন ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের আর কোনো বাধা নেই।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ২০১৬ সালে ১ নভেম্বর আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পটির নির্মাণকাজ শুরু হয়। কাজ শুরু হওয়ার পর ২০২০ সালের ৯ সেপ্টেম্বর কসবা ও সালদানদী স্টেশন দুটির অবস্থান বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে হওয়ার কারণে বিএসএফ এ কাজে আপত্তি তোলে। এতে প্রকল্পের কাজ বন্ধ থাকে।

পরে বিভিন্ন পর্যায়ের অব্যাহত কূটনৈতিক তৎপরতা এবং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সঙ্গে বিএসএফের কার্যকর যোগাযোগ শুরু করে। অবশেষে আড়াই বছর পর আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কসবা ও সালদানদী অংশের কাজ রোববার পুনরায় শুরু হয়েছে।

সরাইল রিজিয়নের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম জানান, প্রকল্পটির অনিষ্পন্ন কাজ পুনরায় শুরু করার লক্ষ্যে বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ে সীমান্ত সম্মেলনে এবং রিজিয়ন, সেক্টর, ব্যাটালিয়ন, কোম্পানি ও বিওপি কমান্ডার পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট বিএসএফ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিজিবি সার্বক্ষণিক যোগাযোগ ও কার্যকর বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

বিশেষ করে গত বছর ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ের সীমান্ত সম্মেলনে বন্ধ থাকা আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের বিষয়টি জোরালোভাবে উত্থাপন করা হয়। একই বছর সেপ্টেম্বর মাসে ভারতের নয়াদিল্লিতে বাংলাদেশ-ভারত প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে প্রকল্পটির বিষয়ে একটি ফলপ্রসূ আলোচনা হয়। এ ছাড়াও অতি সম্প্রতি বাংলাদেশ ও ভারত উভয় রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মধ্যেও প্রকল্পটির অনিষ্পন্ন কাজ শুরু করার ব্যাপারে ফলপ্রসু আলোচনা হয়।

তিনি আরও জানান, গত ১ মার্চ বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল এ কে এম নাজমুল হাসান আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কসবা ও সালদানদী স্টেশন এলাকা পরিদর্শন করেন এবং প্রকল্পটির বন্ধ থাকা কাজ দ্রুত শুরু হবে বলে তিনি দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এরই ধারাবাহিকতায় রোববার দেশের অন্যতম এই প্রকল্পের কাজ পুনরায় শুরু হয়েছে।

রিজিয়ন কমান্ডার বলেন, আখাউড়া-লাকসাম রেলওয়ে প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত হলে এটি দেশের জাতীয় অর্থনীতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিজিবি-৬০ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক আশিক হাসান উল্লাহ, প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী সুবক্তগিনসহ বিজিবি ও রেলওয়ের অন্যান্য কর্মকর্তারা।