ঢাকা ০১:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে বৃহস্পতিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি

ময়মনসিংহ প্রতিবেদকঃ
  • আপডেট সময় : ০৬:৫৪:৪৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪ ১৩ বার পড়া হয়েছে

সর্বজনীন পেনশনের আওতায় নতুন করে ঘোষণা করা ‘প্রত্যয়’ স্কিম প্রত্যাহারের দাবিতে কর্মবিরতি পালন করেছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাককানইবি) কর্মকর্তা ও কর্মচারী ঐক্য পরিষদ। এই কর্মসুচী গত ২রা জুলাই বুধবার থেকে ৩রা জুলাই বৃহস্পতিবার টানা দুই দিনব্যাপী চলে। কর্মসূচিতে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে প্রত্যয়কে ‘বৈষম্যমূলক’ আখ্যা দিয়ে তা তুলে নিয়ে ‘প্রতিশ্রুত’ সুপার গ্রেড এবং স্বতন্ত্র বেতন স্কেল দেওয়ার দাবি করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারী ঐক্য পরিষদ নেতৃবৃন্দ। আর এ আন্দোলনে চরম ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা।।

বৃহস্পতিবার বার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন একাডেমিক ভবন ঘুরে দেখা যায়, অধিকাংশ বিভাগেই খোলা হয়নি তালা। বন্ধ রয়েছে ক্লাস-পরীক্ষাসহ সব একাডেমিক কার্যক্রম। একই অবস্থা প্রশাসনিক ভবনেও। কিছু কিছু কক্ষের দরজা খোলা হলেও বন্ধ রয়েছে কার্যক্রম। ফলে জরুরি কাজে মার্কশিট, সার্টিফিকেট প্রভৃতি তুলতে আসা শিক্ষার্থীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় (জাককানইবি) শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুইদিন ব্যাপী টানা সর্বাত্মক কর্মবিরতিতে দ্বিতীয় দিনের মতো অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন একাডেমিক কাজ করতে আসা শিক্ষার্থীরা।

এদিকে সর্বজনীন পেনশনের প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের আন্দোলনকে অযৌক্তিক বলে মন্তব্য করায় তার এই বক্তব্যকে প্রত্যাখান করেছেন আন্দোলন,তাদের দাবী অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী মহোদয় না বুঝে একটি ভূল ব্যাখ্যা দিয়েছেন যা মোটেই যুক্তিসঙ্গত নয়। তারা আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতিসহ নানান কর্মসূচি পালন করবেন বলেও জানান।

কর্মসূচিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা পরিষদ এর সভাপতি মোকারেরম হোসেন মাসুম বলেন, “ আমাদের যৌক্তিক দাবিকে মন্ত্রী মহোদয় ভূল ব্যাখ্যা দিয়ে আমাদের বুঝানোর চেষ্টা করছেন। এটা মেনে নেওয়া অসম্ভব। আমরা আমাদের পেশার সুযোগ-সুবিধার কথা বলছি। শ্রীলঙ্কা ও নেপালের মত দেশেও কর্মকর্তাদের জন্য রয়েছে সম্মানজনক পে-স্কেল। তিনি বলেন আমরা আমাদের দাবী বাস্তবায়ন করেই কর্মস্থলে ফিরবো ইনশাআল্লাহ। কারণ এ আন্দোলন সরকারবিরোধী আন্দোলন নয়, এটা আমাদের যৌক্তিক দাবি। এই আন্দোলন অর্থের জন্য নয়, আমাদের মর্যাদার জন্য।

আন্তঃ বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় কর্মকর্তা পরিষদ এর সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম খলিল শান্ত বলেন, দাবির বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে মাননীয় অর্থমন্ত্রী মহোদয় যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন তাতে কোনো আশ্বাস পায়নি। বরং আমাদের যুক্তিগত আন্দোলনকে অযুক্তিক বলে দাবী করেছেন,তিনি অর্থমন্ত্রী মহোদয়ের বক্তব্যকে প্রত্যাখ্যান কর তাঁদের এই কর্মসূচি আন্তঃ বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স ফেডারেশনের সিদ্বান্ত মোতাবেক অনির্দিষ্টকালের আন্দোলন পরিচালিত হবে বলে জানিয়েছেন।

এদিকে-শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতির কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা। কর্মবিরতি থাকায় কোন শিক্ষার্থী তাদের কাজ সম্পন্ন করতে পারছেন না। চরম ভোগান্তিতে পড়েছে শিক্ষার্থীা।

বুধবার দ্বিতীয় দিনের পুর্ণদিবসের কর্মবিরতিকালে প্রতিবাদ সভায় অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন-জাককানইবি এর কর্মচারী ইউনিয়ন এর সভাপতি ও কর্মকর্তা,কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এর যুগ্ম রেজাউল করিম রানা, সনিতির সাধারণ সম্পাদক,কর্মকর্তা, কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এর যুগ্ম আহবায়ক আবুবকর ছিদ্দিক,কর্মচারী ইউনিয়ন এর সাধারণ সম্পাদক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এর যুগ্ম আহবায়ক মজিবর রহমান,কর্মচারী সমিতির সভাপতি ও কর্মকর্তা, কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এর সদস্য সচিব সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে বৃহস্পতিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি

আপডেট সময় : ০৬:৫৪:৪৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪

সর্বজনীন পেনশনের আওতায় নতুন করে ঘোষণা করা ‘প্রত্যয়’ স্কিম প্রত্যাহারের দাবিতে কর্মবিরতি পালন করেছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাককানইবি) কর্মকর্তা ও কর্মচারী ঐক্য পরিষদ। এই কর্মসুচী গত ২রা জুলাই বুধবার থেকে ৩রা জুলাই বৃহস্পতিবার টানা দুই দিনব্যাপী চলে। কর্মসূচিতে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে প্রত্যয়কে ‘বৈষম্যমূলক’ আখ্যা দিয়ে তা তুলে নিয়ে ‘প্রতিশ্রুত’ সুপার গ্রেড এবং স্বতন্ত্র বেতন স্কেল দেওয়ার দাবি করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারী ঐক্য পরিষদ নেতৃবৃন্দ। আর এ আন্দোলনে চরম ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা।।

বৃহস্পতিবার বার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন একাডেমিক ভবন ঘুরে দেখা যায়, অধিকাংশ বিভাগেই খোলা হয়নি তালা। বন্ধ রয়েছে ক্লাস-পরীক্ষাসহ সব একাডেমিক কার্যক্রম। একই অবস্থা প্রশাসনিক ভবনেও। কিছু কিছু কক্ষের দরজা খোলা হলেও বন্ধ রয়েছে কার্যক্রম। ফলে জরুরি কাজে মার্কশিট, সার্টিফিকেট প্রভৃতি তুলতে আসা শিক্ষার্থীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় (জাককানইবি) শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুইদিন ব্যাপী টানা সর্বাত্মক কর্মবিরতিতে দ্বিতীয় দিনের মতো অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন একাডেমিক কাজ করতে আসা শিক্ষার্থীরা।

এদিকে সর্বজনীন পেনশনের প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের আন্দোলনকে অযৌক্তিক বলে মন্তব্য করায় তার এই বক্তব্যকে প্রত্যাখান করেছেন আন্দোলন,তাদের দাবী অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী মহোদয় না বুঝে একটি ভূল ব্যাখ্যা দিয়েছেন যা মোটেই যুক্তিসঙ্গত নয়। তারা আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতিসহ নানান কর্মসূচি পালন করবেন বলেও জানান।

কর্মসূচিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা পরিষদ এর সভাপতি মোকারেরম হোসেন মাসুম বলেন, “ আমাদের যৌক্তিক দাবিকে মন্ত্রী মহোদয় ভূল ব্যাখ্যা দিয়ে আমাদের বুঝানোর চেষ্টা করছেন। এটা মেনে নেওয়া অসম্ভব। আমরা আমাদের পেশার সুযোগ-সুবিধার কথা বলছি। শ্রীলঙ্কা ও নেপালের মত দেশেও কর্মকর্তাদের জন্য রয়েছে সম্মানজনক পে-স্কেল। তিনি বলেন আমরা আমাদের দাবী বাস্তবায়ন করেই কর্মস্থলে ফিরবো ইনশাআল্লাহ। কারণ এ আন্দোলন সরকারবিরোধী আন্দোলন নয়, এটা আমাদের যৌক্তিক দাবি। এই আন্দোলন অর্থের জন্য নয়, আমাদের মর্যাদার জন্য।

আন্তঃ বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় কর্মকর্তা পরিষদ এর সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম খলিল শান্ত বলেন, দাবির বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে মাননীয় অর্থমন্ত্রী মহোদয় যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন তাতে কোনো আশ্বাস পায়নি। বরং আমাদের যুক্তিগত আন্দোলনকে অযুক্তিক বলে দাবী করেছেন,তিনি অর্থমন্ত্রী মহোদয়ের বক্তব্যকে প্রত্যাখ্যান কর তাঁদের এই কর্মসূচি আন্তঃ বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স ফেডারেশনের সিদ্বান্ত মোতাবেক অনির্দিষ্টকালের আন্দোলন পরিচালিত হবে বলে জানিয়েছেন।

এদিকে-শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতির কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা। কর্মবিরতি থাকায় কোন শিক্ষার্থী তাদের কাজ সম্পন্ন করতে পারছেন না। চরম ভোগান্তিতে পড়েছে শিক্ষার্থীা।

বুধবার দ্বিতীয় দিনের পুর্ণদিবসের কর্মবিরতিকালে প্রতিবাদ সভায় অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন-জাককানইবি এর কর্মচারী ইউনিয়ন এর সভাপতি ও কর্মকর্তা,কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এর যুগ্ম রেজাউল করিম রানা, সনিতির সাধারণ সম্পাদক,কর্মকর্তা, কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এর যুগ্ম আহবায়ক আবুবকর ছিদ্দিক,কর্মচারী ইউনিয়ন এর সাধারণ সম্পাদক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এর যুগ্ম আহবায়ক মজিবর রহমান,কর্মচারী সমিতির সভাপতি ও কর্মকর্তা, কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এর সদস্য সচিব সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।