ঢাকা ০৭:০২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পুলিশের গুলিতে আহত ওড়িশার মন্ত্রীকে বাঁচানো গেল না

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৪:১৩:২৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩ ৮৮ বার পড়া হয়েছে

পুলিশের গুলিতে আহত ভারতের ওড়িশার স্বাস্থ্যমন্ত্রী নবকিশোর দাস মারা গেছেন। ভুবনেশ্বরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার (২৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় তিনি মারা যান।

এর আগে দুপুরে ওড়িশার ঝাড়সুগুড়া জেলার ব্রজরাজনগরে গান্ধী চকের কাছে এক পুলিশকর্মী ছোড়া গুলিতে গুরুতর জখম হন নবকিশোর দাস। অভিযোগ, তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন ওড়িশার এক অ্যাসিস্ট্যান্ট সাব ইনস্পেক্টর। পরপর দুইবার গুলি করা হয়েছিল স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে। গুলি লাগার পরেই মন্ত্রীকে গুরুতর আহত অবস্থায় ভর্তি করা হয় স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে।

পরে বিমানে করে ভুবনেশ্বরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি দিয়ে রোববার সন্ধ্যায় জানানো হয়েছে- মন্ত্রীকে দ্রুত জরুরি চিকিৎসা দেওয়া হয়। তার ক্ষতস্থানে অস্ত্রোপচারের পাশাপাশি তাকে আপৎকালীন আইসিইউ পরিষেবাও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোনো চেষ্টাই শেষপর্যন্ত কাজে লাগেনি।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বুকে গুলি লাগায় মন্ত্রীর হৃদযন্ত্রে আঘাত লাগে। যার জেরে হৃৎপিণ্ডের অভ্যন্তরে রক্তক্ষরণও শুরু হয়। তবে তার পরও কৃত্রিমভাবে হৃদযন্ত্রটিকে সচল রাখার ব্যবস্থা করেছিলেন হাসপাতালের চিকিৎসকদের দল। কিন্তু স্বাস্থ্যমন্ত্রীর আঘাত গুরুতর হওয়ায় তাকে শেষ পর্যন্ত বাঁচানো যায়নি।

নবকিশোরের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক। তিনি বলেন, ‘নবকিশোরের মৃত্যুতে ওড়িশা প্রশাসনের বড় ক্ষতি হলো। উনি শুধু সরকারেরই নয় তার দলের কাছেও ছিলেন সম্পদ। জনকল্যাণে স্বাস্থ্য দফতরের হয়ে বহু পদক্ষেপ করেছিলেন। তাতে রাজ্যের মানুষ উপকৃত হয়েছিলেন।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

পুলিশের গুলিতে আহত ওড়িশার মন্ত্রীকে বাঁচানো গেল না

আপডেট সময় : ০৪:১৩:২৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩

পুলিশের গুলিতে আহত ভারতের ওড়িশার স্বাস্থ্যমন্ত্রী নবকিশোর দাস মারা গেছেন। ভুবনেশ্বরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার (২৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় তিনি মারা যান।

এর আগে দুপুরে ওড়িশার ঝাড়সুগুড়া জেলার ব্রজরাজনগরে গান্ধী চকের কাছে এক পুলিশকর্মী ছোড়া গুলিতে গুরুতর জখম হন নবকিশোর দাস। অভিযোগ, তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন ওড়িশার এক অ্যাসিস্ট্যান্ট সাব ইনস্পেক্টর। পরপর দুইবার গুলি করা হয়েছিল স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে। গুলি লাগার পরেই মন্ত্রীকে গুরুতর আহত অবস্থায় ভর্তি করা হয় স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে।

পরে বিমানে করে ভুবনেশ্বরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি দিয়ে রোববার সন্ধ্যায় জানানো হয়েছে- মন্ত্রীকে দ্রুত জরুরি চিকিৎসা দেওয়া হয়। তার ক্ষতস্থানে অস্ত্রোপচারের পাশাপাশি তাকে আপৎকালীন আইসিইউ পরিষেবাও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোনো চেষ্টাই শেষপর্যন্ত কাজে লাগেনি।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বুকে গুলি লাগায় মন্ত্রীর হৃদযন্ত্রে আঘাত লাগে। যার জেরে হৃৎপিণ্ডের অভ্যন্তরে রক্তক্ষরণও শুরু হয়। তবে তার পরও কৃত্রিমভাবে হৃদযন্ত্রটিকে সচল রাখার ব্যবস্থা করেছিলেন হাসপাতালের চিকিৎসকদের দল। কিন্তু স্বাস্থ্যমন্ত্রীর আঘাত গুরুতর হওয়ায় তাকে শেষ পর্যন্ত বাঁচানো যায়নি।

নবকিশোরের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক। তিনি বলেন, ‘নবকিশোরের মৃত্যুতে ওড়িশা প্রশাসনের বড় ক্ষতি হলো। উনি শুধু সরকারেরই নয় তার দলের কাছেও ছিলেন সম্পদ। জনকল্যাণে স্বাস্থ্য দফতরের হয়ে বহু পদক্ষেপ করেছিলেন। তাতে রাজ্যের মানুষ উপকৃত হয়েছিলেন।’