ঢাকা ০৬:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পরিভাষা : রোজা, রোজাদার বা সাওম, সিয়াম ও সায়েম

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৯:০৮:১৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মার্চ ২০২৩ ৮৩ বার পড়া হয়েছে

রোজা ফারসি শব্দ। এর অর্থ জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে দেওয়া। রোজা পালনকারীকে বলা হয় রোজাদার। রোজার অপর নাম সিয়াম। সিয়াম আরবি শব্দ। এটি বহুবচন, এর এক বচন হলো সাওম। সাওম পালনকারীকে বলা হয় সায়েম। এর শাব্দিক অর্থ হলো, রোজা, উপবাস, পানাহার ও নির্জনবাস থেকে বিরত থাকা।

সাওমের পারিভাষিক অর্থ হলো—আল-কামুসুল ফিকহি গ্রন্থে বলা হয়েছে, সাওম হলো, নির্দিষ্ট সময় সুনির্দিষ্ট কার্যাবলি থেকে নিয়তসহ সাওম ভঙ্গকারী হাকিকি (বাস্তবিক) ও হুকমি (বিধানগত) (খাওয়া, পান করা ও যৌনসম্ভোগ) বিষয় থেকে বিরত থাকা। (আল-কামুসুল ফিকহি, পৃষ্ঠা ৩৫০)

লাইস (রহ.) বলেছেন, সাওম হলো খাদ্য ও কথা বলা থেকে বিরত থাকা।’ অর্থাৎ কথা থেকে বিরত থাকা অর্থেও ‘সাওম’ ব্যবহৃত হয়। যেমন—কোরআনে এসেছে, ‘…আর যদি তুমি কোনো লোককে দেখতে পাও তাহলে বলে দিয়ো, আমি পরম করুণাময়ের জন্য চুপ থাকার মানত করেছি। অতএব, আজ আমি কোনো মানুষের সঙ্গে কিছুতেই কথা বলব না। (সুরা মারইয়াম, আয়াত : ২৬)

সুফিয়ান ইবন উয়াইনাহ (রহ.) বলেছেন, ‘সাওম’ অর্থ ধৈর্য। কেননা মানুষ খাদ্য, পানীয় ও স্ত্রী সহবাস থেকে ধৈর্য ধারণ করে। (তাহজিবুল লুগাহ ১২/১৮২, লিসানুল আরব : ১২/৩৫০)

জুরযানি (রহ.) বলনে, সুবহে সাদিক থেকে মাগরিব পর্যন্ত খাদ্য গ্রহণ এবং যৌনাচার থেকে নিয়তের সঙ্গে বিরত থাকার নাম হলো সাওম’ (তারিফাত লিল জুরজানি, পৃষ্ঠা ১৭৮)

বদরুদ্দীন আইনী রহ. বলেন, খাওয়া, পান করা এবং যৌনসম্ভোগ -এ তিনটি কাজ থেকে নিয়তসহ বিরত থাকার নাম হলো সাওম। (আল বিনায়া শরহে হিদায়া ৪/৩)

শরিয়াতের দৃষ্টিতে সুবহে সাদিক থেকে সুর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার, যৌন সম্ভোগ ও শরী‘আত নির্ধারিত বিধি-নিষেধ থেকে নিয়তসহ বিরত থাকাকে সাওম বলে। শরিয়াতে ঈমান, সালাত ও যাকাতের পরেই সাওমের স্থান। যা ইসলামের চতুর্থ রুকন।

মহান আল্লাহ আমাদেকে তার নির্দেশিত রাসুল (সা.) প্রদর্শিত পদ্ধতিতে সিয়াম পালন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

পরিভাষা : রোজা, রোজাদার বা সাওম, সিয়াম ও সায়েম

আপডেট সময় : ০৯:০৮:১৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মার্চ ২০২৩

রোজা ফারসি শব্দ। এর অর্থ জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে দেওয়া। রোজা পালনকারীকে বলা হয় রোজাদার। রোজার অপর নাম সিয়াম। সিয়াম আরবি শব্দ। এটি বহুবচন, এর এক বচন হলো সাওম। সাওম পালনকারীকে বলা হয় সায়েম। এর শাব্দিক অর্থ হলো, রোজা, উপবাস, পানাহার ও নির্জনবাস থেকে বিরত থাকা।

সাওমের পারিভাষিক অর্থ হলো—আল-কামুসুল ফিকহি গ্রন্থে বলা হয়েছে, সাওম হলো, নির্দিষ্ট সময় সুনির্দিষ্ট কার্যাবলি থেকে নিয়তসহ সাওম ভঙ্গকারী হাকিকি (বাস্তবিক) ও হুকমি (বিধানগত) (খাওয়া, পান করা ও যৌনসম্ভোগ) বিষয় থেকে বিরত থাকা। (আল-কামুসুল ফিকহি, পৃষ্ঠা ৩৫০)

লাইস (রহ.) বলেছেন, সাওম হলো খাদ্য ও কথা বলা থেকে বিরত থাকা।’ অর্থাৎ কথা থেকে বিরত থাকা অর্থেও ‘সাওম’ ব্যবহৃত হয়। যেমন—কোরআনে এসেছে, ‘…আর যদি তুমি কোনো লোককে দেখতে পাও তাহলে বলে দিয়ো, আমি পরম করুণাময়ের জন্য চুপ থাকার মানত করেছি। অতএব, আজ আমি কোনো মানুষের সঙ্গে কিছুতেই কথা বলব না। (সুরা মারইয়াম, আয়াত : ২৬)

সুফিয়ান ইবন উয়াইনাহ (রহ.) বলেছেন, ‘সাওম’ অর্থ ধৈর্য। কেননা মানুষ খাদ্য, পানীয় ও স্ত্রী সহবাস থেকে ধৈর্য ধারণ করে। (তাহজিবুল লুগাহ ১২/১৮২, লিসানুল আরব : ১২/৩৫০)

জুরযানি (রহ.) বলনে, সুবহে সাদিক থেকে মাগরিব পর্যন্ত খাদ্য গ্রহণ এবং যৌনাচার থেকে নিয়তের সঙ্গে বিরত থাকার নাম হলো সাওম’ (তারিফাত লিল জুরজানি, পৃষ্ঠা ১৭৮)

বদরুদ্দীন আইনী রহ. বলেন, খাওয়া, পান করা এবং যৌনসম্ভোগ -এ তিনটি কাজ থেকে নিয়তসহ বিরত থাকার নাম হলো সাওম। (আল বিনায়া শরহে হিদায়া ৪/৩)

শরিয়াতের দৃষ্টিতে সুবহে সাদিক থেকে সুর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার, যৌন সম্ভোগ ও শরী‘আত নির্ধারিত বিধি-নিষেধ থেকে নিয়তসহ বিরত থাকাকে সাওম বলে। শরিয়াতে ঈমান, সালাত ও যাকাতের পরেই সাওমের স্থান। যা ইসলামের চতুর্থ রুকন।

মহান আল্লাহ আমাদেকে তার নির্দেশিত রাসুল (সা.) প্রদর্শিত পদ্ধতিতে সিয়াম পালন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।