ঢাকা ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নওগাঁয় ইউনিয়ন পরিষদের বিচারিক কক্ষ থেকে মরদেহ উদ্ধার

নওগাঁ প্রতিবেদক :
  • আপডেট সময় : ০৭:৫৩:২৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৪ অগাস্ট ২০২৩ ৫৯ বার পড়া হয়েছে

নওগাঁর পোরশায় গ্রাম আদালতের কক্ষ থেকে লাফারুল নামে এক ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় দুই গ্রাম পুলিশের সদস্যকে আটক করা হয়েছে।

শুক্রবার (৪ আগস্ট) বিকেলে উপজেলার নিতপুর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালতের কক্ষ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত লাফারুল নিতপুর ইউনিয়নের মাস্টার পাড়া এলাকার কুরবান আলীর ছেলে।

নিতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনামুল হকের জানান, লাফারুলের বিরুদ্ধে এলাকায় ছয় থেকে সাতটি সাইকেল চুরি অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে লাফারুলকে আটক করে গ্রাম পুলিশ। পরে তাকে ইউনিয়ন পরিষদের বিচারিক কক্ষে আটক রেখে সবাই জুমার নামাজ পড়তে যায়। নামাজ শেষ দুপুরের খাবার দিতে গেলে জানালার গ্রীলের সাথে গলায় দড়ি দিয়ে ফাঁস লাগানো মৃতদেহ ঝুলে থাকতে দেখা যায়। পরে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

পোরশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জহুরুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে বিকেলে ঘটনা তদন্তে পুলিশ ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা ইউনিয়ন পরিষদে যান। এরপর মৃতদেহের সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় রহিম ও শাহজাহান নামে দুই গ্রামপুলিশের সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

নওগাঁয় ইউনিয়ন পরিষদের বিচারিক কক্ষ থেকে মরদেহ উদ্ধার

আপডেট সময় : ০৭:৫৩:২৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৪ অগাস্ট ২০২৩

নওগাঁর পোরশায় গ্রাম আদালতের কক্ষ থেকে লাফারুল নামে এক ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় দুই গ্রাম পুলিশের সদস্যকে আটক করা হয়েছে।

শুক্রবার (৪ আগস্ট) বিকেলে উপজেলার নিতপুর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালতের কক্ষ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত লাফারুল নিতপুর ইউনিয়নের মাস্টার পাড়া এলাকার কুরবান আলীর ছেলে।

নিতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনামুল হকের জানান, লাফারুলের বিরুদ্ধে এলাকায় ছয় থেকে সাতটি সাইকেল চুরি অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে লাফারুলকে আটক করে গ্রাম পুলিশ। পরে তাকে ইউনিয়ন পরিষদের বিচারিক কক্ষে আটক রেখে সবাই জুমার নামাজ পড়তে যায়। নামাজ শেষ দুপুরের খাবার দিতে গেলে জানালার গ্রীলের সাথে গলায় দড়ি দিয়ে ফাঁস লাগানো মৃতদেহ ঝুলে থাকতে দেখা যায়। পরে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

পোরশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জহুরুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে বিকেলে ঘটনা তদন্তে পুলিশ ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা ইউনিয়ন পরিষদে যান। এরপর মৃতদেহের সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় রহিম ও শাহজাহান নামে দুই গ্রামপুলিশের সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।