ঢাকা ০৩:৪৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘তারেক রহমানকে ফেরাতে ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে আলোচনা চলছে’

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৬:২৮:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ অগাস্ট ২০২৩ ৫৭ বার পড়া হয়েছে

লন্ডনে বসবাসরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে সাজা কার্যকর করতে ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে ‘আলাপ-আলোচনা চলছে’ বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমরা ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেছি। আলাপ-আলোচনা চলমান আছে।’

বৃহস্পতিবার (৩ আগস্ট) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের উত্তরে এ কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এই মামলা কিন্তু আমাদের সরকার দায়ের করেনি। এই মামলা করেছে তাদের পছন্দের তত্ত্বাবধায়ক সরকার ২০০৭ সালে। কারণ ইয়াজ উদ্দিন সাহেব খালেদা জিয়ার দলের মানুষ ছিলেন। তাকে খালেদা জিয়া ও বিএনপিই রাষ্ট্রপতি বানিয়েছিলেন। ফখরুদ্দিন সাহেবকে ওয়াশিংটন থেকে ধরে এনে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা করা হয়েছিল। সেই সরকার সেনাসমর্থিত ছিল। তখন যিনি সেনাপ্রধান ছিলেন, সাতজনকে ডিঙ্গিয়ে খালেদা জিয়া তাকে সেনাবাহিনীর প্রধান বানিয়েছিলেন। তাদের পছন্দের মানুষরাই যখন ক্ষমতায় তখনই এই মামলা দায়ের হয়েছিল।’

আওয়ামী লীগ তারেক রহমানের ওপর প্রতিহিংসা পরায়ণ হলে দলের পক্ষ থেকেই মামলা করা হত বলে মন্তব্য করেন ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘আসলে আইন, আদালত কোনো কিছুর ওপর তাদের (বিএনপি) আস্থা নেই এবং কোনো কিছুকেই তোয়াক্কা করে না। শুধু ক্ষণে ক্ষণে বিদেশিদের কাছে যায়, আমরা বিদেশিদের কাছে যাই না, বিদেশিরা প্রয়োজনে আমাদের কাছে আসে।’

বিএনপিকে ‘নেতৃত্বশূন্য করতে’ নির্বাচনের আগে তারেক ও জুবাইদার সাজা দেওয়া হয়েছে বলে যে অভিযোগ দলটির নেতারা করেছেন, সে বিষয়েও তথ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, ‘সরকার যদি স্বঃপ্রণোদিত হয়ে কোনো কিছু করত, তাহলে এই মামলার রায় হওয়ার জন্য তো সাড়ে ১৪ বছর অপেক্ষা করতে হত না। নির্বাচন তো এর আগেও দুটো হয়েছে, আমরা ক্ষমতায় থাকাকালীন। এটার সঙ্গে নির্বাচনের তো কোনো সম্পর্ক নেই, আমাদের সরকার প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে মোটেই করেনি। স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় বিচার হয়েছে, বিচারের রায় হয়েছে।’

তারেক রহমানের বক্তব্য প্রচারে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে এক প্রশ্নে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এ ব্যাপারে আগেও একটি রায় ছিল, তারেক রহমানের কোনো বক্তব্য পত্রপত্রিকা বা টেলিভিশনে প্রচার করা যাবে না। প্রধান সারির গণমাধ্যম তারেক রহমানের কোনো বক্তব্য প্রচার করে না। কিন্তু মাঝেমধ্যে কেউ কেউ ভুল করে করে এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় করে, ইউটিউব চ্যানেলে (তারেকের বক্তব্য) প্রচার হয়। আমি মনে করি এগুলো হচ্ছিল বিধায় আদালত আবার সাপ্লিমেন্টারি রায় দিয়েছে। কেউ যদি সেটার ব্যত্যয় ঘটায় তবে নিশ্চিতভাবে আদালত অবমাননা হবে, আদালত অবমাননা হলে আদালত সেক্ষেত্রে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’

বুধবার (২ আগস্ট) রংপুরে প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় ‘স্মরণকালের বিশাল সমাবেশ’ হয়েছে দাবি করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমরা জনসভার ডাক দিয়েছিলাম, সেটি মহাসমাবেশে রূপ নিয়েছে। পুরো রংপুর শহরটা জনসভাস্থলে রূপান্তরিত হয়। লাখ লাখ মানুষ সেখানে যোগদান করেছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের মধ্যে যে বিপুল উৎসাহ, উদ্দীপনা আমরা দেখতে পেয়েছি শেখ হাসিনাকে সম্ভাষণ জানানোর জন্য, জনসভায় যোগ দেওয়ার জন্য, এতেই প্রমাণিত হয়, দেশের মানুষ শেখ হাসিনাকে কতটুকু ভালোবাসে এবং শেখ হাসিনার ওপর মানুষের আস্থা, বিশ্বাস ও সমর্থন রয়েছে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

‘তারেক রহমানকে ফেরাতে ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে আলোচনা চলছে’

আপডেট সময় : ০৬:২৮:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ অগাস্ট ২০২৩

লন্ডনে বসবাসরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে সাজা কার্যকর করতে ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে ‘আলাপ-আলোচনা চলছে’ বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমরা ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেছি। আলাপ-আলোচনা চলমান আছে।’

বৃহস্পতিবার (৩ আগস্ট) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের উত্তরে এ কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এই মামলা কিন্তু আমাদের সরকার দায়ের করেনি। এই মামলা করেছে তাদের পছন্দের তত্ত্বাবধায়ক সরকার ২০০৭ সালে। কারণ ইয়াজ উদ্দিন সাহেব খালেদা জিয়ার দলের মানুষ ছিলেন। তাকে খালেদা জিয়া ও বিএনপিই রাষ্ট্রপতি বানিয়েছিলেন। ফখরুদ্দিন সাহেবকে ওয়াশিংটন থেকে ধরে এনে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা করা হয়েছিল। সেই সরকার সেনাসমর্থিত ছিল। তখন যিনি সেনাপ্রধান ছিলেন, সাতজনকে ডিঙ্গিয়ে খালেদা জিয়া তাকে সেনাবাহিনীর প্রধান বানিয়েছিলেন। তাদের পছন্দের মানুষরাই যখন ক্ষমতায় তখনই এই মামলা দায়ের হয়েছিল।’

আওয়ামী লীগ তারেক রহমানের ওপর প্রতিহিংসা পরায়ণ হলে দলের পক্ষ থেকেই মামলা করা হত বলে মন্তব্য করেন ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘আসলে আইন, আদালত কোনো কিছুর ওপর তাদের (বিএনপি) আস্থা নেই এবং কোনো কিছুকেই তোয়াক্কা করে না। শুধু ক্ষণে ক্ষণে বিদেশিদের কাছে যায়, আমরা বিদেশিদের কাছে যাই না, বিদেশিরা প্রয়োজনে আমাদের কাছে আসে।’

বিএনপিকে ‘নেতৃত্বশূন্য করতে’ নির্বাচনের আগে তারেক ও জুবাইদার সাজা দেওয়া হয়েছে বলে যে অভিযোগ দলটির নেতারা করেছেন, সে বিষয়েও তথ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, ‘সরকার যদি স্বঃপ্রণোদিত হয়ে কোনো কিছু করত, তাহলে এই মামলার রায় হওয়ার জন্য তো সাড়ে ১৪ বছর অপেক্ষা করতে হত না। নির্বাচন তো এর আগেও দুটো হয়েছে, আমরা ক্ষমতায় থাকাকালীন। এটার সঙ্গে নির্বাচনের তো কোনো সম্পর্ক নেই, আমাদের সরকার প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে মোটেই করেনি। স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় বিচার হয়েছে, বিচারের রায় হয়েছে।’

তারেক রহমানের বক্তব্য প্রচারে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে এক প্রশ্নে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এ ব্যাপারে আগেও একটি রায় ছিল, তারেক রহমানের কোনো বক্তব্য পত্রপত্রিকা বা টেলিভিশনে প্রচার করা যাবে না। প্রধান সারির গণমাধ্যম তারেক রহমানের কোনো বক্তব্য প্রচার করে না। কিন্তু মাঝেমধ্যে কেউ কেউ ভুল করে করে এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় করে, ইউটিউব চ্যানেলে (তারেকের বক্তব্য) প্রচার হয়। আমি মনে করি এগুলো হচ্ছিল বিধায় আদালত আবার সাপ্লিমেন্টারি রায় দিয়েছে। কেউ যদি সেটার ব্যত্যয় ঘটায় তবে নিশ্চিতভাবে আদালত অবমাননা হবে, আদালত অবমাননা হলে আদালত সেক্ষেত্রে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’

বুধবার (২ আগস্ট) রংপুরে প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় ‘স্মরণকালের বিশাল সমাবেশ’ হয়েছে দাবি করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমরা জনসভার ডাক দিয়েছিলাম, সেটি মহাসমাবেশে রূপ নিয়েছে। পুরো রংপুর শহরটা জনসভাস্থলে রূপান্তরিত হয়। লাখ লাখ মানুষ সেখানে যোগদান করেছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের মধ্যে যে বিপুল উৎসাহ, উদ্দীপনা আমরা দেখতে পেয়েছি শেখ হাসিনাকে সম্ভাষণ জানানোর জন্য, জনসভায় যোগ দেওয়ার জন্য, এতেই প্রমাণিত হয়, দেশের মানুষ শেখ হাসিনাকে কতটুকু ভালোবাসে এবং শেখ হাসিনার ওপর মানুষের আস্থা, বিশ্বাস ও সমর্থন রয়েছে।’