ঢাকা ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঢাকাকে হারিয়ে কুমিল্লার হ্যাটট্রিক জয়

ক্রীড়া ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ১২:০৪:৫৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৩ ১০০ বার পড়া হয়েছে

প্রথমে ব্যাট করে খুশদিল শাহের ঝোড়ো ফিফটিতে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স সংগ্রহ করে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৮৪ রান। বড় রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে নাসির হোসেনের ৬৬ রানের লড়াইয়ের পরও ঢাকা ডমিনেটরস হেরেছে ৩৩ রানে। হ্যাটট্রিক জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ইমরুল কায়েসের দল।

এর আগে কুমিল্লার দেওয়া লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই সৌম্য সরকার এবং রবিন দাসকে হারিয়ে বিপাকে পড়ে ঢাকা দল। এরপর আহমেদ শেহজাদও ফিরে যান ১৯ রান করে। তবে অধিনায়ক নাসির হোসেন এবং মোহাম্মদ মিঠুনের জুটিতে এগিয়ে যেতে থাকে ঢাকা দল। তবে ৫১ রানের জুটি ভেঙে যায় মিঠুনের আউটে। ফিরে যান ৩৬ রান করে।

এরপর দলকে এগিয়ে নিতে থাকেন নাসির। তুলে নেন অর্ধ-শতক। তাকে শেষ পর্যন্ত যোগ্য সঙ্গ দেন আরিফুল হক তবে দলের হার এড়াতে পারেনি এই দুই ব্যাটার। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ওভার শেষে ঢাকা সংগ্রহ করে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৫১ রান।

দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৬৬ রান করে অপরাজিত থাকেন নাসির। এছাড়া আরিফুল থাকেন ২৪ রানে অপরাজিত। কুমিল্লার হয়ে তানভীর ইসলাম এবং হাসান আলি নেন ১ উইকেট করে। ঢাকার হয়ে তাসকিন আহমেদ এবং নাসির হোসেন ১টি করে উইকেট সংগ্রহ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ঢাকাকে হারিয়ে কুমিল্লার হ্যাটট্রিক জয়

আপডেট সময় : ১২:০৪:৫৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৩

প্রথমে ব্যাট করে খুশদিল শাহের ঝোড়ো ফিফটিতে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স সংগ্রহ করে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৮৪ রান। বড় রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে নাসির হোসেনের ৬৬ রানের লড়াইয়ের পরও ঢাকা ডমিনেটরস হেরেছে ৩৩ রানে। হ্যাটট্রিক জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ইমরুল কায়েসের দল।

এর আগে কুমিল্লার দেওয়া লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই সৌম্য সরকার এবং রবিন দাসকে হারিয়ে বিপাকে পড়ে ঢাকা দল। এরপর আহমেদ শেহজাদও ফিরে যান ১৯ রান করে। তবে অধিনায়ক নাসির হোসেন এবং মোহাম্মদ মিঠুনের জুটিতে এগিয়ে যেতে থাকে ঢাকা দল। তবে ৫১ রানের জুটি ভেঙে যায় মিঠুনের আউটে। ফিরে যান ৩৬ রান করে।

এরপর দলকে এগিয়ে নিতে থাকেন নাসির। তুলে নেন অর্ধ-শতক। তাকে শেষ পর্যন্ত যোগ্য সঙ্গ দেন আরিফুল হক তবে দলের হার এড়াতে পারেনি এই দুই ব্যাটার। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ওভার শেষে ঢাকা সংগ্রহ করে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৫১ রান।

দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৬৬ রান করে অপরাজিত থাকেন নাসির। এছাড়া আরিফুল থাকেন ২৪ রানে অপরাজিত। কুমিল্লার হয়ে তানভীর ইসলাম এবং হাসান আলি নেন ১ উইকেট করে। ঢাকার হয়ে তাসকিন আহমেদ এবং নাসির হোসেন ১টি করে উইকেট সংগ্রহ করেন।