ঢাকা ০৩:১০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুটি আসনে জামানত হারালেন ৫ প্রার্থী

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিবেদকঃ
  • আপডেট সময় : ১০:৪৫:২১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ৭৭ বার পড়া হয়েছে

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (গোমস্তাপুর, নাচোল, ভোলাহাট) ও ৩ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে জামানত হারিয়েছেন জাতীয় পার্টি, জাকের পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ), আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’-সহ ৫ জন প্রার্থী। এর মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে চারজন ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে রয়েছেন একজন প্রার্থী।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মোতাওয়াক্কিল রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তারা হলেন-চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে টেলিভিশন প্রতীকে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) মনোনীত প্রার্থী মো. নবীউল ইসলাম, আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মাথাল প্রতীকের খুরশিদ আলম বাচ্চু, জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক এবং গোলাপ ফুল প্রতীকে জাকের পার্টি মনোনীত প্রার্থী মো. গোলাম মোস্তফা।

অন্যদিকে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে জামানত হারানো প্রার্থী হলেন টেলিভিশন প্রতীকে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী মো. কামরুজ্জামান খাঁন। তিনি পেয়েছেন ৪ হাজার ৪০ ভোট। নিয়ম অনুযায়ী, গণনা হওয়া ভোটের আট ভাগের এক ভাগ ভোট না পাওয়ায় তাদের জামানত বাজেয়াপ্ত হবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, এই আসনে মোট ভোটার ছিলেন ৪ লাখ ৫ হাজার ৪৫০ জন। এর মধ্যে ভোট পড়েছে ১ লাখ ৪১ হাজার ৪০টি। ১৮০টি ভোটকেন্দ্রে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মুহা. জিয়াউর রহমান ৯৪ হাজার ৯২৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র ও আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী মোহাম্মদ আলী সরকার পেয়েছেন ২৫ হাজার ৩৯৯ ভোট। ভোটার উপস্থিতির হার ছিল প্রায় ৩৪ শতাংশ।

রিটার্নিং কর্মকর্তা আরও জানান, এই আসনে টেলিভিশন প্রতীকে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী মো. নবীউল ইসলাম পেয়েছেন ১ হাজার ৪৭৩ ভোট, আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী খুরশিদ আলম বাচ্চু মাথাল প্রতীকে ১৪ হাজার ৩০৯ ভোট, জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক ৩ হাজার ৬১ ভোট, জাকের পার্টি মনোনীত প্রার্থী মো. গোলাম মোস্তফা গোলাপ ফুল প্রতীকে ১ হাজার ৮৭০ ভোট পেয়েছেন।

এদিকে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক একেএম গালিভ খাঁন জানান, এই আসনে মোট ভোটার ৪ লাখ ১১ হাজার ৪৯৫ জন। এর মধ্যে ভোট দিয়েছেন ১ লাখ ১৯ হাজার ৬৫৮ জন। ভোটার উপস্থিতির হার প্রায় ২৯ শতাংশ। ১৭২টি ভোটকেন্দ্রে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল ওদুদ ৫৯ হাজার ৬৩৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী সামিউল হক লিটন আপেল প্রতীকে পেয়েছেন ৫৫ হাজার ৯৮০ ভোট। জামানত হারানো টেলিভিশন প্রতীকে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী মো. কামরুজ্জামান খাঁন পেয়েছেন ৪ হাজার ৪০ ভোট।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মোতাওয়াক্কিল রহমান জানান, নিয়ম অনুযায়ী কাঙ্ক্ষিত ভোট না পেলে সেই প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত করে নির্বাচন কমিশন। সেই হিসেবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুইটি আসনে ৫ জন প্রার্থী তাদের জামানত হারাবেন।

প্রসঙ্গত, সংসদীয় আসন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (সদর) থেকে বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (নাচোল-গোমস্তাপুর-ভোলাহাট) থেকে বিএনপির সংসদ সদস্য আমিনুল ইসলাম পদত্যাগ করায় আসন দুটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এই আসন দুটিতে তফসিল অনুযায়ী বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুটি আসনে জামানত হারালেন ৫ প্রার্থী

আপডেট সময় : ১০:৪৫:২১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (গোমস্তাপুর, নাচোল, ভোলাহাট) ও ৩ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে জামানত হারিয়েছেন জাতীয় পার্টি, জাকের পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ), আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’-সহ ৫ জন প্রার্থী। এর মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে চারজন ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে রয়েছেন একজন প্রার্থী।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মোতাওয়াক্কিল রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তারা হলেন-চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে টেলিভিশন প্রতীকে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) মনোনীত প্রার্থী মো. নবীউল ইসলাম, আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মাথাল প্রতীকের খুরশিদ আলম বাচ্চু, জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক এবং গোলাপ ফুল প্রতীকে জাকের পার্টি মনোনীত প্রার্থী মো. গোলাম মোস্তফা।

অন্যদিকে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে জামানত হারানো প্রার্থী হলেন টেলিভিশন প্রতীকে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী মো. কামরুজ্জামান খাঁন। তিনি পেয়েছেন ৪ হাজার ৪০ ভোট। নিয়ম অনুযায়ী, গণনা হওয়া ভোটের আট ভাগের এক ভাগ ভোট না পাওয়ায় তাদের জামানত বাজেয়াপ্ত হবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, এই আসনে মোট ভোটার ছিলেন ৪ লাখ ৫ হাজার ৪৫০ জন। এর মধ্যে ভোট পড়েছে ১ লাখ ৪১ হাজার ৪০টি। ১৮০টি ভোটকেন্দ্রে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মুহা. জিয়াউর রহমান ৯৪ হাজার ৯২৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র ও আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী মোহাম্মদ আলী সরকার পেয়েছেন ২৫ হাজার ৩৯৯ ভোট। ভোটার উপস্থিতির হার ছিল প্রায় ৩৪ শতাংশ।

রিটার্নিং কর্মকর্তা আরও জানান, এই আসনে টেলিভিশন প্রতীকে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী মো. নবীউল ইসলাম পেয়েছেন ১ হাজার ৪৭৩ ভোট, আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী খুরশিদ আলম বাচ্চু মাথাল প্রতীকে ১৪ হাজার ৩০৯ ভোট, জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক ৩ হাজার ৬১ ভোট, জাকের পার্টি মনোনীত প্রার্থী মো. গোলাম মোস্তফা গোলাপ ফুল প্রতীকে ১ হাজার ৮৭০ ভোট পেয়েছেন।

এদিকে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক একেএম গালিভ খাঁন জানান, এই আসনে মোট ভোটার ৪ লাখ ১১ হাজার ৪৯৫ জন। এর মধ্যে ভোট দিয়েছেন ১ লাখ ১৯ হাজার ৬৫৮ জন। ভোটার উপস্থিতির হার প্রায় ২৯ শতাংশ। ১৭২টি ভোটকেন্দ্রে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল ওদুদ ৫৯ হাজার ৬৩৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী সামিউল হক লিটন আপেল প্রতীকে পেয়েছেন ৫৫ হাজার ৯৮০ ভোট। জামানত হারানো টেলিভিশন প্রতীকে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী মো. কামরুজ্জামান খাঁন পেয়েছেন ৪ হাজার ৪০ ভোট।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মোতাওয়াক্কিল রহমান জানান, নিয়ম অনুযায়ী কাঙ্ক্ষিত ভোট না পেলে সেই প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত করে নির্বাচন কমিশন। সেই হিসেবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের দুইটি আসনে ৫ জন প্রার্থী তাদের জামানত হারাবেন।

প্রসঙ্গত, সংসদীয় আসন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (সদর) থেকে বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (নাচোল-গোমস্তাপুর-ভোলাহাট) থেকে বিএনপির সংসদ সদস্য আমিনুল ইসলাম পদত্যাগ করায় আসন দুটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এই আসন দুটিতে তফসিল অনুযায়ী বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।