ঢাকা ০৪:৩৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের আবেদন আগামী সপ্তাহে

দেশের আওয়াজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : ০৯:২৬:৩৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৫ মার্চ ২০২৩ ৮৬ বার পড়া হয়েছে

দুর্নীতিতে দণ্ডিত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ শেষ হতে যাচ্ছে আগামী ২৪ মার্চ। তাই সপ্তম বারের মতো সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদনের প্রস্তুতি নিচ্ছে তার পরিবার। চলতি মাসের আগামী সপ্তাহের যেকোনো দিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন জমা দেওয়া হয়েছে।

২০২০ সালের ২৫ মার্চ শর্তসাপেক্ষে সরকারের নির্বাহী আদেশে সাময়িক মুক্তি পর থেকে গত ৩ বছর ধরে গুলশানের বাসায় থাকছেন খালেদা জিয়া। এ সময়ে খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ ষষ্ঠবারের মত বাড়ানো হয়েছে। মুক্তির শর্ত অনুযায়ী, মুক্ত থাকার সময়ে তাকে ঢাকায় নিজের বাসায় থেকে চিকিৎসা নিতে হবে। তিনি বিদেশে যেতে পারবেন না। এই শর্তগুলো পুরোপুরি মেনে চলছেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।

বিএনপির চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এবিএম আব্দুস সাত্তার বলেন, আগামী ২৪ মার্চ পর্যন্ত ম্যাডামের সাজা স্থগিতর মেয়াদ আছে। সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন পরিবার করে থাকেন। এটা গতানুগতিক বিষয়। এবারও উনার ভাই শামীম ইস্কান্দার করবেন।

গত কিছুদিন ধরে খালেদা জিয়ার রাজনীতিতে ফিরে আসা এবং আগামী সংসদ নির্বাচনে তার অংশ নেওয়া নিয়ে নানামুখী বক্তব্য দিয়ে আসছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের সংসদ সদস্য ও মন্ত্রীরা। কেউ বলছেন, খালেদা জিয়া রাজনীতি করতে পারবে, কিন্তু দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত, তাই দণ্ডিত ব্যক্তি হিসেবে তিনি নির্বাচনের অংশ নিতে পারবেন না। অন্যদিকে বিএনপির নেতারা বলেছেন, বিএনপির প্রথম চাওয়া হচ্ছে তার মুক্তি। তার মুক্তিটাই বড় প্রয়োজন। মুক্তির ওপর নির্ভর করছে তার রাজনীতিতে ফিরে আসা। তারপর আসবে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়টি।

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি এক অনুষ্ঠানে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমাদের প্রথম অগ্রাধিকার খালেদা জিয়ার মুক্তি। ওনার মুক্তিটা আমাদের সবচেয়ে বড় প্রয়োজন। রাজনীতিতে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারটাও মুক্তির ওপর নির্ভর করবে।

রাজনৈতিক এই ডামাডোলের মধ্যে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে স্বাস্থ্যের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়। তার চিকিৎসকরা বলছেন, তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার রিপোর্ট সবগুলো পাওয়া গেছে। সেখানে তেমন খারাপ কিছু পাওয়া যায়নি। তার শারীরিক অবস্থা আগের মতোই। অর্থাৎ, মোটামুটি ভালো আছেন তিনি। নতুন করে শারীরিক অবস্থার কোনো অবনতি কিংবা নতুন কোনো রোগের উপসর্গ দেখা দেয়নি।

খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন বলেন, ম্যাডামের স্বাস্থ্য পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া গেছে। উনার শারীরিক অবস্থা আগের মতোই আছেন।

এবিএম আব্দুস সাত্তার বলেন, ম্যডামের অবস্থা মোটামুটি ভালো। আগের মতোই আছেন।

৭৯ বছর বয়সী এই সাবেক প্রধানমন্ত্রী নানা ধরনের রোগে আক্রান্ত। আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, কিডনি, ফুসফুস, চোখের সমস্যাসহ নানা জটিলতায় ভুগছেন তিনি। গত বছরের নভেম্বরে ঢাকার এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর খালেদা জিয়ার ‘পরিপাকতন্ত্রে’ রক্তক্ষরণ এবং লিভার সিরোসিসের কথা জানান চিকিৎসকরা। এরপর জুনে হাসপাতালেই ভর্তি হলে খালেদা জিয়ার হার্টে ব্লক ধরা পড়ে এবং রিং বসানো হয়।

খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের নানা জটিলতার উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বিদেশে পাঠানোর জন্য কয়েক দফা আবেদন করেছিলেন তার ভাই শামীম ইস্কান্দার। কিন্তু মুক্তির শর্তে কথা উল্লেখ করে প্রতিবারই তা নাকচ করে সরকার।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের আবেদন আগামী সপ্তাহে

আপডেট সময় : ০৯:২৬:৩৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৫ মার্চ ২০২৩

দুর্নীতিতে দণ্ডিত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ শেষ হতে যাচ্ছে আগামী ২৪ মার্চ। তাই সপ্তম বারের মতো সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদনের প্রস্তুতি নিচ্ছে তার পরিবার। চলতি মাসের আগামী সপ্তাহের যেকোনো দিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন জমা দেওয়া হয়েছে।

২০২০ সালের ২৫ মার্চ শর্তসাপেক্ষে সরকারের নির্বাহী আদেশে সাময়িক মুক্তি পর থেকে গত ৩ বছর ধরে গুলশানের বাসায় থাকছেন খালেদা জিয়া। এ সময়ে খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ ষষ্ঠবারের মত বাড়ানো হয়েছে। মুক্তির শর্ত অনুযায়ী, মুক্ত থাকার সময়ে তাকে ঢাকায় নিজের বাসায় থেকে চিকিৎসা নিতে হবে। তিনি বিদেশে যেতে পারবেন না। এই শর্তগুলো পুরোপুরি মেনে চলছেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।

বিএনপির চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এবিএম আব্দুস সাত্তার বলেন, আগামী ২৪ মার্চ পর্যন্ত ম্যাডামের সাজা স্থগিতর মেয়াদ আছে। সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন পরিবার করে থাকেন। এটা গতানুগতিক বিষয়। এবারও উনার ভাই শামীম ইস্কান্দার করবেন।

গত কিছুদিন ধরে খালেদা জিয়ার রাজনীতিতে ফিরে আসা এবং আগামী সংসদ নির্বাচনে তার অংশ নেওয়া নিয়ে নানামুখী বক্তব্য দিয়ে আসছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের সংসদ সদস্য ও মন্ত্রীরা। কেউ বলছেন, খালেদা জিয়া রাজনীতি করতে পারবে, কিন্তু দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত, তাই দণ্ডিত ব্যক্তি হিসেবে তিনি নির্বাচনের অংশ নিতে পারবেন না। অন্যদিকে বিএনপির নেতারা বলেছেন, বিএনপির প্রথম চাওয়া হচ্ছে তার মুক্তি। তার মুক্তিটাই বড় প্রয়োজন। মুক্তির ওপর নির্ভর করছে তার রাজনীতিতে ফিরে আসা। তারপর আসবে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়টি।

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি এক অনুষ্ঠানে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমাদের প্রথম অগ্রাধিকার খালেদা জিয়ার মুক্তি। ওনার মুক্তিটা আমাদের সবচেয়ে বড় প্রয়োজন। রাজনীতিতে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারটাও মুক্তির ওপর নির্ভর করবে।

রাজনৈতিক এই ডামাডোলের মধ্যে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে স্বাস্থ্যের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়। তার চিকিৎসকরা বলছেন, তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার রিপোর্ট সবগুলো পাওয়া গেছে। সেখানে তেমন খারাপ কিছু পাওয়া যায়নি। তার শারীরিক অবস্থা আগের মতোই। অর্থাৎ, মোটামুটি ভালো আছেন তিনি। নতুন করে শারীরিক অবস্থার কোনো অবনতি কিংবা নতুন কোনো রোগের উপসর্গ দেখা দেয়নি।

খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন বলেন, ম্যাডামের স্বাস্থ্য পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া গেছে। উনার শারীরিক অবস্থা আগের মতোই আছেন।

এবিএম আব্দুস সাত্তার বলেন, ম্যডামের অবস্থা মোটামুটি ভালো। আগের মতোই আছেন।

৭৯ বছর বয়সী এই সাবেক প্রধানমন্ত্রী নানা ধরনের রোগে আক্রান্ত। আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, কিডনি, ফুসফুস, চোখের সমস্যাসহ নানা জটিলতায় ভুগছেন তিনি। গত বছরের নভেম্বরে ঢাকার এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর খালেদা জিয়ার ‘পরিপাকতন্ত্রে’ রক্তক্ষরণ এবং লিভার সিরোসিসের কথা জানান চিকিৎসকরা। এরপর জুনে হাসপাতালেই ভর্তি হলে খালেদা জিয়ার হার্টে ব্লক ধরা পড়ে এবং রিং বসানো হয়।

খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের নানা জটিলতার উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বিদেশে পাঠানোর জন্য কয়েক দফা আবেদন করেছিলেন তার ভাই শামীম ইস্কান্দার। কিন্তু মুক্তির শর্তে কথা উল্লেখ করে প্রতিবারই তা নাকচ করে সরকার।